নিউইয়র্ক ১২:০০ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

গ্রেপ্তারের ভয়ে অন্যের হাত দিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল : ঢাকায় মির্জা আব্বাস, সালাম, মিন্টু, পিন্টু, রিপন, আনিসুল হক, সাঈদ খোকন, কবরী ও নাঈমের চট্টগ্রামে মনজুর, নাছির ও সোলায়মানের মনোনয়ন জমা : মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগ: নির্বাচন করতে পারছেন না মান্না

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ১১:৩১:১৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ মার্চ ২০১৫
  • / ১১৭৩ বার পঠিত

ঢাকা: জমে উঠছে আসন্ন ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। ঢাকা সিটির জন্য বিএনপি নেতাদের মধ্যে মির্জা আব্বাস, সালাম, মিন্টু, পিন্টু, রিপন এবং আওয়ামী লীগ সমর্থক ও নেতাদের মধ্যে আনিসুল হক, সাঈদ খোকন, কবরী ছাড়াও স্বতন্ত্র হিসেবে নাঈম হাসান এবং চট্টগ্রাম সিটির জন্য বিএনপির মনজুর, আওয়ামী লীগের নাছির ও জাতীয় পার্টির সোলায়মান আলম শেঠ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। চট্টগ্রামে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগ উঠেছে। রোববার (২৯ মার্চ) তারা স্ব স্ব এলাকার রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এদিকে নির্বাচন করতে পারছেন না মাহমুদুর রহমান মান্না। অপরদিকে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিলেও বিরোধী দল বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত প্রার্থীদের অধিকাংশই সশরীরে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যাননি। প্রার্থীদের প্রতিনিধিদের কেউ কেউ বলেছেন গ্রেফতারের ভয়ে প্রার্থীরা নিজে আসেননি। কয়েকজন মহিলা ছাড়া এমনকি বিএনপিপন্থী কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের অধিকাংশই নিজে রিটার্নিং অফিসারের অফিসে যাননি।
রোববার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়রপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা, ব্যবসায়ী আব্দুল আউয়াল মিন্টু। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বিএনপির তিন নেতা যথাক্রমে মির্জা আব্বাস, আব্দুস সালাম এবং নাসির উদ্দিন পিন্টু। এদের সবাই তাদের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তদের প্রায় সবার বিরুদ্ধেই নাশকতার মামলা রয়েছে। সাবেক এমপি নাসির উদ্দিন পিন্টু বর্তমানে কারাভোগ করছেন। তবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এম মঞ্জুর আলম নিজেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
অপরদিকে আওয়ামী লী সমর্থিত এবং আওয়ামী লীগের রাজনীতিদের সাথে জড়িতরা অবশ্য নিজেদের সমর্থকদের সাথে নিয়ে নিজেরাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনিসুল হক ঢাকা উত্তরের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র পদপ্রার্থী হলেও, সাবেক অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরীও মেয়র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। কবরী দাবি করেন, তার প্রতি দলের সমর্থন রয়েছে।
বিএনপি নেতাদের মনোনয়ন জমা: ঢাকা দক্ষিণে মেয়র পদের নির্বাচনে জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, ঢাকা মহানগর বিএনপির আহবায়ক মির্জা আব্বাস, কেন্দ্রীয় বিএনপির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম ও নাসির উদ্দিন পিন্টু। বিকাল চারটার দিকে মহানগর নাট্যমঞ্চে রিটানিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন মির্জা আব্বাসের আইনজীবি এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শাজাহান।
নাসির উদ্দিন পিন্টুর পক্ষে তার স্ত্রী দুপুরে মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিকেল সোয়া ৩টায় আব্দুস সালামের পক্ষে স্ত্রী ফাতেমা সালাম মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিকেল সাড়ে চারটায় আরেক প্রার্থী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ড. আসাদুজ্জামান রিপন মনোনয়নপত্র জমা দেন।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল আউয়াল মিন্টু। রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের রির্টানিং অফিসারের কার্যালয়ে আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাফসীর আউয়াল মনোনয়ন পত্র জমা দেন। এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, লেভেল পে¬য়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার দায়িত্ব ইসির। নির্বাচন কমিশনের উচিত নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি করা। তিনি বলেন, কেউ আদালতে মামলার পেছনে দৌড়াচ্ছে আর কেউ নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছে এটা হতে পারে না। সবার জন্য সমান সুযোগ থাকা উচিত।
