নিউইয়র্ক ০৯:৩৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

নিজামকে বহিস্কার ফারুক ও মোহাম্মদ আলীকে অব্যহতি : মাহবুব-সাজ্জাদ-এনামকে কারণ দর্শানোর নোটিশের সিদ্ধান্ত

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০২:০২:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৫
  • / ৭২৭ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে দ্বন্দ চরমে পৌছেঁছে। ফলশ্রুতিতে সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বে সংগঠনের কার্য নির্বাহী পরিষদের পাল্টাপাল্টি সভা হয়েছে। সাধারণ সম্পাদকের আহবানে ৬ ডিসেম্বর রোববার অনুষ্ঠিত সভায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ ও দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীকে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে। অপরদিকে সভাপতির আহবানে ৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সভায় সংগঠনের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরীকে বহিষ্কার এবং সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ ও প্রচার সম্পাদক দুলাল মিয়া (হাজী এনাম)-কে কে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য পাল্টাপাল্টি সভা থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে সভা সূত্রে জানা গেছে।
সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আহুত উভয় সভা রুদ্ধধার কক্ষে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতির বিনা অনুমতিতে সাধারণ সম্পাদক আহুত সভাকে সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান অবৈধ ও অসাংগঠনিক সভা বলে মন্তব্য করেন এবং ঐ সভায় তিনি যোগ দেবেন না বলে ৫ ডিসেম্বর শনিবার বার্তা সংস্থা ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান। সভাপতি আহুত সভা সন্ধ্যা ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলে। অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক আহুত সভা সন্ধ্যা ৮টার দিকে শুরু হয়ে রাত ১১টার দিখে শেষ হয়। উভয় সভার মূল কার্যক্রমে সাংবাদিকদের উপস্থিতি বারণ ছিলো।
এদিকে বার্তা সংস্থা এনা’র খবরে বলা হয়েছে: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিকভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির একটি অংশ গত ৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে সাধারণ সভা আহবান করে। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বে আরেকটি অংশ গত ৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে সাধারণ সভা করে। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের মধ্যে বিরোধী দীর্ঘদিনের হলেও গত সপ্তাহে তা প্রকাশ্য রূপলাভ করে। একজন আরেকজনের ডাকা সাধারণ সভাকে অবৈধ বলছেন। সভাপতি বলেন, সভাপতির অনুমতি ব্যতিত সাধারণ সম্পাদক সাধারণ সভা ডাকতেন পারেন না। তার ডাকা সভা অবৈধ এবং ঐ সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তও অবৈধ। সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ বলেন, দলের গঠনতন্ত্র মেনেই আমি সাধারণ সভা ডেকেছি। এটা কোনভাবেই অবৈধ হতে পারে না। সিদ্ধান্তও অবৈধ নয়।
USAL GS Meetting_06 Dec'2015সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের ডাকা সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান। সভা পরিচালনা করেন সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ। সাধারণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা আইরীন পারভীন, কার্যকরি কমিটির অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহিউদ্দিন দেওয়ান, আব্দুল হাসিব মামুন, জাহাঙ্গীর হোসেন, হাজী এনাম, নূর আলম চৌধুরী, শিরিন আখতার দিবা, মোজাহিদুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান টুকু, এম এ করিম জাহাঙ্গীর, ড. আব্দুল বাতেন, তৈয়বুর রহমান টনি, ডেনি চৌধুরী, অহিদুর রহমান মুক্তা, শরাফ সরকার, মোস্তফা কামাল পাশা, শামসুল আবেদীন, আজিজুর রহমান সাবু, মইনুল হক, হাজী নিজাম উদ্দিন, মিসেস তরফদার, হারুন আহমেদ, আনোয়ার হোসেন, নূর নবী চৌধুরী, মোহাম্মদ মহসীন রিপন, নূরুল আফসার সেন্টু, আমিনুল ইসলাম কলিন্স, আজহারুল ইসলাম মিয়া, আতাউল গনি আসাদ, আশরাফুজ্জামান, শহীদ হাসান, রফিকুল ইসলাম পাটোয়ারি, খোরশেদ খন্দকার, আলাউদ্দিন জাহাঙ্গীর, জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।
