নিউইয়র্ক ০৪:৪১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

জঙ্গির খোঁজে ঢাকার উদ্দেশে এনআইএ

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ১১:১৩:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৪
  • / ১০২১ বার পঠিত

বর্ধমান বিস্ফোরণ-ঘটনায় তদন্তে আগামী ১৭ নভেম্বর ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিচ্ছে ন্যাশন্যাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এনআইএ) ৷

নর্থ ব্লক সূত্রে  জানা গেছে,  এই মর্মে রাজনাথ সিংয়ের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত ছাড়পত্র পেয়েছেন তদন্তকারী এই সংস্থার কর্মকর্তারা।

এপার বাংলার মাটিতে বসে  ওপার বাংলায় অশান্তি পাকানোর ছক কষছিল জঙ্গিরা। বর্ধমানের খাগড়াগড়ে বিস্ফোরণের তদন্তে নেমে দুই বাংলার এমনই যোগের সন্ধান পান এনআইএর কর্মকর্তারা। এরপর তদন্ত যত এগিয়েছে তত দৃঢ় থেকে দৃঢ়তর হয়েছে এই তত্ত্ব।
তাই তদন্তের স্বার্থেই বাংলাদেশে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করেছিল এনআইএ। অবশেষে কেন্দ্রের তরফে এই অনুমতি মিলল।

এর মাঝে বর্ধমান বিস্ফোরণের সঙ্গে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ সংগঠন জামাআ’তুল মুজাহিদীনের জড়িত থাকার আরো বেশ কিছু প্রমাণ হাতে এসেছে এনআইএর। সাজিদ, আমজাদ শেখ, জিয়াউল খানের মতো নেতাদের জেরা করে এ বিষয়ে একাধিক প্রমাণ হাতে আসে।

পাশাপাশি বাংলাদেশের পুলিশের হাতে জামাআ’তুল মুজাহিদীনের  কয়েকজন নেতা ধরা পড়েছে। ঢাকায় গিয়ে  প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের পাশাপাশি রহস্যের সমাধানের স্বার্থে  বাংলাদেশে ধরা পড়া জঙ্গিদেরও জেরা করার অনুমতি চাইবেন এ দেশের তদন্তকারী কর্মকর্তারা।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

জঙ্গির খোঁজে ঢাকার উদ্দেশে এনআইএ

প্রকাশের সময় : ১১:১৩:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৪

বর্ধমান বিস্ফোরণ-ঘটনায় তদন্তে আগামী ১৭ নভেম্বর ঢাকার উদ্দেশে রওনা দিচ্ছে ন্যাশন্যাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (এনআইএ) ৷

নর্থ ব্লক সূত্রে  জানা গেছে,  এই মর্মে রাজনাথ সিংয়ের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের চূড়ান্ত ছাড়পত্র পেয়েছেন তদন্তকারী এই সংস্থার কর্মকর্তারা।

এপার বাংলার মাটিতে বসে  ওপার বাংলায় অশান্তি পাকানোর ছক কষছিল জঙ্গিরা। বর্ধমানের খাগড়াগড়ে বিস্ফোরণের তদন্তে নেমে দুই বাংলার এমনই যোগের সন্ধান পান এনআইএর কর্মকর্তারা। এরপর তদন্ত যত এগিয়েছে তত দৃঢ় থেকে দৃঢ়তর হয়েছে এই তত্ত্ব।
তাই তদন্তের স্বার্থেই বাংলাদেশে যাওয়ার অনুমতি চেয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করেছিল এনআইএ। অবশেষে কেন্দ্রের তরফে এই অনুমতি মিলল।

এর মাঝে বর্ধমান বিস্ফোরণের সঙ্গে বাংলাদেশে নিষিদ্ধ সংগঠন জামাআ’তুল মুজাহিদীনের জড়িত থাকার আরো বেশ কিছু প্রমাণ হাতে এসেছে এনআইএর। সাজিদ, আমজাদ শেখ, জিয়াউল খানের মতো নেতাদের জেরা করে এ বিষয়ে একাধিক প্রমাণ হাতে আসে।

পাশাপাশি বাংলাদেশের পুলিশের হাতে জামাআ’তুল মুজাহিদীনের  কয়েকজন নেতা ধরা পড়েছে। ঢাকায় গিয়ে  প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের পাশাপাশি রহস্যের সমাধানের স্বার্থে  বাংলাদেশে ধরা পড়া জঙ্গিদেরও জেরা করার অনুমতি চাইবেন এ দেশের তদন্তকারী কর্মকর্তারা।