নিউইয়র্ক ১২:৪৭ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

দেশে ফিরেছেন বিজিবি নায়েক রাজ্জাক : পরিবারে স্বস্তি

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৭:০০:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০১৫
  • / ৯৬৯ বার পঠিত

ঢাকা: আট দিন মিয়ানমারে বন্দি থাকার পর অবশেষে দেশে ফিরেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর নায়েক আব্দুর রাজ্জাক। বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে তাকে নিয়ে টেকনাফে পৌঁছে বিজিবি প্রতিনিধি দল। অপহরণের আট দিন পর বৃহস্পতিবার দুপুরে মিয়ানমারের মংডু টাউনশিপে এক পতাকা বৈঠকের পর বিকাল সোয়া ৪টার দিকে বিজিবি প্রতিনিধিদলের কাছে আবদুর রাজ্জাককে হস্তান্তর করে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি। কোনো শর্ত ছাড়াই তাকে মুক্তি দিয়েছে বিজিপি। অপহরণের সময় রাজ্জাকের সঙ্গে থাকা অস্ত্র ও গুলিও ফেরত দেয়া হয়েছে।
বিজিবির কক্সবাজার সেক্টরের অতিরিক্ত পরিচালক (অপারেশন) মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৪টার দিকে বিজিবির টেকনাফ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু জার আল জাহিদের কাছে রাজ্জাককে হস্তান্তর করেন ২ নম্বর বিজিপির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল পি হান।
এর আগে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায় বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৯টায় তীব্র ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে টেকনাফস্থ বিজিবি ৪২ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবু জার আল জাহিদের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের বিজিবি প্রতিনিধি দল টেকনাফ স্থল বন্দরের ইমিগ্রেশন জেটি দিয়ে কোস্টগার্ড এর দুটি হাইস্পিড বোটে মিয়ানমারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন।
BGB Rajjak_Wife-Sanরাজ্জাকের পরিবারে স্বস্তি: এদিকে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কাছ থেকে বিজিবির নায়েক আব্দুর রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরে তার পরিবারে স্বস্তি ফিরে এসেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মিয়ানমার থেকে ছাড়া পায় নায়েক রাজ্জাক। টিভিতে এ খবর দেখে নাটোরের সিংড়া উপজেলার বড়বাড়িয়ায় তার গ্রামের বাড়িতে আনন্দের ঢেউ বয়ে যায়। এতে প্রতিবেশীরাও যোগ দেন। রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরে তার বাড়িতে শুকরিয়া মোনাজাত করা হয়। রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরের পর সদ্যোজাত সন্তান ও অন্য দুই সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে আসেন রাজ্জাকের স্ত্রী আসমা বেগম। তিনি বলেন, নবজাতককে ওর বাবার কোলে তুলে দেয়ার অপেক্ষায় আছি। অন্য ছেলে-মেয়েরাও বাবাকে জড়িয়ে ধরার অপেক্ষায় আছে। বাবার ছাড়া পাওয়ার কথা শোনার পর থেকে খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে ছেলে-মেয়েরা টেলিভিশনের সামনে বসে থাকে বলেও জানান তিনি।
রাজ্জাকের মা বুলবুলি বেগম বলেন, ছেলে বাড়ি এলেই সদ্যোজাত নাতির নাম রাখা হবে। তার আকিকা করা হবে। এসব নিয়ে এরইমধ্যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি। ছেলেকে ফিরিয়ে আনায় সরকার ও বিজিবি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান রাজ্জাকের বাবা তোফাজ্জল হোসেন। শিগগিরই রাজ্জাককে সরাসরি দেখার আশা প্রকাশ করেন তিনি। এজন্য সাংবাদিকদের মাধ্যমে বিজিবি কর্তৃপক্ষের কাছে তার ছুটিও প্রার্থনা করেন।
উল্লেখ্য, গত ১৭ জুন কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে নাফ নদীতে গোলাগুলির পর বিজিবির নায়েক রাজ্জাককে ধরে নিয়ে যায় মিয়নামারের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী-বিজিপির সদস্যরা। এরইমধ্যে নায়েক রাজ্জাকের দুটো ছবি প্রকাশ করা হয়, যাতে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় হাতকড়া হাতে দেখা যায়। পরে তাকে হাতকড়া পরিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার ছবি ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। দেশে-বিদেশে এ ঘটনার ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। এ অবস্থায় রাজ্জাকের স্ত্রী আসমা বেগম গত রোববার (২১ জুন) সকালে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। অনেক আলোচনা-সমালোচনার পর পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে আজ তাকে ফিরিয়ে দেয় মিয়ানমার। (দৈনিক যুগান্তর)

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

দেশে ফিরেছেন বিজিবি নায়েক রাজ্জাক : পরিবারে স্বস্তি

প্রকাশের সময় : ০৭:০০:৫৮ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৭ জুন ২০১৫

