নিউইয়র্ক ০৬:৫৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

নিউইয়র্কের প্রেসনোট

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ১২:০০:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৪
  • / ৭৮০ বার পঠিত

নিউইয়র্কের বাংলা মিডিয়াগুলোতে কমিউনিটির খবরাখবরের পরিমান বৃদ্ধি পেলেও অধিকাংশ মিডিয়ায় ‘প্রেস বিজ্ঞপ্তি’ বা একই খবর বেশী পরিলক্ষিত হচ্ছে। হাতে গোনা ৪/৫টি মিডিয়া ছাড়া অথিকাংশ মিডিয়ায় নিজস্ব রিপোর্টের পরিমান কমে যাচ্ছে। আবার দেখা যাচ্ছে কোন কোন মিডিয়ায় নিউইয়র্কের খবর ঢাকা হয়ে ‘ঢাকা ডেস্ক’ বরাতে প্রকাশিত হচ্ছে। বিষয়টি হাস্যকরই বটে! এমনই মন্তব্য সচেতন পাঠকদের। তাদের প্রশ্ন নিউইয়র্কের খবর বা যুক্তরাষ্ট্রের খবর অবশ্যই নিজস্ব রিপোর্ট হওয়া উচিৎ, সেটি ঢাকা থেকে আসবে কেন? আবার দেখা যাচ্ছে নিউইয়র্কের কোন খবর নিউইয়র্কের বাংলা মিডিয়ায় ‘নিউইয়র্ক থেকে…..’ বরাতে প্রকাশিত হচ্ছে। এসব খবর প্রকাশে যথাযথ সম্পাদনা নেই। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট সকল মিডিয়া কর্তৃপক্ষের ভেবে দেখা উচিৎ নয় কি?
সম্প্রতি নিউইয়র্ক সফরকারী ঢাকার দৈনিক কালের কন্ঠ সম্পাদক ও দেশের জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, দৈনিক ইত্তেফাক-এর নির্বাহী সম্পাদক শামীম রেজা নূর ও খ্যাতিমান ফটো সাংবাদিক লুৎফর রহমান বিনু-কে নিয়ে নিউইয়র্কে বাংলাদেশী সাংবাদিকদের দু’টি প্রেসক্লাবের উদ্যোগে একদিনের ব্যবধানে পৃথক দুটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আমেরিকা বাংলাদেশ প্রেসক্লাব আয়োজিত ‘বাংলাদেশের সাহিত্য ও সংবাদপত্র’ শীর্ষক সেমিনারে ইমদাদুল হক মিলন ও নঈম নিজাম যোগ দেন। অপরদিকে নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব আয়োজিত মত বিনিময় সভায়  ইমদাদুল হক মিলন, নঈম নিজাম, শামীম রেজা নূর ও লুৎফর রহমান বিনু যোগ দেন। উভয় অনুষ্টানের খবর গুরুত্বের সাথে স্থানীয় ও ঢাকার কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় এবং কোন কোন টিভি চ্যানেলেও প্রচারিত হয়। কিন্তু নিউইয়র্কের সাপ্তাহিক বাঙালী-তে ‘ইমদাদুল হক মিলন নঈম নিজাম ও শাহীন নূরকে সংবর্ধনা’ শিরোনামে প্রকাশিত দুই প্রেসক্লাবের দু’টি খবর একত্রে পরিবেশন করতে গিয়ে খবরটি পাঠক মহলে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে। খবর দুটি একতেও না দিয়ে পৃথক পৃথক ভাবে পরিবেশিত হলে এই বিভ্রান্তি হতো না। তাছাড়া সঠিকভাবে সম্পাদনা না হওয়ায় শিরোনামের সাথে খবর দু’টির সামঞ্জস্যও নেই। আর অনুষ্ঠান দু’টিতে কাউকে সংবর্ধিত করা হয়নি। একটিতে সেমিনার হয়েছে অপরটিতে মতবিনিময় হয়েছে। বাঙালী’র মতো ‘এডিটেড’ পত্রিকায় এমন সম্পাদনা কাম্য নয়।
বাংলাদেশ সোসাইটির ২৬ অক্টোবরের নির্বাচন নিয়ে নিউইয়র্কের টাইম টেলিভিশন গত বুধবার ‘টাইম ডিবেট’ শিরোনামে একটি লাইভ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। এতে সোসাইটির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি দুই প্যানেলের অর্থাৎ ‘কামাল-সানী’ ও ‘কুনু-রহীম’ প্যানেলের শীর্ষ চার প্রার্থী যথাক্রমে কামাল আহমেদ, আজমল হোসেন কুনু, আব্দুর রহীম হাওলাদার ও মোল্লা জে সানী অংশ নেন। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালক ছিলেন টাইম টেলিভিশনের সিইও ও সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা’র সম্পাদক আবু তাহের। অনুষ্ঠানটি আকর্ষনীয় হলেও সার্বিক অনুষ্ঠান দর্শক-শ্রোতাদের হতাশ করেছে। ‘টাইম ডিবেট’ অর্থাৎ সোসাইটির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি দুই প্যানেলের দুই সভাপতি পদপ্রার্থী ও দুই সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীর বিতর্কে তাদের বক্তব্যে বা প্রশ্নোত্তরে কোন বিতর্ক খুজে পাওয়া গেলো। অনুষ্ঠানটি একটি সাদামাঠা অনুষ্ঠান হয়েছে বলে সচেতন পাঠকরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তাছাড়া প্রার্থীদের জন্য প্রশ্নগুলোও ছিলো দুর্বল। যেকারণে অনুষ্ঠাটিতে ‘ডিবেটে’ পরিণত হয়নি।
(সাপ্তাহিক পরিচয়)

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

নিউইয়র্কের প্রেসনোট

প্রকাশের সময় : ১২:০০:৪৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৩১ অক্টোবর ২০১৪

নিউইয়র্কের বাংলা মিডিয়াগুলোতে কমিউনিটির খবরাখবরের পরিমান বৃদ্ধি পেলেও অধিকাংশ মিডিয়ায় ‘প্রেস বিজ্ঞপ্তি’ বা একই খবর বেশী পরিলক্ষিত হচ্ছে। হাতে গোনা ৪/৫টি মিডিয়া ছাড়া অথিকাংশ মিডিয়ায় নিজস্ব রিপোর্টের পরিমান কমে যাচ্ছে। আবার দেখা যাচ্ছে কোন কোন মিডিয়ায় নিউইয়র্কের খবর ঢাকা হয়ে ‘ঢাকা ডেস্ক’ বরাতে প্রকাশিত হচ্ছে। বিষয়টি হাস্যকরই বটে! এমনই মন্তব্য সচেতন পাঠকদের। তাদের প্রশ্ন নিউইয়র্কের খবর বা যুক্তরাষ্ট্রের খবর অবশ্যই নিজস্ব রিপোর্ট হওয়া উচিৎ, সেটি ঢাকা থেকে আসবে কেন? আবার দেখা যাচ্ছে নিউইয়র্কের কোন খবর নিউইয়র্কের বাংলা মিডিয়ায় ‘নিউইয়র্ক থেকে…..’ বরাতে প্রকাশিত হচ্ছে। এসব খবর প্রকাশে যথাযথ সম্পাদনা নেই। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্ট সকল মিডিয়া কর্তৃপক্ষের ভেবে দেখা উচিৎ নয় কি?
সম্প্রতি নিউইয়র্ক সফরকারী ঢাকার দৈনিক কালের কন্ঠ সম্পাদক ও দেশের জনপ্রিয় কথা সাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নঈম নিজাম, দৈনিক ইত্তেফাক-এর নির্বাহী সম্পাদক শামীম রেজা নূর ও খ্যাতিমান ফটো সাংবাদিক লুৎফর রহমান বিনু-কে নিয়ে নিউইয়র্কে বাংলাদেশী সাংবাদিকদের দু’টি প্রেসক্লাবের উদ্যোগে একদিনের ব্যবধানে পৃথক দুটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। আমেরিকা বাংলাদেশ প্রেসক্লাব আয়োজিত ‘বাংলাদেশের সাহিত্য ও সংবাদপত্র’ শীর্ষক সেমিনারে ইমদাদুল হক মিলন ও নঈম নিজাম যোগ দেন। অপরদিকে নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাব আয়োজিত মত বিনিময় সভায়  ইমদাদুল হক মিলন, নঈম নিজাম, শামীম রেজা নূর ও লুৎফর রহমান বিনু যোগ দেন। উভয় অনুষ্টানের খবর গুরুত্বের সাথে স্থানীয় ও ঢাকার কয়েকটি জাতীয় পত্রিকায় এবং কোন কোন টিভি চ্যানেলেও প্রচারিত হয়। কিন্তু নিউইয়র্কের সাপ্তাহিক বাঙালী-তে ‘ইমদাদুল হক মিলন নঈম নিজাম ও শাহীন নূরকে সংবর্ধনা’ শিরোনামে প্রকাশিত দুই প্রেসক্লাবের দু’টি খবর একত্রে পরিবেশন করতে গিয়ে খবরটি পাঠক মহলে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করেছে। খবর দুটি একতেও না দিয়ে পৃথক পৃথক ভাবে পরিবেশিত হলে এই বিভ্রান্তি হতো না। তাছাড়া সঠিকভাবে সম্পাদনা না হওয়ায় শিরোনামের সাথে খবর দু’টির সামঞ্জস্যও নেই। আর অনুষ্ঠান দু’টিতে কাউকে সংবর্ধিত করা হয়নি। একটিতে সেমিনার হয়েছে অপরটিতে মতবিনিময় হয়েছে। বাঙালী’র মতো ‘এডিটেড’ পত্রিকায় এমন সম্পাদনা কাম্য নয়।
বাংলাদেশ সোসাইটির ২৬ অক্টোবরের নির্বাচন নিয়ে নিউইয়র্কের টাইম টেলিভিশন গত বুধবার ‘টাইম ডিবেট’ শিরোনামে একটি লাইভ অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। এতে সোসাইটির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি দুই প্যানেলের অর্থাৎ ‘কামাল-সানী’ ও ‘কুনু-রহীম’ প্যানেলের শীর্ষ চার প্রার্থী যথাক্রমে কামাল আহমেদ, আজমল হোসেন কুনু, আব্দুর রহীম হাওলাদার ও মোল্লা জে সানী অংশ নেন। অনুষ্ঠানটির সঞ্চালক ছিলেন টাইম টেলিভিশনের সিইও ও সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা’র সম্পাদক আবু তাহের। অনুষ্ঠানটি আকর্ষনীয় হলেও সার্বিক অনুষ্ঠান দর্শক-শ্রোতাদের হতাশ করেছে। ‘টাইম ডিবেট’ অর্থাৎ সোসাইটির নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বি দুই প্যানেলের দুই সভাপতি পদপ্রার্থী ও দুই সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থীর বিতর্কে তাদের বক্তব্যে বা প্রশ্নোত্তরে কোন বিতর্ক খুজে পাওয়া গেলো। অনুষ্ঠানটি একটি সাদামাঠা অনুষ্ঠান হয়েছে বলে সচেতন পাঠকরা অভিমত ব্যক্ত করেছেন। তাছাড়া প্রার্থীদের জন্য প্রশ্নগুলোও ছিলো দুর্বল। যেকারণে অনুষ্ঠাটিতে ‘ডিবেটে’ পরিণত হয়নি।
(সাপ্তাহিক পরিচয়)