নিউইয়র্ক ০৭:৪০ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

নিউইয়র্কে তিন মাস ধরে বাংলাদেশী মাহফুজা নিখোঁজ : রহস্য

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০১:৫৪:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১১ মার্চ ২০১৬
  • / ৯৭৫ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: বাংলাদেশী অধ্যুষিত নিউইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কসে বসবাসকারী বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান (৩০) তিন মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। সিটির ম্যানহাটানাস্থ বেলভ্যু হাসপাতালের নার্স হিসেবে কর্মরত মাহফুজা গত ৮ ডিসেম্বরের পর থেকে তার কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। সিটি পুলিশ তার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাটিকে রহস্যজনক মনে করছে। তার এক কন্যা সমন্তান রয়েছে। মাহফুজার নিখোঁজের ঘটনার খবর ইতিমধ্যেই মূলধারার টিভি মিডিয়াসহ কমিউনিটির মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার হয়েছে। এদিকে তার স্বামী ও কন্যারও সঠিক সন্ধান মিলছে না। যদিও প্রতিবেশীরা বলেছেন মাহফুজার স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরী (৩৮) তার নয় বছর বয়সী কন্যাকে নিয়ে বাংলাদেশে গেছেন। দেশে যাওয়ার আগে তিনি আর প্রতিবেশীদের বলেছেন তার বাসাটি দেখে-শুনে রাখার।
অপরদিকে নিখোঁজ মাহফুজা রহমানের খোঁজে নিউইয়র্ক নিসটি পুলিশ গত ৭ মার্চ সোমবার তাদেও বাড়ীর আঙ্গীনায় গর্ত করে কুকুর দিয়ে তল্লাশী চালিয়েছে। এর আগে পুরো বাড়ী তল্লাশী করা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুলিশ তার নিখোঁজ রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি।
উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্বাবদ্যালয় থেকে রসায়নে মার্সটার্স ডিগ্রীধারী মাহফুজা রহমান নিউইয়র্কের হান্টার কলেজ থেকে নাসিং-এ ডিপ্লোমা ডিগ্রী অর্জন করেন। এছাড়া ২০১৪ সালে তিনি লাগোর্ডিয়া কলেজ থেকে এসোসিয়েশট ডিগ্রী অর্জণ করেন।
বার্তা সংস্থা এনা’র খবরে বলা হয়েছে: তিনি মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান। ৩০ বছর বয়সী নার্স মাহফুজা রহমানকে নিউইয়র্ক পুলিশ খুঁজছেন। গত ৮ ডিসেম্বর থেকে তার কোন সন্ধান নেই। বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান থাকতেন ব্রঙ্কসে এবং নার্সের কাজ করতেন ম্যানহাটানের বেলভিউ হাসপাতালে। ৮ ডিসেম্বরের পর থেকে মাহফুজা রহমান কাজে না যাওয়ায় কল দেয়া হয় বেলভিউ হাসপাতাল থেকে। সেই সময় মাহফুজা রহমানের স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরী (৩৮) জানিয়েছিলেন যে, বাংলাদেশে তার নিকট আত্মীয় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন, তিনি তাদের দেখতে গিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে তার কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ফিরে আসার কথা। কিন্তু তিন মাসেও ফিরে আসায় বা কাজে যোগ না দেয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার স্বামীকে এবং বাসায় ফোন করেন। বার বার ফোন করেও কোন উত্তর না পেয়ে তারা পুলিশকে অবহিত করেন।
পুলিশ রিপোর্টের পর ব্রঙ্কসের পুলিশ এটিকে নিখোঁজ ধরেই তল্লাশিতে নামে। পুলিশ গত ৭ মার্চ মাহফুজা রহমানের কিংসব্রিজ হেইটস এলাকার ইস্ট ১৯৮ স্ট্রিটের বাসায় যায়। বাসায় গিয়ে তারা দেখতে পান যে বাসায় তালা দেয়া। স্থানীয় বাসিন্দারা নিউইয়র্ক পুলিশকে জানায়, গত ৩ মাস ধরেই এই বাসাটি তালাবদ্ধ এবং মাহফুজা রহমানের স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরীও তার ৯ বছরের মেয়েকে নিয়ে বাংলাদেশে চলে গিয়েছেন। যাবার সময় পাশের বাসার লোকজনকে অনুরোধ করেছেন তাদের বাসার দিকে খেয়াল রাখার জন্য।
এই ঘটনা শোনার পর পুলিশের সন্দেহ বাড়ে। তারা মাহফুজা রহমানের বাসার আঙ্গিনা খুড়ে এবং কুকুর দিয়ে তল্লাশি চালায়। পুলিশ এখনো নিশ্চিত নন মাহফুজা রহমান কোথায় আছেন। পুলিশ তাদের তদন্ত অব্যাহত রেখেছে। পুলিশের ধারণা মাহফুজা রহমানের স্বামী বা আত্মীয়-স্বজনের সন্ধান পাওয়া গেলেই মাহফুজা রহমান নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন হবে।
উল্লেখ, মাহফুজা রহমান ৮ ডিসেম্বর বেলভিউ হাসপাতালে কাজ শেষে বিকেলে ৪টা ৩০ মিনিটের সময় বাসার উদ্দেশ্যে রাওয়ানা হয়েছিলেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

নিউইয়র্কে তিন মাস ধরে বাংলাদেশী মাহফুজা নিখোঁজ : রহস্য

প্রকাশের সময় : ০১:৫৪:৪৭ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১১ মার্চ ২০১৬

