নিউইয়র্ক ০১:২৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

সারা দেশে ভূমিকম্প অনুভূত : উদ্বিগ্ন প্রবাসীরা

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ১১:৩০:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৫
  • / ১০১৭ বার পঠিত

ঢাকা: রাজধানীসহ ঢাকা সহ সারা দেশে শনিবার (২৫ এপ্রিল) ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে এতে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। তবে অনেক স্থানে বহুতল ভবন হেলে পড়েছে। ভূমিকম্পের আতংকে তাড়াহুড়ো করে ঘর বা ভবন থেকে রাস্তায় বের হওয়ার সময় বহুলোক আহত হয়েছে। শনিবার বেলা ১২টা ১১ মিনিট ২৭ সেকেন্ডে ঢাকায় ভূমিকম্প অনুভূত হয় বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে। নেপালের লামজুংয়ের ২৯ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্বে ৭ দশমিক ৯ মাত্রার এই ভূমিকম্পের উৎপত্তি হয় বলে ইউএসজিএস জানিয়েছে। অপরদিকে ঢাকাস্থ আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মাহমুদুল হক ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ঢাকা থেকে ৭৪৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বলে জানিয়েছেন। ইউএসজিএসের তথ্য অনুযায়ী প্রথম দফা শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর এ এলাকায় আরো পাঁচটি পরাঘাত হয়।
Earthquake_Kamal+Ataturk+Avenueভূমিকম্পে ঢাকায় কামাল আতাতুর্ক এভিনিউস্থ বিশালাকারের ভবনসহ একাধিক বহুতল ভবন হেলে পড়েছে বা ফাটল দেখা দিয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অনেক ভবন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ভূমিকম্প আতংকের মানুষজন রাস্তায় নেমে আসে। এদিকে বাংলাদেশে ভূমিকম্পের খবরে উত্তর আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন অনেকেই। অনেকে প্রবাসী ফোন করে আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ-খবর নেন।
Earthquock Bhuapur_24 April'2015টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ৪০ শিক্ষার্থী আহত: ভূমিকম্পে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রায় ৪০ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ১১ জনকে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলো, ৬ষ্ঠ শ্রেণির মাসুদা, কানিজ ফাতেমা, আঁঁখি, লিজা খাতুন, শাহিনুর, রুমি, মাসুরা, ফাতেমা ও লিজা, ৭ম শ্রেণির মুনিয়া ও লামিয়া। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিদ্যালয়টির সহকারি শিক্ষিকা রেজিয়া জানান, শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় তলা থেকে নিচে নামতে দিক-বিদিক ছুটোছুটি করতে থাকে। দ্বিতীয় তলার ৬টি কক্ষে প্রায় ৪০০জন শিক্ষার্থী ছিল। আর ভবনের সিঁড়ি ছিল একটি। ফলে সিঁড়ি দিয়ে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে একজনের উপর আরেকজন পড়ে গিয়ে আহতের ঘটনা ঘটে। এছাড়া এ ঘটনায় অনেক শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।
আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম এডভোকেট, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হেলালুজ্জামান সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান সাহিনুল ইসলাম তরফদার বাদল প্রমুখ।
Earthquock Pabna_24 April'2015পাবনায় ৬৪ শিক্ষার্থী অজ্ঞান: পাবনার সুজানগর ও চাটমোহর উপজেলায় ভূমিকম্পের প্রভাবে শিক্ষক ও দুই স্কুলের অন্তত ৬৪ শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার শহীদ দুলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও চাটমোহর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এতে অভিভাবক মহলে চরম উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। সুজানগর উপজেলার শহীদ দুলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক ও ৪০ শিক্ষার্থী এবং চাটমোহর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৪ জন শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এদের মধ্যে চাটমোহরের নয় স্কুল ছাত্রীকে অজ্ঞান অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটের দিকে জোরালো ভূমিকম্পে চাটমোহরে বিদ্যালয়ের ভবনসহ চেয়ার টেবিল নড়ে উঠলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রচন্ড আতঙ্ক দেখা দেয়। এক পর্যায়ে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আফরোজা পারভীনসহ ৬ষ্ঠ থেকে ১০ শ্রেণির অন্তত ৪০ শিক্ষার্থী পর্যায়ক্রমে জ্ঞান হারিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ২০ শিক্ষার্থীকে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে অভিভাবকরা ভ্যানসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে বিদ্যালয়ে ছুটে আসেন। এর পরপর বিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করা হলে সন্তানদের নিয়ে বাড়ি ফিরে যান অভিবাবকরা।
অন্যদিকে চাটমোহর স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা আলহাজ্ব আনোয়ারা বেগম জানান, ভূমিকম্পের সময় সকল শিক্ষার্থীকে বাইরে বের হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। এক পর্যায়ে ভীত হয়ে কয়েকজন ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি মেডিক্যাল টিম বিদ্যালয়ে গিয়ে চিকিৎসা দেয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার সেলিম মোরশেদ বলেন, ‘স্নায়ু দুর্বল মেয়েরা কোন কিছুতে ভয় পেলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এ ক্ষেত্রে একজন মেয়ে জ্ঞান হারালে তার পাশে থাকা অন্য মেয়েরাও জ্ঞান হারাতে পারে। যেহেতু ভূমিকম্প একটি আতঙ্কের ব্যাপার সেহেতু শিক্ষার্থীরা ভয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। তবে এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। সাধারণ চিকিৎসায় তারা ভাল হয়ে যাবে।’
Earthquock AWmn_24 April'2015ফেনীতে ১০তলা ভবনে ফাটল: ফেনীতে ভূমিকম্পে শহরের এসএসকে সড়কস্থ ১০তলা বিশিষ্ট শাহ আলম টাওয়ারে তিন তলা থেকে দশ তলা পর্যন্ত সিড়ি বরাবর নীচে লম্বা চিকন ফাটল দেখা দিয়েছে। শনিবার দুপুর সাড়ে ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। টেকনিকেল কমিটির রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত টাওয়ারটি তালাবদ্ধ থাকবে বলে ঘোষণা দিয়ে বন্ধ করে দেয় ফেনী জেলা প্রশাসন। এসময় ফেনী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিকেএম এনামুল করিম ভবনটির গেটে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকার ঘোষনার নোটিশ ঝুলিয়ে দেন। ফেনী জেলা প্রশাসন, গণপূর্ত, পৌরসভা, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ভূমিকম্পে শহরের এসএসকে সড়কের ১০ তলার শাহ আলম টাওয়ারে তিন তলা থেকে ১০তলা পর্যন্ত সিঁড়িতে ফাটল দেখা দেয়। তাৎক্ষণিকভাবে জেলা প্রশাসন, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের সদস্য ও প্রকৌশলীরা এসে টাওয়ারে অবস্থিত ব্যাংক, বীমাসহ সকল বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়।
খবর পেয়ে ফেনী ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার খন্দকার সানাউল হক, ফেনী গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী জুয়েল আহমেদ, ফেনী পৌরসভার কাউন্সিলর মো. সাইফুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিকেএম এনামুল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ এনামুল হক ও এলজিইডির প্রকৌশলীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

