নিউইয়র্ক ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

দেশ ও প্রবাসের সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে হাসিনা সরকারের পতন আন্দোলন জোরদার করার আহ্বান

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৯:৩৬:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৫
  • / ৭২৪ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)-এর প্রতিষ্ঠাতা, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৯তম জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা তাঁর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্দোলনের বিকল্প নেই। বক্তারা দেশ ও প্রবাসের সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে হাসিনা সরকারের পতন আন্দোলন জোরদার করার উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্তাধীন মহাজোট সরকার শেখ মুজিব প্রতিষ্ঠিত বাকশালীয় কায়দার দেশ পরিচালনা করছে। বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের উপর সরকারের জুলুম, নিপীড়ন-নির্যাতন, হত্যা, খুন, হামলা, মামলা, গুম চরম পর্যায়ে পৌছেঁছে। আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্ব ব্যক্তিবর্গ সরকারের দলীয় কর্মীতে পরিণত হয়েছে। বক্তারা বলেন, দেশের  উদ্ভুত পরিস্থিতিতে নির্বাচনই একমাত্র পথ।
সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ ফুডকোর্ট রেষ্টুরেন্টে গত ১৯ জানুয়ারী সোমবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদল এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি গিয়াস আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সভাপতি আতাউর রহমান আতা।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি’র সাবেক সহ সভাপতি হজরত আলী ও ম ই শাহীন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক আজাদ বাকের, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এম এ বাতিন, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক সৈয়দ এম রেজা, সহ সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম, হিউস্টন বিএনপি’র সভাপতি মোহাম্মদ বশির, যুক্তরাষ্ট্র মহিলাদল নেত্রী সৈয়দা মাহমুদা শিরিন, যুক্তরাষ্ট্র জাসাস সভাপতি আবুল বাসার, ছাত্রদলের সাবেক নেতা মাইনুল ইসলাম মুহিদসহ সভায় বক্তব্য রাখেন ব্রুকলীন আরো বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, রাফেল তালুকদার, নূরুল আমীন পলাশ, মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন, আলহাজ কামাল উদ্দিন, মাজহারুল ইসলাম জনি, জাহাঙ্গীর সোহরাওয়ার্দী দেলোয়ার শিপন, মিন্টু হামিদ, মোহাম্মদ শামীম, ওয়েজ আহমেদ, মার্শাল মুরাদ, মোহাম্মদ আব্দুল করীম, মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া বিল্লাল, নাসিম আহমেদ, আব্দুর রহমান, গোলাম হোসেন, মোহাম্মদ আলী প্রমুখ। সভায় ব্রুকলীনবাসী বিএনপির নেতা-কর্মীর উপস্থিতি ছিলো উল্লেখযোগ্য।
BNP_1সভায় বক্তারা বলেন, বিএনপির চেয়াপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার আহ্বানে হাসিনা সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত দেশব্যাপী আবরোধ কর্মসূচী চলছে, চলবে। এই আন্দোলনে যারা রাজপথের লড়াকু সৈনিক হিসেবে আন্দোলনের সাথে রয়েছে তাদেরকে প্রবাস থেকে সকল প্রকার সহযোগিতা প্রদানের জন্য যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সর্বস্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভান্যুধায়ীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
সভায় গিয়াস আহমেদ শহীদ জিয়া আমাদেরকে দেশ, পরিচয়, গণতন্ত্র, মানবাধিকার দিয়ে গেছেন। আর আওয়ামী লীগ সবকিছু হরণ করে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। তিনি বলেন, বিজিবি প্রধান ও র‌্যাব-এর মহাপরিচালকের সাম্প্রতিক বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, তাদের কর্মকন্ড ও বক্তব্য আওয়ামী লীগ দলীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মতো। এই দিন দিন নয়, সামনে দিন আসছে। তাই প্রশাসনের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদেরকে জনগণের সেবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের উপর নিপীড়র-নির্যাতন আর হামলা-মামলা বন্ধ করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আন্দোলনের মধ্য দিয়েই হাসিনা সরকারের পতন ঘটানো হবে।
হযরত আলী বলেন, শহীদ জিয়ার গুণগান বলে শেষ করা যাবে না। তিনি জন্ম না নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো কিনা সন্দেহ। তিনি বলেন, দেশের সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মনে রাখতে হবে তারা প্রজতন্ত্রের কর্মচারী, আওয়ামী লীগের নয়। তাই তাদের কর্মকান্ড আর বক্তব্য জনগণের কল্যাণমূখী হওয়া উচিৎ, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ বা ছাত্রলীগের ভাষায় নয়।
এম এ বাতিন বলেন, আন্দোলন চলছে, আন্দোলন চলবে। জনগণের অধিকার, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত দেশনেত্রী খালেদা জিয়া আর বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে আমরা রাজপথে থাকবো।
আবুল বাসার বলেন, শহীদ জিয়া আমাদের বাংলাদেশী হিসেবে বিশ্ববুকে পরিচিত করেছেন। তার ঋণ শোধ করার নয়। আমাদের দায়িত্ব দেশের জনগণের পাশে দাঁড়ানো।
BNP_2বক্তারা দলীয় বিভেদ-বিভক্তি দূর করে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের শহীদ জিয়ার আদর্শের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান এবং হোয়াইট হ্উাজ, ষ্টেট ডিপার্টেন্ট ও জাতিসংঘ ভবনের সামনে হাসিনা সরকারের অগণতান্ত্রিক কর্মকান্ড তুলে ধরে আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

