নিউইয়র্ক ১২:১০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

৩৩ জনের দাফন : গ্রামে শোকের মাতম

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:৪৮:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ অক্টোবর ২০১৪
  • / ৯৮৪ বার পঠিত

নাটোরের বড়াইগ্রামে স্মরনকালের ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় নিহত ৩৩ জনের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। জানাজা আর দাফনের সময় উপস্থিত স্বজন আর জনতার উচ্চস্বরের কান্নায় ভারি হয়ে ওঠে এলাকার আকাশ বাতাস।

নিহতদের জানাজার জন্য বাড়ি থেকে লাশগুলো স্কুল মাঠে নেয়ার সময় পুরো সিধুলী গ্রামে কান্নার রোল পড়ে যায়। এই হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখে জানাজায় আগত দুই উপজেলার হাজারো মানুষ তাদের চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি।

জানাজা পূর্ব সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, গুরুদাসপুর পৌরসভার মেয়র শাহনেওয়াজ মোল্লা।

ইতোমধ্যে ওই দুর্ঘটনায় নিহত ৩৩টি লাশের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে গুরুদাসপুরের সিধুলী গ্রামে এক পরিবারের ৬ ভাইসহ ১৪ জন, শিকারপাড়া ফাজিল মাদরাসার প্রভাষক রেজাউল করিম, বৃ-চাপিলা গ্রামের বাবুল (৪০), আব্দুল আওয়াল (৩০), পাটপাড়া গ্রামের জকের আলী, সোনাবাজু গ্রামের আবু হানিফ, চাঁচকৈড় বাজারের আলহাজ্ব আবুল খায়ের (৬৫), এবং অথৈ পরিবহনের মালিক ও চালক আলম হোসেন (৪০) ও পৌর সদরে এলজিইডির একজনের দাফন হয়েছে।

অন্যদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলার পিঙ্গইনে নিহত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুসের, সংগ্রামপুরে আব্দুর রহমান (৪৫) ও তার স্ত্রী আরিফা বেগমের, একই এলাকার বাজিতপুর গ্রামে আয়নাল হক (৩২) ও  কিসমত আলীর (৪৫), জালশুকা গ্রামের মনিরুল ইসলাম ও তার ভাগ্নী সেবা ওরফে মোহনা (৮) এবং তারানগর গ্রামে কলেজ শিক্ষক জামাল হোসেন ও তার মেয়ে জান্নাতী খাতুনের (৬) জানাজা হয়েছে।

অন্যদিকে নিহত এলজিইডির গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী হাফিজুর রহমানের (৬০) লাশ রাতেই উপজেলা প্রশাসন তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়াতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়াসমিন আক্তার।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘটনাস্থল, হাসপাতাল ও সিধুলী গ্রাম পরিদর্শণে যান।

মন্ত্রী সোমবার রাত ১টার দিকে গুরুদাসপুরের সিধুলী গ্রামের হতাহতদের দেখতে সেখানে গেলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। মন্ত্রী সেখানে নিহত প্রত্যেককে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নগদ এক লাখ টাকা করে অনুদান দেয়ার ঘোষণা দেন।

নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক জানান, নিহতদের প্রায় সকলেই জেলার বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলার অধিবাসী হওয়ায় স্বজনদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বনপাড়া হাইওয়ে  পুলিশ ফাঁড়ি থেকে লাশগুলো হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, দুপুরের মধ্যেই ৩৩টি লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে এবং দুর্ঘটনায় নিহত এলজিইডির গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী হাফিজুর রহমানের (৬০) লাশ রাতেই উপজেলা প্রশাসন তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়াতে পাঠানো হয়েছে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

৩৩ জনের দাফন : গ্রামে শোকের মাতম

প্রকাশের সময় : ০৮:৪৮:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ অক্টোবর ২০১৪

