নিউইয়র্ক ১১:৩৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

টাইম টেলিভিশন বৈশাখী মেলায় মানুষের ঢল

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৫:৪৭:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ মে ২০১৬
  • / ৭৯৮ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: এক অভুতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হয়েছিল ব্রুকলীনের চার্চ এভিন্যুতে। হাজারো নারী পুরুষ, আবাল বৃদ্ধ বনিতার সমাবেশ ঘঠেছিলসেখানে। হাজার কন্ঠে তারা গেয়েছেন বাংলাদেশের গান। প্রতিকুল আবহাওয়া আর কনকনে বাতাস আবেগ থামাতে পারেনি তাদের। তাই মেলার আগ পর্যন্ত হাজার হাজার নারী পুরুষের উপচে পড়া ভীড়ে ব্রুকলীনে সৃষ্টি হয়েছিল এক ভিন্ন পরিবেশের।
আমেরিকান রাজনীতিকরাও এমন পরিবেশ দেখে ছিলেন বিমুগ্ধ ও বিস্মিত। মানুষের ঢল দেখে উল্লাস প্রকাশ করে তারা বলেছেন, ব্রুকলীন এখন বাংলাদেশীদের। ব্রুকলীনের বরো প্রেসিডেন্ট এরিক এডামের কন্ঠে ছিল বাংলাদেশীদের ভুয়শী প্রশংসা। তিনি বলেন, বাংলাদেশীদের উপেক্ষা করার আর সুযোগ নেই। আজকের এই মেলা প্রমাণ করেছে তারা শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ। এজন্য মেলা আয়োজনের জন্য তিনি বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি ও প্রবাসের জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া টাইম টেলিভিশনকে অভিনন্দন জানান সিটি কম্পট্রোলার স্কট স্ট্রিংগার। তিনি বলেন, টাইম টেলিভিশন ও বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি বাংলাদেশী কমিউনিটিকে আরো একধাপ এগিয়ে নিলো। এজন্য তিনি আয়োজকদের প্রতি জানান গভীর কৃতজ্ঞতা।
মেলার গ্রান্ড স্পন্সর ছিলেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর আনোয়ার হোসাইন। আনোয়ার হোসেইনের কমিউনিটি অবদানের জন্য তাকে দেয়া হয় কংগ্রেশনাল প্রক্লেমেশন ও ব্রুকলীন বরো প্রেসিডেন্টের সম্মাননা।
রোববার ব্রুকলীনের চার্চ এভিনিউতে দিনব্যাপী এই মেলার কর্মকান্ড চলে। দিনের শুরুতে প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যেই মেলার কর্মকান্ড শুরু হলেও বেলা বৃদ্ধির সাথে সাথে মেঘ কাটতে শুরু করে। বিকেলে জমে উঠে মেলা প্রাঙ্গণ। নাচে-গানে ভরে উঠে মেলায় উপস্থিত হাজারো দর্শকের মনপ্রাণ। সবমিলিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করে পুরো চার্চ-ম্যাগডোনাল্ড এভিনিউতে।
বেলা দুটার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার কর্মকান্ড শুরু হয়। মূলধারা, ৬৬ প্রিসিক্ট-এর কমান্ডার ও কর্মকতা, মেলা আয়োজক কমিটির কর্মকর্তা আর কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ফিতা কেটে মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক শামসুল হক। এরপর উপস্থিত নেতৃবৃন্দ রং বে রং-এর এক গুচ্ছ বেলুন উড়িয়ে মেলার আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন। এরপর অতিথিবৃন্দ র‌্যালী করে মূল মঞ্চে গিয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। এসময় ভাষা সৈনিক শামসুল হক, ইউএস কংগ্রেসম্যান জেরাল নেদনার, ব্রুকলীন বরো প্রেসিডেন্ট এরিক আদম, সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভি’র সিইও আবু তাহের, ৬৬ প্রিসিক্ট-এর কমান্ডার ক্যাপ্টেইন কেনেথ এম কুইক, এটর্নী পেরী ডি সিলভার, এটর্নী মঈন চৌধুরী, ওয়েলকেয়ার-এর সিনিয়র ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, চ্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের তিন তিনবারের কমিশনার আঞ্জুমান আরা, মেলা কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, মেলা আয়োজক সংগঠন বাফস’র সভাপতি কাজী আজম ও সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুল হক চৌধুরী প্রমুখ। এসময় চট্টগ্রাম সমিতির সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নুরুল আমীন, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট শামসুল আলম চৌধুরী, মনির আহমেদ, ইকবাল হায়দার, আব্দুল কাদের চৌধুরী শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
উদ্বোধনী পর্বে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। এরপর স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আতœত্যাগকারী শহীদ আর যুক্তরাষ্ট্রের ৯/১১-এর সন্ত্রাসী ঘটনায় নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পারণ করা হয়।
এছাড়াও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মেলার গ্র্যান্ড স্পন্সর, বিশিষ্ট রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর মো: আনোয়ার হোসেন। মেলার অনুষ্ঠানমালা উপস্থাপনায় ছিলেন আশরাফুল হাসান বুলবুল, ফাতেমা সাহাব রুমা ও সাহাব উদ্দিন চৌধুরী লিটন।
মেলার উদ্বোধনী পর্বে নেতৃবৃন্দ বলেন, মূলধারার সাথে কমিউনিটির সেতু বন্ধনই মেলার মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। মূলধারার নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশীরা সৎ ও কর্মঠ। তারা তাদের মেধা, যোগ্যতা আর কর্ম দক্ষতা দিয়ে আমেরিকান কমিউনিটিতে নিজেদের স্থান সুসংহত করে চলেছে। বক্তারা বলেন, ব্রুকলীন বাংলাদেশীদের কমিউনিটিতে পরিণত হয়েছে।
টাইম টেলিভিশন বৈশাখী মেলা উপলক্ষে রোববার সকাল থেকেই দর্শক-শ্রোতার উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে দর্শক শ্রোতার সংখ্যাও বাড়তে থাকে। রং বে রং এর পোশষাক পড়ে প্রবাসী বাংলাদেশীরা মেলায় যোগ দিয়ে উৎসবে পরিণত করেন। মেলা উপলক্ষে শতাধিক স্টল বলে। এতে হরেক রকমের খাবর ছাড়াও ছিলো শাড়ী-কাপড়, গহনার স্টল। আরো ছিলো স্বাস্থ্য বিষয়ক একাধিক প্রতিষ্ঠান/সংগঠনের স্টল। ছিলো শিশু-কিশোর-কিশোরীদের বিনোদনের জন্য বিভিন্ন রাইড।
মেলার মুল অনুষ্ঠান সাংস্কৃতিক পর্বে বাংলাদেশের জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী রন্টি দাস ছাড়াও দেশ ও প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করবেন। উল্লেখযোগ্য শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন কৃষ্ণা তিথি, চন্দন দত্ত, রোকসানা মির্জা, শাহ মাহবুব, শামীম সিদ্দিকী, চন্দ্রা রায়, হাফিজুর রহমান, খায়রুল বাসার, ডা. শাহনাজ, শাহনাজ সুলতানা, রানু নেওয়াজ, রীনা চৌধুরী, শামসুন্নার লিনা, তৃপ্তি জাহান (কানাডা), হারুন অর রশীদ প্রমুখ। এছাড়া চারুকন্ঠের শিল্পীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি (বাফস) ও ৬৬ প্রিসিঙ্কট কমিউনিটি কাউন্সিলের আয়োজনে গতবছর প্রথম বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এবারের মেলা ছিলো দ্বিতীয় বৈশাখী মেলা। মেলার মূল পর্ব টাইম টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করে।
‘টাইম টেলিভিশন বৈশাখী পথমেলা’র আয়োজনের নেপথ্যে দায়িত্ব পালন করছেন যথাক্রমে কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, সাহাব উদ্দিন চৌধুরী লিটন, জসিম মাহমুদ, আশরাফুল ইসলাম, এম এ লতিফ, মনির আহমদ, এমদাদুল হক কামাল, আবুল কাশেম, ফিরোজ আহমদ, সেলিম চৌধুরী বাবুল, কামাল হোসেন মিঠু, মিনহাজ উদ্দিন বাবর, জাহাঙ্গীর আলম, খালেক আকন্দ, কাউছার চৌধুরী, আসিফুর রহমান, মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ, মোহাম্মদ আবু তালেব, নাজমুল আলম, সেলিম চৌধুরী, আবু তাহের, আব্দুল মান্নান, জাফর ইসলাম, রফিক উদ্দিন, মোতাহার হোসেন, ইকবাল হায়দার প্রমুখ।
র‌্যাফল ড্র ফল: ‘টাইম টেলিভিশন বৈশাখী পথমেলা’র আকর্ষনীয় র‌্যাফল ড্র বিজয়ী নস্বরগুলো হচ্ছে: প্রথম- এ ১০৬৬, দ্বিতীয়- এ ১৫৬১, তৃতীয়- এ ১৪৯৫, চতুর্থ- এ ১৩০৬, পঞ্চম- এ ১২৫৪, ষষ্ঠ- এ ১২৫৫, সপ্তম- এ ১০৮৪, অষ্টম- এ ১৫৯১, নবম- এ ১৩২০ এবং দশম- এ ১০৪৮. (সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা)

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

টাইম টেলিভিশন বৈশাখী মেলায় মানুষের ঢল

প্রকাশের সময় : ০৫:৪৭:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৬ মে ২০১৬

নিউইয়র্ক: এক অভুতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হয়েছিল ব্রুকলীনের চার্চ এভিন্যুতে। হাজারো নারী পুরুষ, আবাল বৃদ্ধ বনিতার সমাবেশ ঘঠেছিলসেখানে। হাজার কন্ঠে তারা গেয়েছেন বাংলাদেশের গান। প্রতিকুল আবহাওয়া আর কনকনে বাতাস আবেগ থামাতে পারেনি তাদের। তাই মেলার আগ পর্যন্ত হাজার হাজার নারী পুরুষের উপচে পড়া ভীড়ে ব্রুকলীনে সৃষ্টি হয়েছিল এক ভিন্ন পরিবেশের।
আমেরিকান রাজনীতিকরাও এমন পরিবেশ দেখে ছিলেন বিমুগ্ধ ও বিস্মিত। মানুষের ঢল দেখে উল্লাস প্রকাশ করে তারা বলেছেন, ব্রুকলীন এখন বাংলাদেশীদের। ব্রুকলীনের বরো প্রেসিডেন্ট এরিক এডামের কন্ঠে ছিল বাংলাদেশীদের ভুয়শী প্রশংসা। তিনি বলেন, বাংলাদেশীদের উপেক্ষা করার আর সুযোগ নেই। আজকের এই মেলা প্রমাণ করেছে তারা শক্তিশালী ও ঐক্যবদ্ধ। এজন্য মেলা আয়োজনের জন্য তিনি বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি ও প্রবাসের জনপ্রিয় ইলেকট্রনিক্স মিডিয়া টাইম টেলিভিশনকে অভিনন্দন জানান সিটি কম্পট্রোলার স্কট স্ট্রিংগার। তিনি বলেন, টাইম টেলিভিশন ও বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি বাংলাদেশী কমিউনিটিকে আরো একধাপ এগিয়ে নিলো। এজন্য তিনি আয়োজকদের প্রতি জানান গভীর কৃতজ্ঞতা।
মেলার গ্রান্ড স্পন্সর ছিলেন, বিশিষ্ট সমাজসেবক ও রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর আনোয়ার হোসাইন। আনোয়ার হোসেইনের কমিউনিটি অবদানের জন্য তাকে দেয়া হয় কংগ্রেশনাল প্রক্লেমেশন ও ব্রুকলীন বরো প্রেসিডেন্টের সম্মাননা।
রোববার ব্রুকলীনের চার্চ এভিনিউতে দিনব্যাপী এই মেলার কর্মকান্ড চলে। দিনের শুরুতে প্রতিকূল আবহাওয়ার মধ্যেই মেলার কর্মকান্ড শুরু হলেও বেলা বৃদ্ধির সাথে সাথে মেঘ কাটতে শুরু করে। বিকেলে জমে উঠে মেলা প্রাঙ্গণ। নাচে-গানে ভরে উঠে মেলায় উপস্থিত হাজারো দর্শকের মনপ্রাণ। সবমিলিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করে পুরো চার্চ-ম্যাগডোনাল্ড এভিনিউতে।
বেলা দুটার দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে মেলার কর্মকান্ড শুরু হয়। মূলধারা, ৬৬ প্রিসিক্ট-এর কমান্ডার ও কর্মকতা, মেলা আয়োজক কমিটির কর্মকর্তা আর কমিউনিটি নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ফিতা কেটে মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন একুশে পদকপ্রাপ্ত ভাষা সৈনিক শামসুল হক। এরপর উপস্থিত নেতৃবৃন্দ রং বে রং-এর এক গুচ্ছ বেলুন উড়িয়ে মেলার আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন। এরপর অতিথিবৃন্দ র‌্যালী করে মূল মঞ্চে গিয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। এসময় ভাষা সৈনিক শামসুল হক, ইউএস কংগ্রেসম্যান জেরাল নেদনার, ব্রুকলীন বরো প্রেসিডেন্ট এরিক আদম, সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টিভি’র সিইও আবু তাহের, ৬৬ প্রিসিক্ট-এর কমান্ডার ক্যাপ্টেইন কেনেথ এম কুইক, এটর্নী পেরী ডি সিলভার, এটর্নী মঈন চৌধুরী, ওয়েলকেয়ার-এর সিনিয়র ম্যানেজার সালেহ আহমেদ, চ্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের তিন তিনবারের কমিশনার আঞ্জুমান আরা, মেলা কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, মেলা আয়োজক সংগঠন বাফস’র সভাপতি কাজী আজম ও সাধারণ সম্পাদক মাকসুদুল হক চৌধুরী প্রমুখ। এসময় চট্টগ্রাম সমিতির সভাপতি আব্দুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী নুরুল আমীন, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট শামসুল আলম চৌধুরী, মনির আহমেদ, ইকবাল হায়দার, আব্দুল কাদের চৌধুরী শাহীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
উদ্বোধনী পর্বে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। এরপর স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় আতœত্যাগকারী শহীদ আর যুক্তরাষ্ট্রের ৯/১১-এর সন্ত্রাসী ঘটনায় নিহতদের স্মরণে এক মিনিট নিরবতা পারণ করা হয়।
এছাড়াও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন মেলার গ্র্যান্ড স্পন্সর, বিশিষ্ট রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর মো: আনোয়ার হোসেন। মেলার অনুষ্ঠানমালা উপস্থাপনায় ছিলেন আশরাফুল হাসান বুলবুল, ফাতেমা সাহাব রুমা ও সাহাব উদ্দিন চৌধুরী লিটন।
মেলার উদ্বোধনী পর্বে নেতৃবৃন্দ বলেন, মূলধারার সাথে কমিউনিটির সেতু বন্ধনই মেলার মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। মূলধারার নেতৃবৃন্দ তাদের বক্তব্যে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশীরা সৎ ও কর্মঠ। তারা তাদের মেধা, যোগ্যতা আর কর্ম দক্ষতা দিয়ে আমেরিকান কমিউনিটিতে নিজেদের স্থান সুসংহত করে চলেছে। বক্তারা বলেন, ব্রুকলীন বাংলাদেশীদের কমিউনিটিতে পরিণত হয়েছে।
টাইম টেলিভিশন বৈশাখী মেলা উপলক্ষে রোববার সকাল থেকেই দর্শক-শ্রোতার উপস্থিতি লক্ষ্য করা যায়। বেলা বাড়ার সাথে সাথে দর্শক শ্রোতার সংখ্যাও বাড়তে থাকে। রং বে রং এর পোশষাক পড়ে প্রবাসী বাংলাদেশীরা মেলায় যোগ দিয়ে উৎসবে পরিণত করেন। মেলা উপলক্ষে শতাধিক স্টল বলে। এতে হরেক রকমের খাবর ছাড়াও ছিলো শাড়ী-কাপড়, গহনার স্টল। আরো ছিলো স্বাস্থ্য বিষয়ক একাধিক প্রতিষ্ঠান/সংগঠনের স্টল। ছিলো শিশু-কিশোর-কিশোরীদের বিনোদনের জন্য বিভিন্ন রাইড।
মেলার মুল অনুষ্ঠান সাংস্কৃতিক পর্বে বাংলাদেশের জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী রন্টি দাস ছাড়াও দেশ ও প্রবাসের জনপ্রিয় শিল্পীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করবেন। উল্লেখযোগ্য শিল্পীদের মধ্যে ছিলেন কৃষ্ণা তিথি, চন্দন দত্ত, রোকসানা মির্জা, শাহ মাহবুব, শামীম সিদ্দিকী, চন্দ্রা রায়, হাফিজুর রহমান, খায়রুল বাসার, ডা. শাহনাজ, শাহনাজ সুলতানা, রানু নেওয়াজ, রীনা চৌধুরী, শামসুন্নার লিনা, তৃপ্তি জাহান (কানাডা), হারুন অর রশীদ প্রমুখ। এছাড়া চারুকন্ঠের শিল্পীরা সঙ্গীত ও নৃত্য পরিবেশন করে।
উল্লেখ্য, বাংলাদেশী-আমেরিকান ফ্রেন্ডশীপ সোসাইটি (বাফস) ও ৬৬ প্রিসিঙ্কট কমিউনিটি কাউন্সিলের আয়োজনে গতবছর প্রথম বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এবারের মেলা ছিলো দ্বিতীয় বৈশাখী মেলা। মেলার মূল পর্ব টাইম টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করে।
‘টাইম টেলিভিশন বৈশাখী পথমেলা’র আয়োজনের নেপথ্যে দায়িত্ব পালন করছেন যথাক্রমে কাজী আশরাফ হোসেন নয়ন, সাহাব উদ্দিন চৌধুরী লিটন, জসিম মাহমুদ, আশরাফুল ইসলাম, এম এ লতিফ, মনির আহমদ, এমদাদুল হক কামাল, আবুল কাশেম, ফিরোজ আহমদ, সেলিম চৌধুরী বাবুল, কামাল হোসেন মিঠু, মিনহাজ উদ্দিন বাবর, জাহাঙ্গীর আলম, খালেক আকন্দ, কাউছার চৌধুরী, আসিফুর রহমান, মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ, মোহাম্মদ আবু তালেব, নাজমুল আলম, সেলিম চৌধুরী, আবু তাহের, আব্দুল মান্নান, জাফর ইসলাম, রফিক উদ্দিন, মোতাহার হোসেন, ইকবাল হায়দার প্রমুখ।
র‌্যাফল ড্র ফল: ‘টাইম টেলিভিশন বৈশাখী পথমেলা’র আকর্ষনীয় র‌্যাফল ড্র বিজয়ী নস্বরগুলো হচ্ছে: প্রথম- এ ১০৬৬, দ্বিতীয়- এ ১৫৬১, তৃতীয়- এ ১৪৯৫, চতুর্থ- এ ১৩০৬, পঞ্চম- এ ১২৫৪, ষষ্ঠ- এ ১২৫৫, সপ্তম- এ ১০৮৪, অষ্টম- এ ১৫৯১, নবম- এ ১৩২০ এবং দশম- এ ১০৪৮. (সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা)