নিউইয়র্ক ১১:৫২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

উত্তর আমেরিকায় গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় ভাষা শহীদদের স্মরণ : জাতিসংঘে মাতৃভাষা দিবস পালনের জন্য বাংলাদেশের দাবী

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৭:৩৮:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬
  • / ৭৮৮ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: গভীর শ্রদ্ধায় বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনে শহীদ বীর বাঙালীদের স্মরণ করার মধ্য দিয়ে নিউইয়র্কসহ উত্তর আমেরিকায় অমর একুশে মহান শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। অমর একুশের মূল অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। একুশের প্রথম প্রহরে সর্বস্তরের শত শত প্রবাসী বাংলাদেশীসহ ভীনদেশী আর মূলধারার জনপ্রতিনিধিরাও শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা-ভালবাসা জানান। নিউইয়র্ক ছাড়াও বাংলাদেশী অধ্যুষিত উত্তর আমেরিকা তথা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে শতাধিক শহীদ মিনার নির্মাণ করে এই শ্রদ্ধা জানানো হয় বলে বিভন্ন সূত্রে জানা যায়। বাংলাদেশ সোসাইটি ইনক, জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশন, সম্মিলিত একুশ উদযাপন পরিষদ, মুক্তাধারা ফাউন্ডেশন ও বাঙালীর চেতনা মঞ্চ, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি প্রভৃতি সংগঠন/প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে একুশের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো ছাড়াও একুশের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো আলোচনা, শিশু-কিশোর-কিশোরীদের একুশ বিষয়ক প্রতিযোগিতা, একুশ ও দেশাত্ব বিষয়ক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সংকলন/স্মরণিকা প্রকাশ প্রভৃতি। চলতি বছর প্রথম জাতিসংঘ ভবনের সামনে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ভাস্কর্য’ স্থাপন করে ‘ভাষা দিবস’ পালনে নতুন মাত্রা যোগ করা হয়। এছাড়া এবারই প্রথম বাংলাদেশ সময়ে একুশের প্রথম প্রহরে (বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ০১ মিনিট, নিউইয়র্ক সময় বেলা ০১টা ০১ মিনিট) জাতিসংঘ ভবনের সামনে নির্মিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্থবক অর্পণ করা হয়। এদিকে বাংলাদেশ মিশনে আয়োজিত একুশের আলোচনায় ইউএন’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জাতিসংঘে মাতৃভাষা দিবস পালনের জন্য দাবী জানিয়েছেন মিশনে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন। অপরদিকে প্রবাসে আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানে বিশ্বের সকল ভাষা বাঁচিয়ে রাখার দাবীর পাশাপাশি নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা শিখানোর উপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, অমর একুশে ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশের জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। এটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবেও সুপরিচিত। বাঙালী জনগণের মায়ের ভাষা ‘বাংলা ভাষা’র মর্যাদা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। ১৯৫২ সালের এই দিনে (৮ ফালগুন, ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে রফিক, সালাম, জব্বার সহ কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। ফলে দিনটি ‘শহীদ দিবস’ হিসেবে চিহ্নিত হয়। কানাডার ভ্যানকুভার শহরে বসবাসরত দুই বাংলাদেশী রফিকুল ইসলাম (মরহুম) এবং আবদুস সালাম প্রাথমিক উদ্যোক্তা হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণার জন্য ১৯৯৮ সালে জাতিসংঘের মহাসচিব কফি আনানের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন। তাদের এই আবেদনের পর গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার সহ বিভিন্ন মহলের দাবীর প্রেক্ষিতে ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারীকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী থেকে দিবসটি জাতিসংঘের সদস্যদেশসমূহে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে ‘এখন থেকে প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করবে জাতিসংঘ’ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে পাস হয়। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের প্রস্তাবটি সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে উত্থাপন করে বাংলাদেশ। একই বছরের মে মাসে ১১৩ সদস্যবিশিষ্ট জাতিসংঘের তথ্যবিষয়ক কমিটিতে প্রস্তাবটি সর্বসম্মতভাবে পাস হয়।
মহান শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষে মুক্তধারা ফাউন্ডেশন ও বাঙালীর চেতনা মঞ্চের উদ্যোগে জাতিসংঘ সদর দফতরের সামনে, জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ম্যানহাটানস্থ মিশন কার্যালয়ে, নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট এস্টোরিয়াস্থ কনস্যুলেট অফিসে, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশীদের মাদার সংগঠন হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ নান্দুস ব্যাঙ্কুইট হলে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশন ইউএসএ ইনক এস্টোরিয়ার এনটিভি ভবনে, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি স্থানীয় হিলসাইড এভিনিউস্থ এক্সিট রিয়েলটি মিলনায়তনে, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, যুক্তরাষ্ট্র কমান্ড নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস্থ ডাইভার সিটি প্লাজায়, কুইন্স বরো যুবলীগ ওজনপার্কে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে।
যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসি, পেনসেলভেনিয়া, নিউজার্সী, ফ্লোরিডা, টেক্সাস, মিশিগান, জর্জিয়া, বোস্টন, ক্যালিফোর্নিয়া প্রভৃতি অঙ্গরাজ্য ছাড়াও কানাডায় অমর একুশে শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের খবর পাওয়া গেছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