ঢাকা: আট দিন মিয়ানমারে বন্দি থাকার পর অবশেষে দেশে ফিরেছেন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর নায়েক আব্দুর রাজ্জাক। বৃহস্পতিবার (২৫ জুন) সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে তাকে নিয়ে টেকনাফে পৌঁছে বিজিবি প্রতিনিধি দল। অপহরণের আট দিন পর বৃহস্পতিবার দুপুরে মিয়ানমারের মংডু টাউনশিপে এক পতাকা বৈঠকের পর বিকাল সোয়া ৪টার দিকে বিজিবি প্রতিনিধিদলের কাছে আবদুর রাজ্জাককে হস্তান্তর করে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিজিপি। কোনো শর্ত ছাড়াই তাকে মুক্তি দিয়েছে বিজিপি। অপহরণের সময় রাজ্জাকের সঙ্গে থাকা অস্ত্র ও গুলিও ফেরত দেয়া হয়েছে।
বিজিবির কক্সবাজার সেক্টরের অতিরিক্ত পরিচালক (অপারেশন) মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার বিকাল সোয়া ৪টার দিকে বিজিবির টেকনাফ ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আবু জার আল জাহিদের কাছে রাজ্জাককে হস্তান্তর করেন ২ নম্বর বিজিপির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল পি হান।
এর আগে বাংলাদেশ সময় সকাল সাড়ে ১০টায় বিজিবি ও বিজিপির মধ্যে পতাকা বৈঠক শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৯টায় তীব্র ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে টেকনাফস্থ বিজিবি ৪২ ব্যাটালিয়ন অধিনায়ক লে. কর্ণেল আবু জার আল জাহিদের নেতৃত্বে ৬ সদস্যের বিজিবি প্রতিনিধি দল টেকনাফ স্থল বন্দরের ইমিগ্রেশন জেটি দিয়ে কোস্টগার্ড এর দুটি হাইস্পিড বোটে মিয়ানমারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন।
BGB Rajjak_Wife-Sanরাজ্জাকের পরিবারে স্বস্তি: এদিকে মিয়ানমারের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর কাছ থেকে বিজিবির নায়েক আব্দুর রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরে তার পরিবারে স্বস্তি ফিরে এসেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মিয়ানমার থেকে ছাড়া পায় নায়েক রাজ্জাক। টিভিতে এ খবর দেখে নাটোরের সিংড়া উপজেলার বড়বাড়িয়ায় তার গ্রামের বাড়িতে আনন্দের ঢেউ বয়ে যায়। এতে প্রতিবেশীরাও যোগ দেন। রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরে তার বাড়িতে শুকরিয়া মোনাজাত করা হয়। রাজ্জাকের ছাড়া পাওয়ার খবরের পর সদ্যোজাত সন্তান ও অন্য দুই সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে বাড়িতে উপস্থিত সাংবাদিকদের সামনে আসেন রাজ্জাকের স্ত্রী আসমা বেগম। তিনি বলেন, নবজাতককে ওর বাবার কোলে তুলে দেয়ার অপেক্ষায় আছি। অন্য ছেলে-মেয়েরাও বাবাকে জড়িয়ে ধরার অপেক্ষায় আছে। বাবার ছাড়া পাওয়ার কথা শোনার পর থেকে খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে ছেলে-মেয়েরা টেলিভিশনের সামনে বসে থাকে বলেও জানান তিনি।
রাজ্জাকের মা বুলবুলি বেগম বলেন, ছেলে বাড়ি এলেই সদ্যোজাত নাতির নাম রাখা হবে। তার আকিকা করা হবে। এসব নিয়ে এরইমধ্যে প্রস্তুতি শুরু হয়েছে বলেও জানান তিনি। ছেলেকে ফিরিয়ে আনায় সরকার ও বিজিবি কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান রাজ্জাকের বাবা তোফাজ্জল হোসেন। শিগগিরই রাজ্জাককে সরাসরি দেখার আশা প্রকাশ করেন তিনি। এজন্য সাংবাদিকদের মাধ্যমে বিজিবি কর্তৃপক্ষের কাছে তার ছুটিও প্রার্থনা করেন।
উল্লেখ্য, গত ১৭ জুন কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্তে নাফ নদীতে গোলাগুলির পর বিজিবির নায়েক রাজ্জাককে ধরে নিয়ে যায় মিয়নামারের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী-বিজিপির সদস্যরা। এরইমধ্যে নায়েক রাজ্জাকের দুটো ছবি প্রকাশ করা হয়, যাতে তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় হাতকড়া হাতে দেখা যায়। পরে তাকে হাতকড়া পরিয়ে রক্তাক্ত অবস্থায় শিকল দিয়ে বেঁধে রাখার ছবি ফেসবুকের মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। দেশে-বিদেশে এ ঘটনার ব্যাপক সমালোচনা শুরু হয়। এ অবস্থায় রাজ্জাকের স্ত্রী আসমা বেগম গত রোববার (২১ জুন) সকালে এক পুত্র সন্তানের জন্ম দেন। অনেক আলোচনা-সমালোচনার পর পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে আজ তাকে ফিরিয়ে দেয় মিয়ানমার। (দৈনিক যুগান্তর)