সারা দেশে ভূমিকম্প অনুভূত : উদ্বিগ্ন প্রবাসীরা

প্রকাশের সময় : ১১:৩০:০৯ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৫

ঢাকা: রাজধানীসহ ঢাকা সহ সারা দেশে শনিবার (২৫ এপ্রিল) ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। তাৎক্ষণিকভাবে এতে ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি। তবে অনেক স্থানে বহুতল ভবন হেলে পড়েছে। ভূমিকম্পের আতংকে তাড়াহুড়ো করে ঘর বা ভবন থেকে রাস্তায় বের হওয়ার সময় বহুলোক আহত হয়েছে। শনিবার বেলা ১২টা ১১ মিনিট ২৭ সেকেন্ডে ঢাকায় ভূমিকম্প অনুভূত হয় বলে আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে। নেপালের লামজুংয়ের ২৯ কিলোমিটার দক্ষিণ পূর্বে ৭ দশমিক ৯ মাত্রার এই ভূমিকম্পের উৎপত্তি হয় বলে ইউএসজিএস জানিয়েছে। অপরদিকে ঢাকাস্থ আবহাওয়া অধিদপ্তরের উপ পরিচালক মাহমুদুল হক ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ঢাকা থেকে ৭৪৫ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে বলে জানিয়েছেন। ইউএসজিএসের তথ্য অনুযায়ী প্রথম দফা শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর এ এলাকায় আরো পাঁচটি পরাঘাত হয়।
Earthquake_Kamal+Ataturk+Avenueভূমিকম্পে ঢাকায় কামাল আতাতুর্ক এভিনিউস্থ বিশালাকারের ভবনসহ একাধিক বহুতল ভবন হেলে পড়েছে বা ফাটল দেখা দিয়েছে। পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত অনেক ভবন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ভূমিকম্প আতংকের মানুষজন রাস্তায় নেমে আসে। এদিকে বাংলাদেশে ভূমিকম্পের খবরে উত্তর আমেরিকা প্রবাসী বাংলাদেশীদের মধ্যেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন অনেকেই। অনেকে প্রবাসী ফোন করে আত্মীয়-স্বজনদের খোঁজ-খবর নেন।
Earthquock Bhuapur_24 April'2015টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ৪০ শিক্ষার্থী আহত: ভূমিকম্পে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রায় ৪০ শিক্ষার্থী আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ১১ জনকে ভূঞাপুর উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। এরা হলো, ৬ষ্ঠ শ্রেণির মাসুদা, কানিজ ফাতেমা, আঁঁখি, লিজা খাতুন, শাহিনুর, রুমি, মাসুরা, ফাতেমা ও লিজা, ৭ম শ্রেণির মুনিয়া ও লামিয়া। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় শিক্ষার্থীদের অভিভাবকের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। বিদ্যালয়টির সহকারি শিক্ষিকা রেজিয়া জানান, শিক্ষার্থীরা দ্বিতীয় তলা থেকে নিচে নামতে দিক-বিদিক ছুটোছুটি করতে থাকে। দ্বিতীয় তলার ৬টি কক্ষে প্রায় ৪০০জন শিক্ষার্থী ছিল। আর ভবনের সিঁড়ি ছিল একটি। ফলে সিঁড়ি দিয়ে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে একজনের উপর আরেকজন পড়ে গিয়ে আহতের ঘটনা ঘটে। এছাড়া এ ঘটনায় অনেক শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে।
আহতদের দেখতে হাসপাতালে যান উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল হালিম এডভোকেট, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ হেলালুজ্জামান সরকার, ভাইস চেয়ারম্যান সাহিনুল ইসলাম তরফদার বাদল প্রমুখ।
Earthquock Pabna_24 April'2015পাবনায় ৬৪ শিক্ষার্থী অজ্ঞান: পাবনার সুজানগর ও চাটমোহর উপজেলায় ভূমিকম্পের প্রভাবে শিক্ষক ও দুই স্কুলের অন্তত ৬৪ শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার শহীদ দুলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ও চাটমোহর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে। এতে অভিভাবক মহলে চরম উৎকণ্ঠা দেখা দিয়েছে। সুজানগর উপজেলার শহীদ দুলাল পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষক ও ৪০ শিক্ষার্থী এবং চাটমোহর পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ২৪ জন শিক্ষার্থী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এদের মধ্যে চাটমোহরের নয় স্কুল ছাত্রীকে অজ্ঞান অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সূত্রে জানা গেছে, দুপুর ১২টা ১৫ মিনিটের দিকে জোরালো ভূমিকম্পে চাটমোহরে বিদ্যালয়ের ভবনসহ চেয়ার টেবিল নড়ে উঠলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে প্রচন্ড আতঙ্ক দেখা দেয়। এক পর্যায়ে বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আফরোজা পারভীনসহ ৬ষ্ঠ থেকে ১০ শ্রেণির অন্তত ৪০ শিক্ষার্থী পর্যায়ক্রমে জ্ঞান হারিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ২০ শিক্ষার্থীকে সুজানগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করানো হয়েছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়লে অভিভাবকরা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে অভিভাবকরা ভ্যানসহ বিভিন্ন যানবাহনে করে বিদ্যালয়ে ছুটে আসেন। এর পরপর বিদ্যালয় ছুটি ঘোষণা করা হলে সন্তানদের নিয়ে বাড়ি ফিরে যান অভিবাবকরা।
অন্যদিকে চাটমোহর স্কুলের প্রধান শিক্ষিকা আলহাজ্ব আনোয়ারা বেগম জানান, ভূমিকম্পের সময় সকল শিক্ষার্থীকে বাইরে বের হওয়ার নির্দেশ দেয়া হয়। এক পর্যায়ে ভীত হয়ে কয়েকজন ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একটি মেডিক্যাল টিম বিদ্যালয়ে গিয়ে চিকিৎসা দেয়। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার সেলিম মোরশেদ বলেন, ‘স্নায়ু দুর্বল মেয়েরা কোন কিছুতে ভয় পেলে জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এ ক্ষেত্রে একজন মেয়ে জ্ঞান হারালে তার পাশে থাকা অন্য মেয়েরাও জ্ঞান হারাতে পারে। যেহেতু ভূমিকম্প একটি আতঙ্কের ব্যাপার সেহেতু শিক্ষার্থীরা ভয়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলেছে। তবে এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। সাধারণ চিকিৎসায় তারা ভাল হয়ে যাবে।’
Earthquock AWmn_24 April'2015ফেনীতে ১০তলা ভবনে ফাটল: ফেনীতে ভূমিকম্পে শহরের এসএসকে সড়কস্থ ১০তলা বিশিষ্ট শাহ আলম টাওয়ারে তিন তলা থেকে দশ তলা পর্যন্ত সিড়ি বরাবর নীচে লম্বা চিকন ফাটল দেখা দিয়েছে। শনিবার দুপুর সাড়ে ১১ টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। টেকনিকেল কমিটির রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত টাওয়ারটি তালাবদ্ধ থাকবে বলে ঘোষণা দিয়ে বন্ধ করে দেয় ফেনী জেলা প্রশাসন। এসময় ফেনী সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিকেএম এনামুল করিম ভবনটির গেটে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকার ঘোষনার নোটিশ ঝুলিয়ে দেন। ফেনী জেলা প্রশাসন, গণপূর্ত, পৌরসভা, পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় ভূমিকম্পে শহরের এসএসকে সড়কের ১০ তলার শাহ আলম টাওয়ারে তিন তলা থেকে ১০তলা পর্যন্ত সিঁড়িতে ফাটল দেখা দেয়। তাৎক্ষণিকভাবে জেলা প্রশাসন, পুলিশ, ফায়ার সার্ভিসের সদস্য ও প্রকৌশলীরা এসে টাওয়ারে অবস্থিত ব্যাংক, বীমাসহ সকল বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেয়।
খবর পেয়ে ফেনী ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার খন্দকার সানাউল হক, ফেনী গণপূর্ত বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী জুয়েল আহমেদ, ফেনী পৌরসভার কাউন্সিলর মো. সাইফুর রহমান, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার পিকেএম এনামুল করিম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ এনামুল হক ও এলজিইডির প্রকৌশলীরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ভবনটিকে ঝুঁকিপূর্ণ চিহ্নিত করে।