নিউইয়র্ক ১২:১৪ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

নাশকতা এড়াতে ৬৮ কারাগারে নিরাপত্তা জোরদার

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০২:০০:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৪ নভেম্বর ২০১৫
  • / ৮০৫ বার পঠিত

ঢাকা: দেশের ৬৮টি কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সিআইডি ও কারা গোয়েন্দা সদস্যদের নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যেকোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে মঙ্গলবার রাতে সরকার এই নির্দেশ দিয়েছেন বলে কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির নিশ্চিত করেছেন। কারা অধিদপ্তরের ভাষ্যমতে, সম্প্রতি একের পর এক অনাকাঙ্ক্ষিত হত্যাকাণ্ড ঘটে চলেছে। এ কারণেই সতর্কতামূলক এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা। কারা সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে অন্যান্য কারাগারগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের নির্দেশনা-বার্তা পাঠানো হয়েছে। ইতোমধ্যে কারাগারের মূল ফটক ও আশপাশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। কারাগারে আসা দর্শনার্থীদের তল্লাশি করে ভেতরে প্রবেশ করানো হচ্ছে। পাশাপাশি দর্শনার্থীদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র ও ব্যাগ তল্লাশি করা হচ্ছে। একারণে বাড়তি পুলিশ ও র‌্যাবের সহযোগিতা চেয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার মাহিউল আলম বলেন, ‘নাশকতা প্রতিরোধে সর্তকতার অংশ হিসেবে কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।’ কাশিমপুর কারাগারকে এক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।  বিএনপি জামায়াতের শীর্ষ নেতা, সাবেক মন্ত্রী, বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী, যুদ্ধাপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবির সদস্যসহ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দিরা রয়েছেন এই কারাগারে। কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের পার্ট-২ এর জেল সুপার প্রশান্ত কুমার জানান, নাশকতা এড়াতে কেন্দ্রীয় নিদের্শনার প্রেক্ষিতে কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

নাশকতা এড়াতে ৬৮ কারাগারে নিরাপত্তা জোরদার

প্রকাশের সময় : ০২:০০:৫২ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৪ নভেম্বর ২০১৫

ঢাকা: দেশের ৬৮টি কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সিআইডি ও কারা গোয়েন্দা সদস্যদের নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। যেকোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে মঙ্গলবার রাতে সরকার এই নির্দেশ দিয়েছেন বলে কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির নিশ্চিত করেছেন। কারা অধিদপ্তরের ভাষ্যমতে, সম্প্রতি একের পর এক অনাকাঙ্ক্ষিত হত্যাকাণ্ড ঘটে চলেছে। এ কারণেই সতর্কতামূলক এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা। কারা সদর দপ্তরের পক্ষ থেকে অন্যান্য কারাগারগুলোতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারের নির্দেশনা-বার্তা পাঠানো হয়েছে। ইতোমধ্যে কারাগারের মূল ফটক ও আশপাশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। কারাগারে আসা দর্শনার্থীদের তল্লাশি করে ভেতরে প্রবেশ করানো হচ্ছে। পাশাপাশি দর্শনার্থীদের ব্যবহৃত জিনিসপত্র ও ব্যাগ তল্লাশি করা হচ্ছে। একারণে বাড়তি পুলিশ ও র‌্যাবের সহযোগিতা চেয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ। র‌্যাব-১ এর কোম্পানি কমান্ডার মাহিউল আলম বলেন, ‘নাশকতা প্রতিরোধে সর্তকতার অংশ হিসেবে কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।’ কাশিমপুর কারাগারকে এক্ষেত্রে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।  বিএনপি জামায়াতের শীর্ষ নেতা, সাবেক মন্ত্রী, বিভিন্ন স্তরের নেতাকর্মী, যুদ্ধাপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত নিষিদ্ধ ঘোষিত জেএমবির সদস্যসহ মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত বন্দিরা রয়েছেন এই কারাগারে। কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগারের পার্ট-২ এর জেল সুপার প্রশান্ত কুমার জানান, নাশকতা এড়াতে কেন্দ্রীয় নিদের্শনার প্রেক্ষিতে কারাগারে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে।