নিউইয়র্ক ০১:০১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

শেখ হাসিনার ভিষণ ২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৩:৪০:২৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫
  • / ১৪১৭ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা, ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বলেছেন, ‘জাতির জনক’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি। একাত্তুরের যুদ্ধে আহত হয়েছি। এখন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ গড়ার সংগ্রাম করে চলেছি। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিষণ ২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব। খবর ইউএনএ’র।
জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগদানকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফরসঙ্গী আল-মামুন সরকার। ব্যক্তিগত জীবনে একজন সোস্যাল ওয়ার্কার। দারিদ্র বিমোচন তথা সামাজিক নিরাপত্তা বলয় সংক্রান্ত সরকারের কর্মসূচী বাস্তবায়নে ১৯৯৮ সাল থেকে শহর সমাজ সেবা প্রকল্পের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ১৯৬৯ সাল থেকে ছাত্রাবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুরু করে। পরবর্তীতে ১৯৭৮ ব্রাক্ষণবাড়িয়া সরকারী অনার্স কলেজের নির্বাচিত ভিপি ছাড়াও ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ও আওয়ামী যুবলীগের সদস্য। ১৯৯১ সালে ব্রাক্ষণবাড়িয়া পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র হন এবং ২০১৪ থেকে ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক কারণে একাধিক বার তিনি কারা নির্যাতন ভোগ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক পুত্র সন্তানের জনক। স্ত্রী জিনাত আক্তার, পেশায় কলেজ শিক্ষক।
Roman & Al-Mamun Sarker (L to R)প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে এবারই প্রথম নিউইয়র্ক তথা যুক্তরাষ্ট্র সফল করছেন। কেন প্রধানমন্ত্রী তাকে সফরসঙ্গী করলেন এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি ইউএনএ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে বিষয়ে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পুরষ্কার পাচ্ছেন, সেই বিষয়েই আমি ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলায় কাজ করছি’। প্রধানমন্ত্রী কাজের মূল্যায়ন করতে জানেন, দলে কর্মীদের মূলায়ণ করতে জানেন। তিনি বলেন, প্রধামন্ত্রীর সফর সঙ্গী হওয়া নজীর বিহীন, এই সফর কর্মের মূল্যায়ন।
আওয়ামী লীগের একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কিভাবে মূল্যায়ণ করবেন এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার রজনৈতিক প্রজ্ঞা প্রশংসার দাবীদার। তিনি দরিদ্র মানুষের কল্যাণে কাজ করাই তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। তাই তিনি সত্যিকারেই জননেত্রী।
ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে আল মামুন সরকার বলেন, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে বিগত আট মাস ধরে টানা প্রথম স্থান অধিকার করে চলেছে ব্রাক্ষণবাড়িয়া। অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় জেলার আইন-শৃঙ্ঘলা সন্তোষজনক। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ একসাথে কাজ করছেন বলেই এই সাফল্য এসেছে বলে দাবী আল-মামুন সরকারের। এছাড়া শিক্ষা ও অবকাঠামোখাতে সরকারী উদ্যোগে ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে প্রবাসে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি জেলায় বিনিয়োগ করার জন্য তিনি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ব্রাক্ষণবাড়িয়াবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

শেখ হাসিনার ভিষণ ২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব

প্রকাশের সময় : ০৩:৪০:২৮ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৫

নিউইয়র্ক: যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা, ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বলেছেন, ‘জাতির জনক’ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছি। একাত্তুরের যুদ্ধে আহত হয়েছি। এখন জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর ‘সোনার বাংলা’ গড়ার সংগ্রাম করে চলেছি। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিষণ ২০২১ বাস্তবায়নের মাধ্যমেই বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠা সম্ভব। খবর ইউএনএ’র।
জাতিসংঘের সাধারণ অধিবেশনে যোগদানকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সফরসঙ্গী আল-মামুন সরকার। ব্যক্তিগত জীবনে একজন সোস্যাল ওয়ার্কার। দারিদ্র বিমোচন তথা সামাজিক নিরাপত্তা বলয় সংক্রান্ত সরকারের কর্মসূচী বাস্তবায়নে ১৯৯৮ সাল থেকে শহর সমাজ সেবা প্রকল্পের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি ১৯৬৯ সাল থেকে ছাত্রাবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতির মধ্যদিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতি শুরু করে। পরবর্তীতে ১৯৭৮ ব্রাক্ষণবাড়িয়া সরকারী অনার্স কলেজের নির্বাচিত ভিপি ছাড়াও ছিলেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ ও আওয়ামী যুবলীগের সদস্য। ১৯৯১ সালে ব্রাক্ষণবাড়িয়া পৌরসভার নির্বাচিত মেয়র হন এবং ২০১৪ থেকে ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। রাজনৈতিক কারণে একাধিক বার তিনি কারা নির্যাতন ভোগ করেন। ব্যক্তিগত জীবনে তিনি এক পুত্র সন্তানের জনক। স্ত্রী জিনাত আক্তার, পেশায় কলেজ শিক্ষক।
Roman & Al-Mamun Sarker (L to R)প্রধানমন্ত্রীর সফর সঙ্গী হিসেবে এবারই প্রথম নিউইয়র্ক তথা যুক্তরাষ্ট্র সফল করছেন। কেন প্রধানমন্ত্রী তাকে সফরসঙ্গী করলেন এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি ইউএনএ প্রতিনিধিকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী যে বিষয়ে জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পুরষ্কার পাচ্ছেন, সেই বিষয়েই আমি ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলায় কাজ করছি’। প্রধানমন্ত্রী কাজের মূল্যায়ন করতে জানেন, দলে কর্মীদের মূলায়ণ করতে জানেন। তিনি বলেন, প্রধামন্ত্রীর সফর সঙ্গী হওয়া নজীর বিহীন, এই সফর কর্মের মূল্যায়ন।
আওয়ামী লীগের একজন রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে বঙ্গবন্ধু কন্যা, প্রধানমন্ত্রী, জননেত্রী শেখ হাসিনাকে কিভাবে মূল্যায়ণ করবেন এমন এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, জননেত্রী শেখ হাসিনার রজনৈতিক প্রজ্ঞা প্রশংসার দাবীদার। তিনি দরিদ্র মানুষের কল্যাণে কাজ করাই তার লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। তাই তিনি সত্যিকারেই জননেত্রী।
ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলার আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে আল মামুন সরকার বলেন, আইন-শৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে বিগত আট মাস ধরে টানা প্রথম স্থান অধিকার করে চলেছে ব্রাক্ষণবাড়িয়া। অতীতের যেকোন সময়ের তুলনায় জেলার আইন-শৃঙ্ঘলা সন্তোষজনক। জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ একসাথে কাজ করছেন বলেই এই সাফল্য এসেছে বলে দাবী আল-মামুন সরকারের। এছাড়া শিক্ষা ও অবকাঠামোখাতে সরকারী উদ্যোগে ব্রাক্ষণবাড়িয়ায় ব্যাপক উন্নয়ন সাধিত হয়েছে।
অপর এক প্রশ্নের উত্তরে প্রবাসে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জল করার আহ্বান জানানোর পাশাপাশি জেলায় বিনিয়োগ করার জন্য তিনি যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী ব্রাক্ষণবাড়িয়াবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।