দেশ ও প্রবাসের সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে হাসিনা সরকারের পতন আন্দোলন জোরদার করার আহ্বান

প্রকাশের সময় : ০৯:৩৬:৩৫ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২০ জানুয়ারী ২০১৫

নিউইয়র্ক: বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবর্তক, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)-এর প্রতিষ্ঠাতা, শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ৭৯তম জন্মবার্ষিকী পালন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা তাঁর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করে বলেন, দেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্দোলনের বিকল্প নেই। বক্তারা দেশ ও প্রবাসের সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে ঐক্যবদ্ধভাবে হাসিনা সরকারের পতন আন্দোলন জোরদার করার উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, আওয়ামী লীগ নেতৃত্তাধীন মহাজোট সরকার শেখ মুজিব প্রতিষ্ঠিত বাকশালীয় কায়দার দেশ পরিচালনা করছে। বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের উপর সরকারের জুলুম, নিপীড়ন-নির্যাতন, হত্যা, খুন, হামলা, মামলা, গুম চরম পর্যায়ে পৌছেঁছে। আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্ব ব্যক্তিবর্গ সরকারের দলীয় কর্মীতে পরিণত হয়েছে। বক্তারা বলেন, দেশের  উদ্ভুত পরিস্থিতিতে নির্বাচনই একমাত্র পথ।
সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ ফুডকোর্ট রেষ্টুরেন্টে গত ১৯ জানুয়ারী সোমবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি, যুবদল ও ছাত্রদল এই আলোচনা সভার আয়োজন করে। যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সাবেক সিনিয়র সহ সভাপতি গিয়াস আহমেদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভা পরিচালনা করেন যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের সভাপতি আতাউর রহমান আতা।
যুক্তরাষ্ট্র বিএনপি’র সাবেক সহ সভাপতি হজরত আলী ও ম ই শাহীন, সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মোহাম্মদ আনোয়ারুল ইসলাম, যুগ্ম সম্পাদক আজাদ বাকের, কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক এম এ বাতিন, যুক্তরাষ্ট্র যুবদলের সাবেক আহ্বায়ক সৈয়দ এম রেজা, সহ সভাপতি মোহাম্মদ শাহ আলম, হিউস্টন বিএনপি’র সভাপতি মোহাম্মদ বশির, যুক্তরাষ্ট্র মহিলাদল নেত্রী সৈয়দা মাহমুদা শিরিন, যুক্তরাষ্ট্র জাসাস সভাপতি আবুল বাসার, ছাত্রদলের সাবেক নেতা মাইনুল ইসলাম মুহিদসহ সভায় বক্তব্য রাখেন ব্রুকলীন আরো বক্তব্য রাখেন এবং উপস্থিত ছিলেন মোহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন, রাফেল তালুকদার, নূরুল আমীন পলাশ, মোহাম্মদ সোহরাব হোসেন, আলহাজ কামাল উদ্দিন, মাজহারুল ইসলাম জনি, জাহাঙ্গীর সোহরাওয়ার্দী দেলোয়ার শিপন, মিন্টু হামিদ, মোহাম্মদ শামীম, ওয়েজ আহমেদ, মার্শাল মুরাদ, মোহাম্মদ আব্দুল করীম, মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর, মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া বিল্লাল, নাসিম আহমেদ, আব্দুর রহমান, গোলাম হোসেন, মোহাম্মদ আলী প্রমুখ। সভায় ব্রুকলীনবাসী বিএনপির নেতা-কর্মীর উপস্থিতি ছিলো উল্লেখযোগ্য।
BNP_1সভায় বক্তারা বলেন, বিএনপির চেয়াপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার আহ্বানে হাসিনা সরকারের পতন না হওয়া পর্যন্ত দেশব্যাপী আবরোধ কর্মসূচী চলছে, চলবে। এই আন্দোলনে যারা রাজপথের লড়াকু সৈনিক হিসেবে আন্দোলনের সাথে রয়েছে তাদেরকে প্রবাস থেকে সকল প্রকার সহযোগিতা প্রদানের জন্য যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সর্বস্তরের নেতা-কর্মী, সমর্থক ও শুভান্যুধায়ীদের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।
সভায় গিয়াস আহমেদ শহীদ জিয়া আমাদেরকে দেশ, পরিচয়, গণতন্ত্র, মানবাধিকার দিয়ে গেছেন। আর আওয়ামী লীগ সবকিছু হরণ করে একদলীয় শাসন কায়েম করেছে। তিনি বলেন, বিজিবি প্রধান ও র‌্যাব-এর মহাপরিচালকের সাম্প্রতিক বক্তব্যের তীব্র নিন্দা জানিয়ে বলেন, তাদের কর্মকন্ড ও বক্তব্য আওয়ামী লীগ দলীয় রাজনৈতিক নেতা-কর্মীদের মতো। এই দিন দিন নয়, সামনে দিন আসছে। তাই প্রশাসনের দায়িত্বশীল ব্যক্তিদেরকে জনগণের সেবক হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে হবে। তিনি বিরোধীদলীয় নেতা-কর্মীদের উপর নিপীড়র-নির্যাতন আর হামলা-মামলা বন্ধ করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, আন্দোলনের মধ্য দিয়েই হাসিনা সরকারের পতন ঘটানো হবে।
হযরত আলী বলেন, শহীদ জিয়ার গুণগান বলে শেষ করা যাবে না। তিনি জন্ম না নিয়ে বাংলাদেশ স্বাধীন হতো কিনা সন্দেহ। তিনি বলেন, দেশের সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মনে রাখতে হবে তারা প্রজতন্ত্রের কর্মচারী, আওয়ামী লীগের নয়। তাই তাদের কর্মকান্ড আর বক্তব্য জনগণের কল্যাণমূখী হওয়া উচিৎ, আওয়ামী লীগ, যুবলীগ বা ছাত্রলীগের ভাষায় নয়।
এম এ বাতিন বলেন, আন্দোলন চলছে, আন্দোলন চলবে। জনগণের অধিকার, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত দেশনেত্রী খালেদা জিয়া আর বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে আমরা রাজপথে থাকবো।
আবুল বাসার বলেন, শহীদ জিয়া আমাদের বাংলাদেশী হিসেবে বিশ্ববুকে পরিচিত করেছেন। তার ঋণ শোধ করার নয়। আমাদের দায়িত্ব দেশের জনগণের পাশে দাঁড়ানো।
BNP_2বক্তারা দলীয় বিভেদ-বিভক্তি দূর করে যুক্তরাষ্ট্র বিএনপির সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের শহীদ জিয়ার আদর্শের পতাকা তলে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান এবং হোয়াইট হ্উাজ, ষ্টেট ডিপার্টেন্ট ও জাতিসংঘ ভবনের সামনে হাসিনা সরকারের অগণতান্ত্রিক কর্মকান্ড তুলে ধরে আন্তর্জাতিক মহলকে অবহিত করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।