নিউইয়র্ক: বাংলাদেশী অধ্যুষিত নিউইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কসে বসবাসকারী বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান (৩০) তিন মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন। সিটির ম্যানহাটানাস্থ বেলভ্যু হাসপাতালের নার্স হিসেবে কর্মরত মাহফুজা গত ৮ ডিসেম্বরের পর থেকে তার কোন হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। সিটি পুলিশ তার নিখোঁজ হওয়ার ঘটনাটিকে রহস্যজনক মনে করছে। তার এক কন্যা সমন্তান রয়েছে। মাহফুজার নিখোঁজের ঘটনার খবর ইতিমধ্যেই মূলধারার টিভি মিডিয়াসহ কমিউনিটির মিডিয়ায় ফলাও করে প্রচার হয়েছে। এদিকে তার স্বামী ও কন্যারও সঠিক সন্ধান মিলছে না। যদিও প্রতিবেশীরা বলেছেন মাহফুজার স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরী (৩৮) তার নয় বছর বয়সী কন্যাকে নিয়ে বাংলাদেশে গেছেন। দেশে যাওয়ার আগে তিনি আর প্রতিবেশীদের বলেছেন তার বাসাটি দেখে-শুনে রাখার।
অপরদিকে নিখোঁজ মাহফুজা রহমানের খোঁজে নিউইয়র্ক নিসটি পুলিশ গত ৭ মার্চ সোমবার তাদেও বাড়ীর আঙ্গীনায় গর্ত করে কুকুর দিয়ে তল্লাশী চালিয়েছে। এর আগে পুরো বাড়ী তল্লাশী করা হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত পুলিশ তার নিখোঁজ রহস্য উদঘাটন করতে পারেনি।
উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্বাবদ্যালয় থেকে রসায়নে মার্সটার্স ডিগ্রীধারী মাহফুজা রহমান নিউইয়র্কের হান্টার কলেজ থেকে নাসিং-এ ডিপ্লোমা ডিগ্রী অর্জন করেন। এছাড়া ২০১৪ সালে তিনি লাগোর্ডিয়া কলেজ থেকে এসোসিয়েশট ডিগ্রী অর্জণ করেন।
বার্তা সংস্থা এনা’র খবরে বলা হয়েছে: তিনি মাস ধরে নিখোঁজ রয়েছেন বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান। ৩০ বছর বয়সী নার্স মাহফুজা রহমানকে নিউইয়র্ক পুলিশ খুঁজছেন। গত ৮ ডিসেম্বর থেকে তার কোন সন্ধান নেই। বাংলাদেশী মাহফুজা রহমান থাকতেন ব্রঙ্কসে এবং নার্সের কাজ করতেন ম্যানহাটানের বেলভিউ হাসপাতালে। ৮ ডিসেম্বরের পর থেকে মাহফুজা রহমান কাজে না যাওয়ায় কল দেয়া হয় বেলভিউ হাসপাতাল থেকে। সেই সময় মাহফুজা রহমানের স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরী (৩৮) জানিয়েছিলেন যে, বাংলাদেশে তার নিকট আত্মীয় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন, তিনি তাদের দেখতে গিয়েছেন। বাংলাদেশ থেকে তার কয়েক সপ্তাহের মধ্যে ফিরে আসার কথা। কিন্তু তিন মাসেও ফিরে আসায় বা কাজে যোগ না দেয়ায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তার স্বামীকে এবং বাসায় ফোন করেন। বার বার ফোন করেও কোন উত্তর না পেয়ে তারা পুলিশকে অবহিত করেন।
পুলিশ রিপোর্টের পর ব্রঙ্কসের পুলিশ এটিকে নিখোঁজ ধরেই তল্লাশিতে নামে। পুলিশ গত ৭ মার্চ মাহফুজা রহমানের কিংসব্রিজ হেইটস এলাকার ইস্ট ১৯৮ স্ট্রিটের বাসায় যায়। বাসায় গিয়ে তারা দেখতে পান যে বাসায় তালা দেয়া। স্থানীয় বাসিন্দারা নিউইয়র্ক পুলিশকে জানায়, গত ৩ মাস ধরেই এই বাসাটি তালাবদ্ধ এবং মাহফুজা রহমানের স্বামী মোহাম্মদ চৌধুরীও তার ৯ বছরের মেয়েকে নিয়ে বাংলাদেশে চলে গিয়েছেন। যাবার সময় পাশের বাসার লোকজনকে অনুরোধ করেছেন তাদের বাসার দিকে খেয়াল রাখার জন্য।
এই ঘটনা শোনার পর পুলিশের সন্দেহ বাড়ে। তারা মাহফুজা রহমানের বাসার আঙ্গিনা খুড়ে এবং কুকুর দিয়ে তল্লাশি চালায়। পুলিশ এখনো নিশ্চিত নন মাহফুজা রহমান কোথায় আছেন। পুলিশ তাদের তদন্ত অব্যাহত রেখেছে। পুলিশের ধারণা মাহফুজা রহমানের স্বামী বা আত্মীয়-স্বজনের সন্ধান পাওয়া গেলেই মাহফুজা রহমান নিখোঁজের রহস্য উদঘাটন হবে।
উল্লেখ, মাহফুজা রহমান ৮ ডিসেম্বর বেলভিউ হাসপাতালে কাজ শেষে বিকেলে ৪টা ৩০ মিনিটের সময় বাসার উদ্দেশ্যে রাওয়ানা হয়েছিলেন।