নাটোরের বড়াইগ্রামে স্মরনকালের ভয়াবহ বাস দুর্ঘটনায় নিহত ৩৩ জনের পরিবারে চলছে শোকের মাতম। জানাজা আর দাফনের সময় উপস্থিত স্বজন আর জনতার উচ্চস্বরের কান্নায় ভারি হয়ে ওঠে এলাকার আকাশ বাতাস।

নিহতদের জানাজার জন্য বাড়ি থেকে লাশগুলো স্কুল মাঠে নেয়ার সময় পুরো সিধুলী গ্রামে কান্নার রোল পড়ে যায়। এই হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখে জানাজায় আগত দুই উপজেলার হাজারো মানুষ তাদের চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি।

জানাজা পূর্ব সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- স্থানীয় সংসদ সদস্য সাবেক প্রতিমন্ত্রী অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস ও উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ, গুরুদাসপুর পৌরসভার মেয়র শাহনেওয়াজ মোল্লা।

ইতোমধ্যে ওই দুর্ঘটনায় নিহত ৩৩টি লাশের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে গুরুদাসপুরের সিধুলী গ্রামে এক পরিবারের ৬ ভাইসহ ১৪ জন, শিকারপাড়া ফাজিল মাদরাসার প্রভাষক রেজাউল করিম, বৃ-চাপিলা গ্রামের বাবুল (৪০), আব্দুল আওয়াল (৩০), পাটপাড়া গ্রামের জকের আলী, সোনাবাজু গ্রামের আবু হানিফ, চাঁচকৈড় বাজারের আলহাজ্ব আবুল খায়ের (৬৫), এবং অথৈ পরিবহনের মালিক ও চালক আলম হোসেন (৪০) ও পৌর সদরে এলজিইডির একজনের দাফন হয়েছে।

অন্যদিকে বড়াইগ্রাম উপজেলার পিঙ্গইনে নিহত মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুসের, সংগ্রামপুরে আব্দুর রহমান (৪৫) ও তার স্ত্রী আরিফা বেগমের, একই এলাকার বাজিতপুর গ্রামে আয়নাল হক (৩২) ও  কিসমত আলীর (৪৫), জালশুকা গ্রামের মনিরুল ইসলাম ও তার ভাগ্নী সেবা ওরফে মোহনা (৮) এবং তারানগর গ্রামে কলেজ শিক্ষক জামাল হোসেন ও তার মেয়ে জান্নাতী খাতুনের (৬) জানাজা হয়েছে।

অন্যদিকে নিহত এলজিইডির গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী হাফিজুর রহমানের (৬০) লাশ রাতেই উপজেলা প্রশাসন তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়াতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন গুরুদাসপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইয়াসমিন আক্তার।

এর আগে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ঘটনাস্থল, হাসপাতাল ও সিধুলী গ্রাম পরিদর্শণে যান।

মন্ত্রী সোমবার রাত ১টার দিকে গুরুদাসপুরের সিধুলী গ্রামের হতাহতদের দেখতে সেখানে গেলে এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারনা হয়। মন্ত্রী সেখানে নিহত প্রত্যেককে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে নগদ এক লাখ টাকা করে অনুদান দেয়ার ঘোষণা দেন।

নাটোরের পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক জানান, নিহতদের প্রায় সকলেই জেলার বড়াইগ্রাম ও গুরুদাসপুর উপজেলার অধিবাসী হওয়ায় স্বজনদের সুবিধার কথা বিবেচনা করে বনপাড়া হাইওয়ে  পুলিশ ফাঁড়ি থেকে লাশগুলো হস্তান্তর করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, দুপুরের মধ্যেই ৩৩টি লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে এবং দুর্ঘটনায় নিহত এলজিইডির গুরুদাসপুর উপজেলা প্রকৌশলী হাফিজুর রহমানের (৬০) লাশ রাতেই উপজেলা প্রশাসন তার গ্রামের বাড়ি কুষ্টিয়াতে পাঠানো হয়েছে।