নিউইয়র্ক ১১:২১ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

সত্য প্রকাশে ভয় পেলে চলবে না, মিডিয়ার মাালিক ও সাংবাদিকদের সাহসী হতে হবে

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৬:২০:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুন ২০১৫
  • / ৯৩০ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, সাংবাদিকদের সত্য কথা লিখতে হবে, যারা সত্য কথা না লিখবেন না তাদের সংবাদপত্র ব্যবসায় আসা উচিৎ নয়। তিনি বলেন, নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও প্রবাসে বস্তুনিষ্ট সংবাদ পরিবেশনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন প্রবাসী সাংবাদিকরা। তাঁদের পরিশ্রমের ফলেই এখানে অনেকগুলো পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। যা কমিউনিটিতে রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। প্রবাসে বাংলাদেশী কমিউনিটির প্রসারে সাংবাদিকদের অবদান সবচেয়ে বেশী। তিনি বলেন, আজ অনেকই পত্রিকার মালিক। আমি বলবো সত্য প্রকাশে ভয় পেলে চলবে না, মিডিয়ার মাালিক ও সাংবাদিকদের সাহসী হতে হবে।
নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’র উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার মাহফিল পূর্ব আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মোমেন উপরোক্ত কথা বলেন। সিটির জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশ প্লাজা মিলনায়তনে গত ২২ জুন সোমবার সন্ধ্যায় এই ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
NYB Press Club_Sihab U Kisluনিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’র সভাপতি এবং সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টেলিভিশন-এর সিইও আবু তাহেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের অন্যতম উপদেষ্টা ও সাপ্তাহিক আজকাল-এর সম্পাদক মনজুর আহমদ, সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি ডা. মোহাম্মদ হামিদুজ্জামান, নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাবেক সভাপতি এবং সাপ্তাহিক দেশবাংলা ও বাংলা টাইমস-এর প্রকাশক ডা. চৌধুরী সারোয়ারুল হাসান, ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাপ্তাহিক বাংলা টাইমস সম্পাদক তাসের মাহমুদ, সহ-সভাপতি ও আই অন বাংলাদেশ টিভির পরিচালক রিমন ইসলাম, নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ও সময় টিভির যুক্তরাষ্ট্র ব্যুরো প্রধান শিহাব উদ্দিন কিসলু, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম ও বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্্ক নিউইয়র্ক’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহীম হাওলাদার। এর আগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইফতার মাহফিল আয়োজন কমিটির আহ্বায়ক ও প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শেখ সিরাজ ইসলাম। ইফতার মাহফিল পরিচালনা করেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবিএম সালাহউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এবং ইফতার গ্রহণের পূর্বে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন ক্লাবের নতুন সদস্য রশীদ আহমদ।
NYB Press Club_Munazatঅনুষ্ঠানে ক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও উপদেষ্টা, বাংলাদেশের খ্যাতিমান সাংবাদিক মরহুম ফাজলে রশীদকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্বরণ করা হয়। খবর ইউএনএ’র।
অনুষ্ঠানে ড. মোমেন বলেন, আমিও একসময় লেখা-লেখি করতাম। সাংবাদিকতা অনেক কষ্টের পেশা। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলার পাশাপাশি অনেক সীমাবদ্ধতাও রয়েছে। নিউইয়র্কে যখন আমি প্রথম আসি, তখন আর আজকের চিত্র অনেক পাল্টে গেছে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বড়েছে এখানকার কমিউনিটি। সেই সাথে একসঙ্গে অনেকগুলো পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। বর্তমানে ‘টাইম টিভি’সহ কয়েকটি চ্যানেলও এখান থেকে সম্প্রচারিত হচ্ছে। যা প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য অনেক বড় অর্জন। তিনি বলেন, সংবাদপত্র হচ্ছে সমাজের দর্পণ। সমাজ বদলের হাতিয়ার হিসেবে সাংবদিকদের লেখনীতে সঠিত তথ্য ও চিত্র তুলে ধরতে সহবে। যা সমাজকে সঠিক দিক নির্দেশনা দেবে।
মনজুর আহমদ বলেন, নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব এগিয়ে চলছে, এগিয়ে যাচ্ছে এটি আশার কথা। ক্লাবের বর্তমান নেতৃত্ব সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করছে। সবাই মিলে এই ক্লাবক আরো গতিশীল করার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।
ডা. মোহাম্মদ হামিদুজ্জামান বলেন, আমি যখন সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকা প্রকাশ করি তখন মাত্র চারটি পত্রিকা ছিলো। আজ কমিউনিটিতে অনেক পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে, টিভি এসেছে। এই মিডিয়াগুলোকে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে কমিউনিটিকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। তিনি প্রেসক্লাবের ইফতার মাহফিল আয়োজনের প্রশংসা করেন।
মাহবুবুর রহমান বলেন, শারীরিক অসুস্থ্যতার কারণে আমি ক্লাবের কর্মকান্ড থেকে দূরে থাকলেও উপদেষ্টা হিসেবে ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত রাখায় তিনি কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকান করেন এবং আজীবন ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।
ডা. চৌধুরী সারোয়ারুল হাসান বলেন, নানা প্রতিকূলতা আর বিরোধীতার কথা জেনেই আমরা প্রেসক্লাব গঠন করেছিলাম। ক্লাব চলছে, চলবেই। তিনি সবাইকে আরো ঐক্যবদ্ধ হয়ে কøাবের কর্মকান্ড বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করেন।
আব্দুর রহীম হাওলাদার নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত সকল সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানান এবং বস্তুনিষ্ঠ খবর পরিবেশনের মাধ্যমে কমিউনিটিকে আরো এগিয়ে নেয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, কমিউনিটির গণমাধ্যমের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের কারনেই প্রবাসের সামাজিক সংগঠনগুলো ভালো কাজ করছে।
NYB Press Club_Odeanceইফতার মাহফিলে ক্লাবের অন্যতম উপদেষ্টা ও কলামিষ্ট মঈনুদ্দীন নাসের, বেগম সেলিনা মোমেন ও বিশিষ্ট অভিনেত্রী রেখা আহমেদ ছাড়াও সাপ্তাহিক জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার, প্রথম আলো’র নিউইয়র্ক প্রতিনিধি ইব্রাহীন চৌধুরী খোকন, সাপ্তাহিক ঠিকানা’র সাংবাদিক জাভেদ খসরু, সাপ্তাহিক প্রবাস সম্পাদক মোহাম্মদ সাইদ, টাইম টেলিভিশনের বার্তা প্রধান আবিদুর রহিম, বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক এবিএম সালেহউদ্দিন, একুশে টিভি ইউএস’র টেরিটরি কর্মকর্তা ফখরুল আলম লিটন ও যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি ইমরান আনসারী, ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ও সাপ্তাহিক দেশ বাংলা’র নির্বাহী সম্পাদক আলমগীর হোসেন, ক্লাব সদস্য এনামুর রেজা দিপু, টাইম টিভি’র সৈয়দ ইলিয়াস খসরু, আলমগীর অপু, জাইমা ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

সত্য প্রকাশে ভয় পেলে চলবে না, মিডিয়ার মাালিক ও সাংবাদিকদের সাহসী হতে হবে

প্রকাশের সময় : ০৬:২০:৪৭ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৪ জুন ২০১৫

নিউইয়র্ক: জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত ড. একে আব্দুল মোমেন বলেছেন, সাংবাদিকদের সত্য কথা লিখতে হবে, যারা সত্য কথা না লিখবেন না তাদের সংবাদপত্র ব্যবসায় আসা উচিৎ নয়। তিনি বলেন, নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও প্রবাসে বস্তুনিষ্ট সংবাদ পরিবেশনে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন প্রবাসী সাংবাদিকরা। তাঁদের পরিশ্রমের ফলেই এখানে অনেকগুলো পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। যা কমিউনিটিতে রাখছে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। প্রবাসে বাংলাদেশী কমিউনিটির প্রসারে সাংবাদিকদের অবদান সবচেয়ে বেশী। তিনি বলেন, আজ অনেকই পত্রিকার মালিক। আমি বলবো সত্য প্রকাশে ভয় পেলে চলবে না, মিডিয়ার মাালিক ও সাংবাদিকদের সাহসী হতে হবে।
নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’র উদ্যোগে আয়োজিত ইফতার মাহফিল পূর্ব আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. মোমেন উপরোক্ত কথা বলেন। সিটির জ্যাকসন হাইটস বাংলাদেশ প্লাজা মিলনায়তনে গত ২২ জুন সোমবার সন্ধ্যায় এই ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
NYB Press Club_Sihab U Kisluনিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব’র সভাপতি এবং সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকার সম্পাদক ও টাইম টেলিভিশন-এর সিইও আবু তাহেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ইফতার মাহফিলে সংক্ষিপ্ত আলোচনায় বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের অন্যতম উপদেষ্টা ও সাপ্তাহিক আজকাল-এর সম্পাদক মনজুর আহমদ, সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকার সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি ডা. মোহাম্মদ হামিদুজ্জামান, নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাবেক সভাপতি এবং সাপ্তাহিক দেশবাংলা ও বাংলা টাইমস-এর প্রকাশক ডা. চৌধুরী সারোয়ারুল হাসান, ক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সাপ্তাহিক বাংলা টাইমস সম্পাদক তাসের মাহমুদ, সহ-সভাপতি ও আই অন বাংলাদেশ টিভির পরিচালক রিমন ইসলাম, নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারন সম্পাদক ও সময় টিভির যুক্তরাষ্ট্র ব্যুরো প্রধান শিহাব উদ্দিন কিসলু, ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাবেক সাধারণ সম্পাদক মনোয়ারুল ইসলাম ও বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্্ক নিউইয়র্ক’র সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহীম হাওলাদার। এর আগে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ইফতার মাহফিল আয়োজন কমিটির আহ্বায়ক ও প্রেসক্লাবের কোষাধ্যক্ষ শেখ সিরাজ ইসলাম। ইফতার মাহফিল পরিচালনা করেন প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এবিএম সালাহউদ্দিন আহমেদ। অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এবং ইফতার গ্রহণের পূর্বে বিশেষ দোয়া পরিচালনা করেন ক্লাবের নতুন সদস্য রশীদ আহমদ।
NYB Press Club_Munazatঅনুষ্ঠানে ক্লাবের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা ও উপদেষ্টা, বাংলাদেশের খ্যাতিমান সাংবাদিক মরহুম ফাজলে রশীদকে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্বরণ করা হয়। খবর ইউএনএ’র।
অনুষ্ঠানে ড. মোমেন বলেন, আমিও একসময় লেখা-লেখি করতাম। সাংবাদিকতা অনেক কষ্টের পেশা। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনে নানা প্রতিকূলতা মোকাবেলার পাশাপাশি অনেক সীমাবদ্ধতাও রয়েছে। নিউইয়র্কে যখন আমি প্রথম আসি, তখন আর আজকের চিত্র অনেক পাল্টে গেছে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বড়েছে এখানকার কমিউনিটি। সেই সাথে একসঙ্গে অনেকগুলো পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। বর্তমানে ‘টাইম টিভি’সহ কয়েকটি চ্যানেলও এখান থেকে সম্প্রচারিত হচ্ছে। যা প্রবাসী বাংলাদেশীদের জন্য অনেক বড় অর্জন। তিনি বলেন, সংবাদপত্র হচ্ছে সমাজের দর্পণ। সমাজ বদলের হাতিয়ার হিসেবে সাংবদিকদের লেখনীতে সঠিত তথ্য ও চিত্র তুলে ধরতে সহবে। যা সমাজকে সঠিক দিক নির্দেশনা দেবে।
মনজুর আহমদ বলেন, নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব এগিয়ে চলছে, এগিয়ে যাচ্ছে এটি আশার কথা। ক্লাবের বর্তমান নেতৃত্ব সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করছে। সবাই মিলে এই ক্লাবক আরো গতিশীল করার উপর তিনি গুরুত্বারোপ করেন।
ডা. মোহাম্মদ হামিদুজ্জামান বলেন, আমি যখন সাপ্তাহিক বাংলাদেশ পত্রিকা প্রকাশ করি তখন মাত্র চারটি পত্রিকা ছিলো। আজ কমিউনিটিতে অনেক পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে, টিভি এসেছে। এই মিডিয়াগুলোকে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে কমিউনিটিকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে হবে। তিনি প্রেসক্লাবের ইফতার মাহফিল আয়োজনের প্রশংসা করেন।
মাহবুবুর রহমান বলেন, শারীরিক অসুস্থ্যতার কারণে আমি ক্লাবের কর্মকান্ড থেকে দূরে থাকলেও উপদেষ্টা হিসেবে ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত রাখায় তিনি কর্মকর্তাদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকান করেন এবং আজীবন ক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত থাকার প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।
ডা. চৌধুরী সারোয়ারুল হাসান বলেন, নানা প্রতিকূলতা আর বিরোধীতার কথা জেনেই আমরা প্রেসক্লাব গঠন করেছিলাম। ক্লাব চলছে, চলবেই। তিনি সবাইকে আরো ঐক্যবদ্ধ হয়ে কøাবের কর্মকান্ড বৃদ্ধির উপর গুরুত্বারোপ করেন।
আব্দুর রহীম হাওলাদার নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সাথে সম্পৃক্ত সকল সাংবাদিকদের ধন্যবাদ জানান এবং বস্তুনিষ্ঠ খবর পরিবেশনের মাধ্যমে কমিউনিটিকে আরো এগিয়ে নেয়ার উপর গুরুত্বারোপ করেন। তিনি বলেন, কমিউনিটির গণমাধ্যমের বস্তুনিষ্ঠ সংবাদের কারনেই প্রবাসের সামাজিক সংগঠনগুলো ভালো কাজ করছে।
NYB Press Club_Odeanceইফতার মাহফিলে ক্লাবের অন্যতম উপদেষ্টা ও কলামিষ্ট মঈনুদ্দীন নাসের, বেগম সেলিনা মোমেন ও বিশিষ্ট অভিনেত্রী রেখা আহমেদ ছাড়াও সাপ্তাহিক জন্মভূমি সম্পাদক রতন তালুকদার, প্রথম আলো’র নিউইয়র্ক প্রতিনিধি ইব্রাহীন চৌধুরী খোকন, সাপ্তাহিক ঠিকানা’র সাংবাদিক জাভেদ খসরু, সাপ্তাহিক প্রবাস সম্পাদক মোহাম্মদ সাইদ, টাইম টেলিভিশনের বার্তা প্রধান আবিদুর রহিম, বিশিষ্ট লেখক ও সাংবাদিক এবিএম সালেহউদ্দিন, একুশে টিভি ইউএস’র টেরিটরি কর্মকর্তা ফখরুল আলম লিটন ও যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি ইমরান আনসারী, ক্লাবের যুগ্ম সম্পাদক ও সাপ্তাহিক দেশ বাংলা’র নির্বাহী সম্পাদক আলমগীর হোসেন, ক্লাব সদস্য এনামুর রেজা দিপু, টাইম টিভি’র সৈয়দ ইলিয়াস খসরু, আলমগীর অপু, জাইমা ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।