উত্তর আমেরিকায় গভীর শ্রদ্ধা ও ভালবাসায় ভাষা শহীদদের স্মরণ : জাতিসংঘে মাতৃভাষা দিবস পালনের জন্য বাংলাদেশের দাবী

প্রকাশের সময় : ০৭:৩৮:২৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০১৬

নিউইয়র্ক: গভীর শ্রদ্ধায় বায়ান্ন’র ভাষা আন্দোলনে শহীদ বীর বাঙালীদের স্মরণ করার মধ্য দিয়ে নিউইয়র্কসহ উত্তর আমেরিকায় অমর একুশে মহান শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। অমর একুশের মূল অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো ঢাকাস্থ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে নির্মিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো। একুশের প্রথম প্রহরে সর্বস্তরের শত শত প্রবাসী বাংলাদেশীসহ ভীনদেশী আর মূলধারার জনপ্রতিনিধিরাও শহীদ বেদীতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা-ভালবাসা জানান। নিউইয়র্ক ছাড়াও বাংলাদেশী অধ্যুষিত উত্তর আমেরিকা তথা যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডার বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে শতাধিক শহীদ মিনার নির্মাণ করে এই শ্রদ্ধা জানানো হয় বলে বিভন্ন সূত্রে জানা যায়। বাংলাদেশ সোসাইটি ইনক, জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশন, সম্মিলিত একুশ উদযাপন পরিষদ, মুক্তাধারা ফাউন্ডেশন ও বাঙালীর চেতনা মঞ্চ, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি প্রভৃতি সংগঠন/প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে একুশের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো ছাড়াও একুশের অনুষ্ঠানমালার মধ্যে ছিলো আলোচনা, শিশু-কিশোর-কিশোরীদের একুশ বিষয়ক প্রতিযোগিতা, একুশ ও দেশাত্ব বিষয়ক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সংকলন/স্মরণিকা প্রকাশ প্রভৃতি। চলতি বছর প্রথম জাতিসংঘ ভবনের সামনে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের ভাস্কর্য’ স্থাপন করে ‘ভাষা দিবস’ পালনে নতুন মাত্রা যোগ করা হয়। এছাড়া এবারই প্রথম বাংলাদেশ সময়ে একুশের প্রথম প্রহরে (বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ০১ মিনিট, নিউইয়র্ক সময় বেলা ০১টা ০১ মিনিট) জাতিসংঘ ভবনের সামনে নির্মিত শহীদ মিনারে পুষ্পস্থবক অর্পণ করা হয়। এদিকে বাংলাদেশ মিশনে আয়োজিত একুশের আলোচনায় ইউএন’র উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জাতিসংঘে মাতৃভাষা দিবস পালনের জন্য দাবী জানিয়েছেন মিশনে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন। অপরদিকে প্রবাসে আয়োজিত একুশের অনুষ্ঠানে বিশ্বের সকল ভাষা বাঁচিয়ে রাখার দাবীর পাশাপাশি নতুন প্রজন্মকে বাংলা ভাষা শিখানোর উপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, অমর একুশে ফেব্রুয়ারী বাংলাদেশের জনগণের গৌরবোজ্জ্বল একটি দিন। এটি শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবেও সুপরিচিত। বাঙালী জনগণের মায়ের ভাষা ‘বাংলা ভাষা’র মর্যাদা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের মর্মন্তুদ ও গৌরবোজ্জ্বল স্মৃতিবিজড়িত একটি দিন হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। ১৯৫২ সালের এই দিনে (৮ ফালগুন, ১৩৫৯) বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবিতে আন্দোলনরত ছাত্রদের ওপর পুলিশের গুলিবর্ষণে রফিক, সালাম, জব্বার সহ কয়েকজন তরুণ শহীদ হন। ফলে দিনটি ‘শহীদ দিবস’ হিসেবে চিহ্নিত হয়। কানাডার ভ্যানকুভার শহরে বসবাসরত দুই বাংলাদেশী রফিকুল ইসলাম (মরহুম) এবং আবদুস সালাম প্রাথমিক উদ্যোক্তা হিসেবে একুশে ফেব্রুয়ারীকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণার জন্য ১৯৯৮ সালে জাতিসংঘের মহাসচিব কফি আনানের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন। তাদের এই আবেদনের পর গণ প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার সহ বিভিন্ন মহলের দাবীর প্রেক্ষিতে ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনেস্কোর প্যারিস অধিবেশনে একুশে ফেব্রুয়ারীকে ‘আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং ২০০০ সালের ২১ ফেব্রুয়ারী থেকে দিবসটি জাতিসংঘের সদস্যদেশসমূহে যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে। ২০১০ সালের ২১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে ‘এখন থেকে প্রতিবছর একুশে ফেব্রুয়ারী আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করবে জাতিসংঘ’ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাব সর্বসম্মতভাবে পাস হয়। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের প্রস্তাবটি সাধারণ পরিষদের ৬৫তম অধিবেশনে উত্থাপন করে বাংলাদেশ। একই বছরের মে মাসে ১১৩ সদস্যবিশিষ্ট জাতিসংঘের তথ্যবিষয়ক কমিটিতে প্রস্তাবটি সর্বসম্মতভাবে পাস হয়।
মহান শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষে মুক্তধারা ফাউন্ডেশন ও বাঙালীর চেতনা মঞ্চের উদ্যোগে জাতিসংঘ সদর দফতরের সামনে, জাতিসংঘের বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন ম্যানহাটানস্থ মিশন কার্যালয়ে, নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেট এস্টোরিয়াস্থ কনস্যুলেট অফিসে, যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশীদের মাদার সংগঠন হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশ সোসাইটি ইন্ক সিটির জ্যাকসন হাইটস্থ নান্দুস ব্যাঙ্কুইট হলে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলামনাই এসোসিয়েশন ইউএসএ ইনক এস্টোরিয়ার এনটিভি ভবনে, জ্যামাইকা বাংলাদেশ ফ্রেন্ডস সোসাইটি স্থানীয় হিলসাইড এভিনিউস্থ এক্সিট রিয়েলটি মিলনায়তনে, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, যুক্তরাষ্ট্র কমান্ড নিউইয়র্কের জ্যাকসন হাইটস্থ ডাইভার সিটি প্লাজায়, কুইন্স বরো যুবলীগ ওজনপার্কে অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে।
যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসি, পেনসেলভেনিয়া, নিউজার্সী, ফ্লোরিডা, টেক্সাস, মিশিগান, জর্জিয়া, বোস্টন, ক্যালিফোর্নিয়া প্রভৃতি অঙ্গরাজ্য ছাড়াও কানাডায় অমর একুশে শহীদ দিবস তথা আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের খবর পাওয়া গেছে।