সাধারণ সভায় ব্যাপাক আলাপ-আলোচনার পর সভায় সবার মতামতের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ ও দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এ ছাড়াও সাধারণ সভায় সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তোলা হয়। তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবর্ধনার সময় প্রায় ৪ লাখ ডলার উত্তেলন করা হয়। কিন্তু আজ পর্যন্ত সভাপতি তার কোন হিসাব দেননি। এ ছাড়াও সভাপতির বিরুদ্ধে চরম স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ আনেন তারা। তারা বলেন, দলের দায়িত্ব পালন করবেন কীভাবে তিনি বলতে গেলে প্রায় সারা বছরই বাংলাদেশে থাকেন। দলের হাই কমান্ডের নির্দেশ অমান্য করে সিদ্দিকুর রহমান নিয়ম বহির্ভুতভাবে বিতর্কিতদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করেন। কমিটি অন্তর্ভুক্ত করার পরও তিনি তা সাধারণ সভা করে অনুমোদন নেননি। কোন এক অজ্ঞাত কারণে গত তিন বছরে তিনি সাধারণ সভা করেননি বার বার তাগিদ দেয়ার পরও।
এদিকে সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের সাধারণ সভা পর সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে আরেকটি সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয় গত ৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে। সাধারণ সভায় গন্ডগোলের আশংকায় ব্যাপক সিকিউরিটি রাখা হয়। সিকিউরিটি রাখার পরও সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বাধীন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সাধারণ সভায় ঢুকার চেষ্টা করেন। কিন্তু নেতা এবং সিকিউরিটির লোকজনের কারণে তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। ভিতরে প্রবেশ করতে না পেরে তারা জুইস সেন্টারের বাইরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। পরিস্থিতি জটিল এবং উক্তপ্ত হলে জুইস সেন্টারে সাধারণ সভা যারা করছেন তাদের পক্ষ থেকে পুলিশ ডাকা হয়। পুলিশ এসে যারা বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন তাদের তাড়িয়ে দেন।
জুইস সেন্টারের সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সৈয়দ বসারত আলী, শামসুদ্দিন আজাদ, লুৎফুল করিম ও আবুল কাশেম, কোষাধ্যক্ষ আবুল মনসুর খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা আইরীন পারভীন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ, আব্দুর রহিম বাদশা ও চন্দন দত্ত সহ শাহ মোহাম্মদ বখতিয়ার, সোলায়মান আলী, কাজী কয়েস, মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, মাহবুবুর রহমান টুকু, আব্দুল মালেক, সাহানা রহমান, হিন্দাল কাদির বাপ্পা, মজিবুল মাওলা, সুজন আহমেদ সাজু, কামাল উদ্দিন, এস এম আলম বিপ্লব, আশফাক মাসুক, আব্দুস শহীদ দুদু, জহিরুল ইসলাম, হোসেন সোহেল রানা, গাজী মোহাম্মদ আলী, আকতার আহমেদ চৌধুরী, এম আনোয়ার, রেজাউল করিম চৌধুরী, আব্দুল হামিদ, কাজী আজিজুল হক খোকন, জুয়েল আহমেদ, কামরুল আলম হীরা, মজিবুর রহমান, শাহীন আজমল প্রমুখ।
সাধারণ সভায় ব্যাপক আলাপ-আলোচনা শেষে সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয় এবং সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান ও হাজী এনামকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এই তিন জনকে কারণ দর্শানো নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে হবে। উল্লেখ্য, দুটো সাধারণ সভার মধ্যে সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের ডাকা সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের শুধু ছবি তোলার সুযোগ দেয়া হয় কিন্তু সিদ্দিকুর রহমান কর্তৃক ডাকা সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের ভিতরে প্রবেশ করতে বাধা দেয়া হয়।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

