নিউইয়র্ক ১১:০৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

বিলীন হচ্ছে বিএনপি, ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখছে জাতীয় পার্টি : নিউইয়র্কে দলীয় সম্বর্ধনা সভায় এরশাদ

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:৪৭:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ জুলাই ২০১৬
  • / ৭০৬ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাজোট সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টা এইচ এম এরশাদ বলেছেন, অর্থ পাচার মামলায় তারেক রহমানের ৭ বছরের জেল এবং ২০ কোটি টাকা জরিমানা হয়েছে। এই রায়ের পর বিএনপির ১০ জন লোকও রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেনি। মাঠেও নেই বিএনপি। এভাবেই বিলীন হয়ে যাচ্ছে বিএনপির অস্তিত্ব। অপরদিকে আওয়ামী লীগ যদি সন্ত্রাস দমনে সক্ষম না হয়, বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ইমেজ অটুট রাখতে না পারে, তাহলে আগামী নির্বাচনে মানুষ আবারো জাতীয় পার্টিকেই ক্ষমতায় নেবে। তাই ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখছে জাতীয় পার্টি। এরশাদ আরো বলেন, আমি শেখ হাসিনাকে বোন বলে মানি। এজন্যে সব সময় শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের পাশে ছিলাম, এখনও আছি এবং সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখতে সবসময় আওয়ামী লীগের পাশেই থাকবো।
যুক্তরাষ্ট্র সফররত দলীয় চেয়ারপার্সনের সম্মানে যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টি আয়োজিত গণ সম্বর্ধনা সভায় বক্তৃতাকালে এইচ এম এরশাদ উপরোক্ত কথা বলেন। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, নাসরিন জাহান রতœা এমপি, জাতীয় পার্টিও প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, কোষাধ্যক্ষ মেজর (অব:) খালেদ আকতার ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। সিটির জ্যাকসন হাইটসস্থ নান্দুস পার্টি হলে ২১ জুলাই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান। সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করীমম চৌধুরী প্রমুখ। সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু।
অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীতের পর দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। স্থানীয় শিল্পীরা এতে অংশ নেন। এরপর বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্বর্ধিত এরশাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান চৌধুরী।
সভায় এইচ এম এরশাদ বলেন, আমি জানি, আপনারা কিছুটা উদ্বিগ্ন। দেশে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে, যে জন্যে উদ্বিগ্ন হবার কথা। তবে আমি আশ্বস্ত করতে পারি, চিন্তার কোন কারণ নেই, উদ্বেগের প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আইএস-এর কোন অস্তিত্ব নেই। কিছু বিপথগামী তরুণের অপকর্মের ফলে বাংলাদেশের দূর্নাম হচ্ছে। এই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তিনি বলেন, সন্ত্রাস নির্মূলের জন্যে আমি জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পরামর্শ দিয়েছি জাতীয় ঐক্য গড়ার জন্যে। আশা করছি শেখ হাসিনা সেটি মানবেন এবং সে পথ বেয়েই বাংলাদেশে বর্তমানের অশুভ শক্তির চির অবসান ঘটবে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সন্ত্রাস দমনে সক্ষম হবেনই। বাংলাদেশের সন্ত্রাস দমনে আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, মধ্যপ্রাচ্য বাংলাদেশের পাশে রয়েছে। আমরা শেখ হাসিনার সঙ্গে আছি, সব সময় পাশেই থাকবো। আসুন সকলে মিলে সরকারের পাশে দাঁড়াই।
এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি কখনোই সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে না, জ্বালাও-পোড়াওয়ের রাজনীতিও করেনা। জাতীয় পার্টি উন্নয়ন আর শান্তিতে বিশ্বাসী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আজ যে উন্নয়নের ধারা বইছে তার ভিশনটাই ছিলো আমার। দেশের প্রতিটি উন্নয়ন কাজের শুরুতে আমার হাতের স্পর্শ পাবেন। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় থাকাকালে দেশের হিন্দুরা নিরাপদে ছিলেন, আমি ছিলাম অসাম্প্রদায়িক। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসলে আবার হিন্দুরা আরো নিরাপদে থাকবে। এরশাদ বলেন, আমার উপর অনেক অত্যাচার হয়েছে। তারপরও দেশের মানুষের দোয়ায় আমি বেঁচে আছি।
এরশাদ বলেন, মহাজোট সরকারের মেয়াদ ৫ বছর। সরকারের ৩ বছর অতিবাহিত হচ্ছে। অবশিষ্ট সময়ও তারাই দেশ পরিচালনা করবে। এটিই গণতন্ত্রের রীতি। জাতীয় পার্টি সব সময় গণতন্ত্রের পক্ষে।
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা প্রদানের কার্যক্রম চালু করায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে এরশাদ বলেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রধান উপদেষ্টা থাকাকালে তাদের ‘জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান’ হিসেবে সম্মান দিয়েছি। তাদের প্রাপ্য অনেক বেশী। জীবন বাজি রেখে তারা যুদ্ধ করেছেন বলেই আমরা দেশ পেয়েছি, ক্ষমতা পেয়েছি, পাচ্ছি।
সভায় দলীয় মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, পল্লীবন্ধু এরশাদ যদি ৯ বছরের স্থলে ২৫ বছর ক্ষমতায় থাকনে তাহলে বাংলাদেশ আজ মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুরকে ছাড়িয়ে যেত। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় নেই, তবুও উন্নয়ন হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে চাই জাতীয় ঐক্য আর রাজনৈতিক স্থিতি। এরশাদের আমলে সৃষ্ট অনেক উন্নয়ন প্রকল্পের সমাপ্তি ঘটাচ্ছেন শেখ হাসিনা সরকার।
দলীয় চেয়ারম্যান এরশাদকে বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রবীণ রাজনীতিক হিসেবে উল্লেখ করে রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, এরশাদ সাহেব শেখ হাসিনার পাশে রয়েছেন জাতির অভিভাবক হিসেবে।
উল্লেখ্য, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ ব্যক্তিগত সফরে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন ১৮ জুন সোমবার। ২৪ জুলাই ঢাকার উদ্দেশ্যে তার নিউইয়র্ক ত্যাগের কথা। মাঝে তিনি ওয়াশিংটন ডিসিতে ইউএস কংগ্রেসের কয়েকজন সদস্যের সাথে বৈঠকে মিলিত হবেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

