নিউইয়র্ক ১২:৩৬ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

এক স্লিপ

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:১৫:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬
  • / ৯৮২ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: ৫২’র একুশ ফেব্রুয়ারী, মহান শহীদ দিবস এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দেশে তো বটেই প্রবাসেও ব্যাপক আয়োজনে দিবসটি পালিত হচ্ছে। চলতি বছরও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বায়ান্নতে মাতৃভাষা বাংলা মর্যাদা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে প্রতিষ্ঠিত শহীদ দিবস ২০০০ সাল থেকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে। সেই ভাষা আন্দোলনের ত্যাগ, শোক, আবেগ-অনুভূতি এখন উৎসবমূখর পরিবেশে রূপ নিয়েছে। একুশের শোক পরিণত হয়েছে শক্তিতে। একুশের শোক বলি আর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাই বলি ‘অমর একুশ’-এর অনুষ্ঠানে মাঝে মধ্যে এমন কিছু ঘটনা দেখা যায় যা বিব্রত করার পাশাপাশি নানা প্রশ্নেরও জন্ম দেয়। ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ‘জুতা পায়ে শ্রদ্ধা নিবেদন’ করা না করার ঘটনা থেকে দেশে-বিদেশে একুশের অনুষ্ঠানে নানা ঘটনা ঘটেই চলেছে। চলতি বছর প্রথমবারের মতো ঢাকার সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে নিউইয়র্কে জাতিসংঘ ভবনের সামনে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে (বাংলাদেশ সময় একুশের প্রথম প্রহর রাত ১২টা ০১ মিনিট আর নিউইয়র্ক সময় বেলা ০১টা ০১ মিনিট) প্রবাসী বাংলাদেশীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। দেখা গেলো এখানে শ্রদ্ধা জানানোর পর ফিরে যাওয়ার সময় কেউ কেউ তাদের দেয়া পুষ্পস্তবক গাড়ীতে তুলে নিলেন। কারণ নিউইয়র্কের সময় একুশের প্রথম প্রহরে আয়োজিত অন্য কোন অনুষ্ঠানে সেই একই স্তবক অর্পণ করা। বিষয়টি নজরে আনলেন একজন সিনিয়র সাংবাদিক। তিনি প্রশ্ন রাখলেন এভাবে শ্রদ্ধা নিবেদনের কোন অর্থ হয়! আর পৃথক কোন স্থানে যদি শ্রদ্ধা জানাতেই হয় তহেলে একটি তোড়া (পুষ্পস্তবক) কিনতে/তৈরীতে ২৫-৫০ ডলারের বেশী ব্যয় হওয়ার কথা নয়।
আরেক অনুষ্ঠানে দেখা গেলো উৎসবমূখর পরিবেশ। আলোচনা আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে শুরু হলো পুষ্পস্তবক অর্পণ। কেউ কেউ অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার পর সুযোগ বুঝে অন্য কেউ শহীদ বেদী থেকে ফুল নিয়ে নিজেরাই শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন। এমন কর্মকান্ডে এক সহকর্মী কানে কানে জানতে চাইলেন ‘এমন শ্রদ্ধার কোন মানে আছে?’। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্টদের সর্বাধিক গুরুত্বের সাথে ভেবে দেখা দরকার। ২১ ফেব্রুয়ারী’২০১৬ (সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা)

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

এক স্লিপ

প্রকাশের সময় : ০৮:১৫:৫৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

নিউইয়র্ক: ৫২’র একুশ ফেব্রুয়ারী, মহান শহীদ দিবস এখন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। দেশে তো বটেই প্রবাসেও ব্যাপক আয়োজনে দিবসটি পালিত হচ্ছে। চলতি বছরও এর ব্যতিক্রম হয়নি। বায়ান্নতে মাতৃভাষা বাংলা মর্যাদা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনকে কেন্দ্র করে প্রতিষ্ঠিত শহীদ দিবস ২০০০ সাল থেকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে বিশ্বব্যাপী পালিত হচ্ছে। সেই ভাষা আন্দোলনের ত্যাগ, শোক, আবেগ-অনুভূতি এখন উৎসবমূখর পরিবেশে রূপ নিয়েছে। একুশের শোক পরিণত হয়েছে শক্তিতে। একুশের শোক বলি আর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধাই বলি ‘অমর একুশ’-এর অনুষ্ঠানে মাঝে মধ্যে এমন কিছু ঘটনা দেখা যায় যা বিব্রত করার পাশাপাশি নানা প্রশ্নেরও জন্ম দেয়। ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ‘জুতা পায়ে শ্রদ্ধা নিবেদন’ করা না করার ঘটনা থেকে দেশে-বিদেশে একুশের অনুষ্ঠানে নানা ঘটনা ঘটেই চলেছে। চলতি বছর প্রথমবারের মতো ঢাকার সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে নিউইয়র্কে জাতিসংঘ ভবনের সামনে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে (বাংলাদেশ সময় একুশের প্রথম প্রহর রাত ১২টা ০১ মিনিট আর নিউইয়র্ক সময় বেলা ০১টা ০১ মিনিট) প্রবাসী বাংলাদেশীরা পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। দেখা গেলো এখানে শ্রদ্ধা জানানোর পর ফিরে যাওয়ার সময় কেউ কেউ তাদের দেয়া পুষ্পস্তবক গাড়ীতে তুলে নিলেন। কারণ নিউইয়র্কের সময় একুশের প্রথম প্রহরে আয়োজিত অন্য কোন অনুষ্ঠানে সেই একই স্তবক অর্পণ করা। বিষয়টি নজরে আনলেন একজন সিনিয়র সাংবাদিক। তিনি প্রশ্ন রাখলেন এভাবে শ্রদ্ধা নিবেদনের কোন অর্থ হয়! আর পৃথক কোন স্থানে যদি শ্রদ্ধা জানাতেই হয় তহেলে একটি তোড়া (পুষ্পস্তবক) কিনতে/তৈরীতে ২৫-৫০ ডলারের বেশী ব্যয় হওয়ার কথা নয়।
আরেক অনুষ্ঠানে দেখা গেলো উৎসবমূখর পরিবেশ। আলোচনা আর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে শুরু হলো পুষ্পস্তবক অর্পণ। কেউ কেউ অস্থায়ী শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার পর সুযোগ বুঝে অন্য কেউ শহীদ বেদী থেকে ফুল নিয়ে নিজেরাই শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন। এমন কর্মকান্ডে এক সহকর্মী কানে কানে জানতে চাইলেন ‘এমন শ্রদ্ধার কোন মানে আছে?’। বিষয়গুলো সংশ্লিষ্টদের সর্বাধিক গুরুত্বের সাথে ভেবে দেখা দরকার। ২১ ফেব্রুয়ারী’২০১৬ (সাপ্তাহিক বাংলা পত্রিকা)