নিজামকে বহিস্কার ফারুক ও মোহাম্মদ আলীকে অব্যহতি : মাহবুব-সাজ্জাদ-এনামকে কারণ দর্শানোর নোটিশের সিদ্ধান্ত

প্রকাশের সময় : ০২:০২:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৯ ডিসেম্বর ২০১৫

নিউইয়র্ক: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে দ্বন্দ চরমে পৌছেঁছে। ফলশ্রুতিতে সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বে সংগঠনের কার্য নির্বাহী পরিষদের পাল্টাপাল্টি সভা হয়েছে। সাধারণ সম্পাদকের আহবানে ৬ ডিসেম্বর রোববার অনুষ্ঠিত সভায় যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ ও দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীকে দায়িত্ব থেকে অব্যহতি দেয়া হয়েছে। অপরদিকে সভাপতির আহবানে ৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত সভায় সংগঠনের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরীকে বহিষ্কার এবং সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ ও প্রচার সম্পাদক দুলাল মিয়া (হাজী এনাম)-কে কে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য পাল্টাপাল্টি সভা থেকে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে সভা সূত্রে জানা গেছে।
সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আহুত উভয় সভা রুদ্ধধার কক্ষে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হয়। সভাপতির বিনা অনুমতিতে সাধারণ সম্পাদক আহুত সভাকে সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান অবৈধ ও অসাংগঠনিক সভা বলে মন্তব্য করেন এবং ঐ সভায় তিনি যোগ দেবেন না বলে ৫ ডিসেম্বর শনিবার বার্তা সংস্থা ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান। সভাপতি আহুত সভা সন্ধ্যা ৫টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত চলে। অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক আহুত সভা সন্ধ্যা ৮টার দিকে শুরু হয়ে রাত ১১টার দিখে শেষ হয়। উভয় সভার মূল কার্যক্রমে সাংবাদিকদের উপস্থিতি বারণ ছিলো।
এদিকে বার্তা সংস্থা এনা’র খবরে বলা হয়েছে: যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ আনুষ্ঠানিকভাবে বিভক্ত হয়ে পড়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির একটি অংশ গত ৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে সাধারণ সভা আহবান করে। অন্যদিকে সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বে আরেকটি অংশ গত ৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের পালকি পার্টি সেন্টারে সাধারণ সভা করে। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের মধ্যে বিরোধী দীর্ঘদিনের হলেও গত সপ্তাহে তা প্রকাশ্য রূপলাভ করে। একজন আরেকজনের ডাকা সাধারণ সভাকে অবৈধ বলছেন। সভাপতি বলেন, সভাপতির অনুমতি ব্যতিত সাধারণ সম্পাদক সাধারণ সভা ডাকতেন পারেন না। তার ডাকা সভা অবৈধ এবং ঐ সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তও অবৈধ। সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ বলেন, দলের গঠনতন্ত্র মেনেই আমি সাধারণ সভা ডেকেছি। এটা কোনভাবেই অবৈধ হতে পারে না। সিদ্ধান্তও অবৈধ নয়।
USAL GS Meetting_06 Dec'2015সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের ডাকা সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান। সভা পরিচালনা করেন সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ। সাধারণ সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা আইরীন পারভীন, কার্যকরি কমিটির অন্যান্য সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মহিউদ্দিন দেওয়ান, আব্দুল হাসিব মামুন, জাহাঙ্গীর হোসেন, হাজী এনাম, নূর আলম চৌধুরী, শিরিন আখতার দিবা, মোজাহিদুল ইসলাম, মাহবুবুর রহমান টুকু, এম এ করিম জাহাঙ্গীর, ড. আব্দুল বাতেন, তৈয়বুর রহমান টনি, ডেনি চৌধুরী, অহিদুর রহমান মুক্তা, শরাফ সরকার, মোস্তফা কামাল পাশা, শামসুল আবেদীন, আজিজুর রহমান সাবু, মইনুল হক, হাজী নিজাম উদ্দিন, মিসেস তরফদার, হারুন আহমেদ, আনোয়ার হোসেন, নূর নবী চৌধুরী, মোহাম্মদ মহসীন রিপন, নূরুল আফসার সেন্টু, আমিনুল ইসলাম কলিন্স, আজহারুল ইসলাম মিয়া, আতাউল গনি আসাদ, আশরাফুজ্জামান, শহীদ হাসান, রফিকুল ইসলাম পাটোয়ারি, খোরশেদ খন্দকার, আলাউদ্দিন জাহাঙ্গীর, জয়নাল আবেদীন প্রমুখ।
সাধারণ সভায় ব্যাপাক আলাপ-আলোচনার পর সভায় সবার মতামতের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ ও দপ্তর সম্পাদক মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকীকে অব্যাহতি দেয়া হয়। এ ছাড়াও সাধারণ সভায় সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তাদের আর্থিক অনিয়মের অভিযোগ তোলা হয়। তারা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংবর্ধনার সময় প্রায় ৪ লাখ ডলার উত্তেলন করা হয়। কিন্তু আজ পর্যন্ত সভাপতি তার কোন হিসাব দেননি। এ ছাড়াও সভাপতির বিরুদ্ধে চরম স্বেচ্ছাচারিতার অভিযোগ আনেন তারা। তারা বলেন, দলের দায়িত্ব পালন করবেন কীভাবে তিনি বলতে গেলে প্রায় সারা বছরই বাংলাদেশে থাকেন। দলের হাই কমান্ডের নির্দেশ অমান্য করে সিদ্দিকুর রহমান নিয়ম বহির্ভুতভাবে বিতর্কিতদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করেন। কমিটি অন্তর্ভুক্ত করার পরও তিনি তা সাধারণ সভা করে অনুমোদন নেননি। কোন এক অজ্ঞাত কারণে গত তিন বছরে তিনি সাধারণ সভা করেননি বার বার তাগিদ দেয়ার পরও।
এদিকে সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের সাধারণ সভা পর সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের নেতৃত্বে আরেকটি সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত হয় গত ৮ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের জুইস সেন্টারে। সাধারণ সভায় গন্ডগোলের আশংকায় ব্যাপক সিকিউরিটি রাখা হয়। সিকিউরিটি রাখার পরও সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের নেতৃত্বাধীন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ সাধারণ সভায় ঢুকার চেষ্টা করেন। কিন্তু নেতা এবং সিকিউরিটির লোকজনের কারণে তারা ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি। ভিতরে প্রবেশ করতে না পেরে তারা জুইস সেন্টারের বাইরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। পরিস্থিতি জটিল এবং উক্তপ্ত হলে জুইস সেন্টারে সাধারণ সভা যারা করছেন তাদের পক্ষ থেকে পুলিশ ডাকা হয়। পুলিশ এসে যারা বাইরে বিক্ষোভ করছিলেন তাদের তাড়িয়ে দেন।
জুইস সেন্টারের সাধারণ সভায় সভাপতিত্ব করেন ড. সিদ্দিকুর রহমান এবং সভা পরিচালনা করেন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ। সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি সৈয়দ বসারত আলী, শামসুদ্দিন আজাদ, লুৎফুল করিম ও আবুল কাশেম, কোষাধ্যক্ষ আবুল মনসুর খান, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদিকা আইরীন পারভীন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফারুক আহমেদ, আব্দুর রহিম বাদশা ও চন্দন দত্ত সহ শাহ মোহাম্মদ বখতিয়ার, সোলায়মান আলী, কাজী কয়েস, মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, মাহবুবুর রহমান টুকু, আব্দুল মালেক, সাহানা রহমান, হিন্দাল কাদির বাপ্পা, মজিবুল মাওলা, সুজন আহমেদ সাজু, কামাল উদ্দিন, এস এম আলম বিপ্লব, আশফাক মাসুক, আব্দুস শহীদ দুদু, জহিরুল ইসলাম, হোসেন সোহেল রানা, গাজী মোহাম্মদ আলী, আকতার আহমেদ চৌধুরী, এম আনোয়ার, রেজাউল করিম চৌধুরী, আব্দুল হামিদ, কাজী আজিজুল হক খোকন, জুয়েল আহমেদ, কামরুল আলম হীরা, মজিবুর রহমান, শাহীন আজমল প্রমুখ।
সাধারণ সভায় ব্যাপক আলাপ-আলোচনা শেষে সংগঠন বিরোধী কর্মকান্ডের জন্য যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরীকে বহিষ্কার করা হয় এবং সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদ, সহ সভাপতি মাহবুবুর রহমান ও হাজী এনামকে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এই তিন জনকে কারণ দর্শানো নোটিশ পাওয়ার সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে হবে। উল্লেখ্য, দুটো সাধারণ সভার মধ্যে সাজ্জাদুর রহমান সাজ্জাদের ডাকা সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের শুধু ছবি তোলার সুযোগ দেয়া হয় কিন্তু সিদ্দিকুর রহমান কর্তৃক ডাকা সাধারণ সভায় সাংবাদিকদের ভিতরে প্রবেশ করতে বাধা দেয়া হয়।