বিলীন হচ্ছে বিএনপি, ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখছে জাতীয় পার্টি : নিউইয়র্কে দলীয় সম্বর্ধনা সভায় এরশাদ

প্রকাশের সময় : ০৮:৪৭:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ জুলাই ২০১৬

নিউইয়র্ক: সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও মহাজোট সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উপদেষ্টা এইচ এম এরশাদ বলেছেন, অর্থ পাচার মামলায় তারেক রহমানের ৭ বছরের জেল এবং ২০ কোটি টাকা জরিমানা হয়েছে। এই রায়ের পর বিএনপির ১০ জন লোকও রাস্তায় নেমে প্রতিবাদ করেনি। মাঠেও নেই বিএনপি। এভাবেই বিলীন হয়ে যাচ্ছে বিএনপির অস্তিত্ব। অপরদিকে আওয়ামী লীগ যদি সন্ত্রাস দমনে সক্ষম না হয়, বাংলাদেশের আন্তর্জাতিক ইমেজ অটুট রাখতে না পারে, তাহলে আগামী নির্বাচনে মানুষ আবারো জাতীয় পার্টিকেই ক্ষমতায় নেবে। তাই ক্ষমতায় যাবার স্বপ্ন দেখছে জাতীয় পার্টি। এরশাদ আরো বলেন, আমি শেখ হাসিনাকে বোন বলে মানি। এজন্যে সব সময় শেখ হাসিনা ও আওয়ামী লীগের পাশে ছিলাম, এখনও আছি এবং সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা অক্ষুন্ন রাখতে সবসময় আওয়ামী লীগের পাশেই থাকবো।
যুক্তরাষ্ট্র সফররত দলীয় চেয়ারপার্সনের সম্মানে যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টি আয়োজিত গণ সম্বর্ধনা সভায় বক্তৃতাকালে এইচ এম এরশাদ উপরোক্ত কথা বলেন। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, নাসরিন জাহান রতœা এমপি, জাতীয় পার্টিও প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, কোষাধ্যক্ষ মেজর (অব:) খালেদ আকতার ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান। সিটির জ্যাকসন হাইটসস্থ নান্দুস পার্টি হলে ২১ জুলাই বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত সংবর্ধনা সভায় সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান। সভায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, আওয়ামী লীগ নেতা রেজাউল করীমম চৌধুরী প্রমুখ। সম্বর্ধনা অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক আবু তালেব চৌধুরী চান্দু।
অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীতের পর দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। স্থানীয় শিল্পীরা এতে অংশ নেন। এরপর বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে সম্বর্ধিত এরশাদকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক ওসমান চৌধুরী।
সভায় এইচ এম এরশাদ বলেন, আমি জানি, আপনারা কিছুটা উদ্বিগ্ন। দেশে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে, যে জন্যে উদ্বিগ্ন হবার কথা। তবে আমি আশ্বস্ত করতে পারি, চিন্তার কোন কারণ নেই, উদ্বেগের প্রয়োজন নেই। তিনি বলেন, বাংলাদেশে আইএস-এর কোন অস্তিত্ব নেই। কিছু বিপথগামী তরুণের অপকর্মের ফলে বাংলাদেশের দূর্নাম হচ্ছে। এই সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। তিনি বলেন, সন্ত্রাস নির্মূলের জন্যে আমি জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে পরামর্শ দিয়েছি জাতীয় ঐক্য গড়ার জন্যে। আশা করছি শেখ হাসিনা সেটি মানবেন এবং সে পথ বেয়েই বাংলাদেশে বর্তমানের অশুভ শক্তির চির অবসান ঘটবে। তিনি বলেন, শেখ হাসিনা সন্ত্রাস দমনে সক্ষম হবেনই। বাংলাদেশের সন্ত্রাস দমনে আমেরিকা, কানাডা, যুক্তরাজ্য, মধ্যপ্রাচ্য বাংলাদেশের পাশে রয়েছে। আমরা শেখ হাসিনার সঙ্গে আছি, সব সময় পাশেই থাকবো। আসুন সকলে মিলে সরকারের পাশে দাঁড়াই।
এরশাদ বলেন, জাতীয় পার্টি কখনোই সন্ত্রাসে বিশ্বাস করে না, জ্বালাও-পোড়াওয়ের রাজনীতিও করেনা। জাতীয় পার্টি উন্নয়ন আর শান্তিতে বিশ্বাসী। তিনি বলেন, বাংলাদেশের আজ যে উন্নয়নের ধারা বইছে তার ভিশনটাই ছিলো আমার। দেশের প্রতিটি উন্নয়ন কাজের শুরুতে আমার হাতের স্পর্শ পাবেন। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় থাকাকালে দেশের হিন্দুরা নিরাপদে ছিলেন, আমি ছিলাম অসাম্প্রদায়িক। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় আসলে আবার হিন্দুরা আরো নিরাপদে থাকবে। এরশাদ বলেন, আমার উপর অনেক অত্যাচার হয়েছে। তারপরও দেশের মানুষের দোয়ায় আমি বেঁচে আছি।
এরশাদ বলেন, মহাজোট সরকারের মেয়াদ ৫ বছর। সরকারের ৩ বছর অতিবাহিত হচ্ছে। অবশিষ্ট সময়ও তারাই দেশ পরিচালনা করবে। এটিই গণতন্ত্রের রীতি। জাতীয় পার্টি সব সময় গণতন্ত্রের পক্ষে।
মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা প্রদানের কার্যক্রম চালু করায় শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়ে এরশাদ বলেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রধান উপদেষ্টা থাকাকালে তাদের ‘জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তান’ হিসেবে সম্মান দিয়েছি। তাদের প্রাপ্য অনেক বেশী। জীবন বাজি রেখে তারা যুদ্ধ করেছেন বলেই আমরা দেশ পেয়েছি, ক্ষমতা পেয়েছি, পাচ্ছি।
সভায় দলীয় মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, পল্লীবন্ধু এরশাদ যদি ৯ বছরের স্থলে ২৫ বছর ক্ষমতায় থাকনে তাহলে বাংলাদেশ আজ মালয়েশিয়া-সিঙ্গাপুরকে ছাড়িয়ে যেত। জাতীয় পার্টি ক্ষমতায় নেই, তবুও উন্নয়ন হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। উন্নয়নের এই ধারা অব্যাহত রাখতে চাই জাতীয় ঐক্য আর রাজনৈতিক স্থিতি। এরশাদের আমলে সৃষ্ট অনেক উন্নয়ন প্রকল্পের সমাপ্তি ঘটাচ্ছেন শেখ হাসিনা সরকার।
দলীয় চেয়ারম্যান এরশাদকে বাংলাদেশের সবচেয়ে প্রবীণ রাজনীতিক হিসেবে উল্লেখ করে রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, এরশাদ সাহেব শেখ হাসিনার পাশে রয়েছেন জাতির অভিভাবক হিসেবে।
উল্লেখ্য, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এরশাদ ব্যক্তিগত সফরে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছেন ১৮ জুন সোমবার। ২৪ জুলাই ঢাকার উদ্দেশ্যে তার নিউইয়র্ক ত্যাগের কথা। মাঝে তিনি ওয়াশিংটন ডিসিতে ইউএস কংগ্রেসের কয়েকজন সদস্যের সাথে বৈঠকে মিলিত হবেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে।