নিউইয়র্ক ০৮:০৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির মাতৃভাষা দিবস পালন

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:১০:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬
  • / ৮৩৪ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: নিউইয়র্ক সিটির অন্যতম বাংলাদেশী অধ্যুষিত জ্যামাইকায় স্থায়ী শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার দাবী আর ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে জ্যামাইকায় অমর একুশে, শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির উদ্যোগে স্থানীয় হিলসাইড এভিনিউস্থ এক্সিট রিয়েলটি মিলনায়তনে আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রভৃতি। ২০ ফেব্রুয়ারী শনিবার একুশের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১ মিনিটে ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। প্রথমে ফ্রেন্ডস সোসাইটির পক্ষে সংগঠনের উপদেষ্টা ও কর্মকর্তারা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এপর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বাংলা একাডেমী ইউএসএ, রূপসী চাঁদপুর ফাউন্ডেশন, সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি প্রভৃতি সংগঠন ছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে অনেক প্রবাসী ভাষা শহীদদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ/ফুল প্রদান করেন। ফ্রেন্ডস সোসাইটির একুশের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কনস্যুলেটে নিযুক্ত কনসাল জেনারেল শামীম আহসান।
এর আগে সন্ধ্যায় আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন গোলাম আজম রকি এবং গীতা থেকে পাঠ করেন সহদেব তালুকদার। এরপর ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন এবং বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। ফ্রেন্ডস সোসাইটির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সংগঠনের কর্মকর্তাদের পরিচয় করিয়ে দেন ফ্রেন্ডস সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং-এর প্রতিনিধি আলেকজেন্ডার বেনেট, অ্যাসেম্বীওম্যান এলিসিয়া হেন্স, ফ্রেন্ডস সোসাইটির অন্যতম উপদেষ্টা ও একুশ পালন কমিটির আহ্বায়ক সালে আহমেদ, উপদেষ্টা যথাক্রম নাসির আলী খান পল, ডা. ওয়াজেদ এ খান, এবিএম ওসমান গণি ও ছদরুন নূর, সাবেক সভাপতি বিলাল চৌধুরী, মূলধারার রাজনীতিক দিলীপ নাথ, একুশ পালন কমিটির সদস্য সচিব শহীদুল ইসলাম প্রমুখ। উল্লেখযোগ্য কর্মকর্তাদের মধ্যে উপদেষ্টা এবিএম সালাহউদ্দিন আহমেদ, কার্যকরী পরিষদ সদস্য আব্দুল মান্নাফ তালুকদার, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিষ্ট জীবন বিশ^াস, উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের বিভিন্ন পর্ব সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সহ সভাপতি এএফ মিসবাহউজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আজাদ ভূঁইয়া ও যুগ্ম সম্পাদক ইফজাল আহমেদ চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে ‘একুশের চেতনায় নতুন প্রজন্ম’ শীর্ষক আলোচনায় অংশ নেন ঢাকাস্থ নটরডম কলেজের সাবেক অধ্যাপিকা হুসনে আরা বেগম, আইঅন বাংলাদেশ টিভি’র পরিচালক রিমন ইসলাম ও এডভোকেট আব্দুর রশীদ। এই পর্ব সঞ্চালনা করেন নাসির আলী খান পল। এছাড়াও ছিলো খান শওকতের পরিচালনায় নবাব সিরাজউদ্দৌলা নাটক মঞ্চায়ন।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন জনপ্রিয় শিল্পী চন্দন চৌধুরী, তাজ, প্রমি ও সোমা রহমান।
অমর একুশে উপলক্ষে জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি একটি সংকলন প্রকাশ করে। এটি সম্পাদনা করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি এএফ মিসবাহউজ্জামান।
জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির একুশের অনুষ্ঠান আয়োজনে বিশেষ সহযোগিতায় ছিলেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও একুশ পালন কমিটির নির্বাহী যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা মনির হোসেন, প্রধান সমন্বয়কারী শেখ আনসার আলী (শহীদ মিনার নির্মাতা), মনির হোসেন, আনোয়ার হোসেন, কবির হোসেন মুন্সী।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির মাতৃভাষা দিবস পালন

প্রকাশের সময় : ০৮:১০:১৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

নিউইয়র্ক: নিউইয়র্ক সিটির অন্যতম বাংলাদেশী অধ্যুষিত জ্যামাইকায় স্থায়ী শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠার দাবী আর ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানানোর মধ্য দিয়ে জ্যামাইকায় অমর একুশে, শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির উদ্যোগে স্থানীয় হিলসাইড এভিনিউস্থ এক্সিট রিয়েলটি মিলনায়তনে আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রভৃতি। ২০ ফেব্রুয়ারী শনিবার একুশের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১ মিনিটে ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়। প্রথমে ফ্রেন্ডস সোসাইটির পক্ষে সংগঠনের উপদেষ্টা ও কর্মকর্তারা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এপর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, বাংলা একাডেমী ইউএসএ, রূপসী চাঁদপুর ফাউন্ডেশন, সুনামগঞ্জ জেলা সমিতি প্রভৃতি সংগঠন ছাড়াও ব্যক্তিগতভাবে অনেক প্রবাসী ভাষা শহীদদের স্মরণে পুষ্পস্তবক অর্পণ/ফুল প্রদান করেন। ফ্রেন্ডস সোসাইটির একুশের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ কনস্যুলেটে নিযুক্ত কনসাল জেনারেল শামীম আহসান।
এর আগে সন্ধ্যায় আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন গোলাম আজম রকি এবং গীতা থেকে পাঠ করেন সহদেব তালুকদার। এরপর ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন এবং বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রে জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশন করা হয়। ফ্রেন্ডস সোসাইটির সভাপতি সাইফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সংগঠনের কর্মকর্তাদের পরিচয় করিয়ে দেন ফ্রেন্ডস সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং-এর প্রতিনিধি আলেকজেন্ডার বেনেট, অ্যাসেম্বীওম্যান এলিসিয়া হেন্স, ফ্রেন্ডস সোসাইটির অন্যতম উপদেষ্টা ও একুশ পালন কমিটির আহ্বায়ক সালে আহমেদ, উপদেষ্টা যথাক্রম নাসির আলী খান পল, ডা. ওয়াজেদ এ খান, এবিএম ওসমান গণি ও ছদরুন নূর, সাবেক সভাপতি বিলাল চৌধুরী, মূলধারার রাজনীতিক দিলীপ নাথ, একুশ পালন কমিটির সদস্য সচিব শহীদুল ইসলাম প্রমুখ। উল্লেখযোগ্য কর্মকর্তাদের মধ্যে উপদেষ্টা এবিএম সালাহউদ্দিন আহমেদ, কার্যকরী পরিষদ সদস্য আব্দুল মান্নাফ তালুকদার, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিষ্ট জীবন বিশ^াস, উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানের বিভিন্ন পর্ব সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সহ সভাপতি এএফ মিসবাহউজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আজাদ ভূঁইয়া ও যুগ্ম সম্পাদক ইফজাল আহমেদ চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে ‘একুশের চেতনায় নতুন প্রজন্ম’ শীর্ষক আলোচনায় অংশ নেন ঢাকাস্থ নটরডম কলেজের সাবেক অধ্যাপিকা হুসনে আরা বেগম, আইঅন বাংলাদেশ টিভি’র পরিচালক রিমন ইসলাম ও এডভোকেট আব্দুর রশীদ। এই পর্ব সঞ্চালনা করেন নাসির আলী খান পল। এছাড়াও ছিলো খান শওকতের পরিচালনায় নবাব সিরাজউদ্দৌলা নাটক মঞ্চায়ন।
সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন জনপ্রিয় শিল্পী চন্দন চৌধুরী, তাজ, প্রমি ও সোমা রহমান।
অমর একুশে উপলক্ষে জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি একটি সংকলন প্রকাশ করে। এটি সম্পাদনা করেন সংগঠনের সহ-সভাপতি এএফ মিসবাহউজ্জামান।
জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটির একুশের অনুষ্ঠান আয়োজনে বিশেষ সহযোগিতায় ছিলেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি ও একুশ পালন কমিটির নির্বাহী যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা মনির হোসেন, প্রধান সমন্বয়কারী শেখ আনসার আলী (শহীদ মিনার নির্মাতা), মনির হোসেন, আনোয়ার হোসেন, কবির হোসেন মুন্সী।