আ.লীগ সমর্থক ও নেতাদের মনোনয়ন জমা: আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত দুই প্রার্থী আনিসুল হক এবং সাঈদ খোকন। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য আনিসুল হক এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য সাঈদ খোকন এ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাঈদ খোকন এবং বেলা ৩টার কিছু সময় পরে আনিসুল হক মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় তাদের সাথে আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী ঢাকা উত্তরের মেয়র পদের জন্য মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।
সাঈদ খোকন মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় তার সাথে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এমপি, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজসহ শতাধিক কর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন। মনোনয়ন জমা দেয়ার সময় কর্মী-সমর্থকরা বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় সাঈদ খোকন সাংবাদিকদের বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয়ের ব্যপারে তিনি শতভাগ আশাবাদী। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মিছিলকারীরা নিজের থেকেই এখানে এসেছেন’।
নির্বাচন করতে পারছেন না মান্না: ইচ্ছা থাকলেও ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন না নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তাকে নির্বাচনে অংশ নিতে নির্বাচন কমিশন, কারা কর্তৃপক্ষ ও আইন-শৃঙ্খলা রাক্ষাকারী বাহিনীসহ সরকার সহযোগিতা করেনি এমন অভিযোগে দিয়ে মান্নার পক্ষে নির্বাচনে অংশ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে নাগরিক ঐক্যে জানিয়েছে। রোববার গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে মান্নার প্রার্থী না হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে নাগরিক ঐক্য।
বিবৃতিতে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার ক্ষেত্রে কারাবন্দি মান্নার স্বাক্ষর সংগ্রহ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করার প্রতিবন্ধকতা দূর করা পক্ষে সম্ভব হয়নি। এ ক্ষেত্রে প্রশাসনিক ও অন্যান্য সহযোগিতার অভাব এবং তার শারীরিক সমস্যা প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ অবস্থায় মাহমুদুর রহমান মান্নার পক্ষে ডিসিসি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা তার সু-চিকিৎসার জন্য জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।
মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসে জরিমানা গুনলেন এক মেয়র প্রার্থী: মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসে রোববার জরিমানা গুণলেন এক মেয়র প্রার্থী।ঘটনাটি ঘটেছে ঢাকাস্থ আগাঁরগাওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটের ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অস্থায়ী রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে।
জানা গেছে, ঘোড়ার গাড়িতে রোববার দুপুরে নিজের ছবিযুক্ত ব্যানার নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ নাঈম হাসান। এসময় রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে কর্তব্যরত মেজিস্ট্রেট তাকে নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গের অভিযোগে জরিমানা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী নাঈম হাসানকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদন্ড দেন। আগাম প্রচারণার অভিযোগে তাকে এ জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম এ সাজা দেন।
সারোয়ার আলম জানান, নাঈম হাসান মনোনয়নপত্র জমা দিতে তার ছবি সম্বলিত ব্যানারসহ ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে আসেন। এটা একজন প্রার্থীর জন্য সুস্পষ্ট আচরণবিধি লঙ্ঘন। এ জন্য তাকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।
পরে জরিমানার টাকাসহ মনোনয়নপত্র জমা দেন এ প্রার্থী।
চট্টগ্রাম সিসি নির্বাচনে মনজুর ও নাছিরের মনোনয়নপত্র জমা: বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সদ্য পদত্যাগী মেয়র এম মনজুর আলম, শাসকদল আওয়ামী লীগের সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন এবং শাসক জোটের শরীক জাতীয় পার্টির সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সোলায়মান আলম শেঠসহ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীরা রোববার ঘটা করেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মনোয়নপত্র জমা দিতে গিয়ে শাসকদল আওয়ামী লীগের একজন বর্তমান মন্ত্রী ও সাবেক এক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন বিএনপির নেতারা।
চট্টগ্রাম বিএনপির দুই শীর্ষ নেতা আব্দুল¬াহ আল নোমান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকে সঙ্গে নিয়ে রোববার সকাল ৯টায় চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন সদ্য সাবেক মেয়র মনজুর। এসময় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-কোষাধ্যক্ষ সাবেক চাকসু ভিপি এস এম ফজলুল হক এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য চাকসু এজিএস মাহবুবুর রহমান শামীমও সঙ্গে ছিলেন।
মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর আব্দুল¬াহ আল নোমান সাংবাদিকদের বলেন, এর মাধ্যমে আমরা নির্বাচনী কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছি। কাউকে কটূক্তি না করে আমরা চট্টগ্রামকে সন্ত্রাস ও জলাবদ্ধতামুক্ত নগরী গড়ে তুলতে কাজ করে যাব। উল্লেখ্য, গত নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী মনজুর আবারো চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধানের দায়িত্ব নেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এসময় বিএনপি নেতা আব্দুল¬াহ আল নোমান সাংবাদিকদের চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এবং সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী হাছান মাহমুদের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করার কথা জানান। তিনি বলেন, আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ অভিযোগ দিয়েছি। এখন দেখতে চাই তিনি কী পদপে নেন।
সিটি নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে আমীর খসরু মাহমুদ বলেন, আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। নির্বাচন করার জন্যই আমরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। নির্বাচনে সব প্রার্থীর সমান সুযোগ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে বলেছি, ফলাফল ঘোষণার আগ পর্যন্ত সব প্রার্থীকে যাতে সমান সুযোগ দেয়া হয়।
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে মনজুর আলম বলেন, নিয়ম অনুযায়ী শুক্রবার আমি পদত্যাগ করে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। তফসিল অনুযায়ী অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আল্ল¬াহ যাকে নির্বাচিত করবেন তাকেই মেনে নেব।
সকাল ১১টার দিকে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে হাজির হয়ে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দেন শাসকজোট তথা মহাজোটের অন্যতম শরীক জাতীয় পার্টির নেতা সোলায়মান আলম শেঠ। এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান এবারের নির্বাচনে চমক দেখানোর কথা।
এদিকে নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে নিয়ে রোববার বেলা সোয়া ১২টার দিকে চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন শাসকদল আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন।
এ সময় প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ইসহাক মিয়া, সাবেক মন্ত্রী আফসারুল আমীন এমপি, এম এ লতিফ এমপি, সাবেক এমপি নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম উপস্থিত ছিলেন।
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে আ জ ম নাছির উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, জলাবদ্ধতা থেকে নগরবাসিকে স্থায়ীভাবে মুক্তি দেয়া তাঁর লক্ষ্য। নির্বাচিত হলে প্রথম কাজ হবে স্থায়ীভাবে জলাবদ্ধতা নিরসন। তিনি জনগণের সেবা করতে চান বলেও সাংবাদিকদের জানান।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

গ্রেপ্তারের ভয়ে অন্যের হাত দিয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল : ঢাকায় মির্জা আব্বাস, সালাম, মিন্টু, পিন্টু, রিপন, আনিসুল হক, সাঈদ খোকন, কবরী ও নাঈমের চট্টগ্রামে মনজুর, নাছির ও সোলায়মানের মনোনয়ন জমা : মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগ: নির্বাচন করতে পারছেন না মান্না

প্রকাশের সময় : ১১:৩১:১৩ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৯ মার্চ ২০১৫

ঢাকা: জমে উঠছে আসন্ন ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের নির্বাচন। ঢাকা সিটির জন্য বিএনপি নেতাদের মধ্যে মির্জা আব্বাস, সালাম, মিন্টু, পিন্টু, রিপন এবং আওয়ামী লীগ সমর্থক ও নেতাদের মধ্যে আনিসুল হক, সাঈদ খোকন, কবরী ছাড়াও স্বতন্ত্র হিসেবে নাঈম হাসান এবং চট্টগ্রাম সিটির জন্য বিএনপির মনজুর, আওয়ামী লীগের নাছির ও জাতীয় পার্টির সোলায়মান আলম শেঠ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। চট্টগ্রামে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লংঘনের অভিযোগ উঠেছে। রোববার (২৯ মার্চ) তারা স্ব স্ব এলাকার রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এদিকে নির্বাচন করতে পারছেন না মাহমুদুর রহমান মান্না। অপরদিকে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণের সিদ্ধান্ত নিলেও বিরোধী দল বিএনপির রাজনীতির সাথে জড়িত প্রার্থীদের অধিকাংশই সশরীরে মনোনয়নপত্র জমা দিতে যাননি। প্রার্থীদের প্রতিনিধিদের কেউ কেউ বলেছেন গ্রেফতারের ভয়ে প্রার্থীরা নিজে আসেননি। কয়েকজন মহিলা ছাড়া এমনকি বিএনপিপন্থী কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের অধিকাংশই নিজে রিটার্নিং অফিসারের অফিসে যাননি।
রোববার ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়রপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা, ব্যবসায়ী আব্দুল আউয়াল মিন্টু। অন্যদিকে ঢাকা দক্ষিণের জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন বিএনপির তিন নেতা যথাক্রমে মির্জা আব্বাস, আব্দুস সালাম এবং নাসির উদ্দিন পিন্টু। এদের সবাই তাদের প্রতিনিধিদের মাধ্যমে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তদের প্রায় সবার বিরুদ্ধেই নাশকতার মামলা রয়েছে। সাবেক এমপি নাসির উদ্দিন পিন্টু বর্তমানে কারাভোগ করছেন। তবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী এম মঞ্জুর আলম নিজেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন।
অপরদিকে আওয়ামী লী সমর্থিত এবং আওয়ামী লীগের রাজনীতিদের সাথে জড়িতরা অবশ্য নিজেদের সমর্থকদের সাথে নিয়ে নিজেরাই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আনিসুল হক ঢাকা উত্তরের আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র পদপ্রার্থী হলেও, সাবেক অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরীও মেয়র প্রার্থী হিসাবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। কবরী দাবি করেন, তার প্রতি দলের সমর্থন রয়েছে।
বিএনপি নেতাদের মনোনয়ন জমা: ঢাকা দক্ষিণে মেয়র পদের নির্বাচনে জন্য মনোনয়নপত্র জমা দিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য, ঢাকা মহানগর বিএনপির আহবায়ক মির্জা আব্বাস, কেন্দ্রীয় বিএনপির অর্থনৈতিক বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সালাম ও নাসির উদ্দিন পিন্টু। বিকাল চারটার দিকে মহানগর নাট্যমঞ্চে রিটানিং অফিসারের কাছে মনোনয়নপত্র জমা দেন মির্জা আব্বাসের আইনজীবি এ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শাজাহান।
নাসির উদ্দিন পিন্টুর পক্ষে তার স্ত্রী দুপুরে মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিকেল সোয়া ৩টায় আব্দুস সালামের পক্ষে স্ত্রী ফাতেমা সালাম মনোনয়নপত্র জমা দেন। বিকেল সাড়ে চারটায় আরেক প্রার্থী বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের সাবেক সভাপতি ড. আসাদুজ্জামান রিপন মনোনয়নপত্র জমা দেন।
ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল আউয়াল মিন্টু। রোববার দুপুর আড়াইটার দিকে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের রির্টানিং অফিসারের কার্যালয়ে আব্দুল আউয়াল মিন্টুর ছেলে তাফসীর আউয়াল মনোনয়ন পত্র জমা দেন। এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, লেভেল পে¬য়িং ফিল্ড নিশ্চিত করার দায়িত্ব ইসির। নির্বাচন কমিশনের উচিত নির্বাচনের সুষ্ঠু পরিবেশ তৈরি করা। তিনি বলেন, কেউ আদালতে মামলার পেছনে দৌড়াচ্ছে আর কেউ নির্বাচনী প্রচারনা চালাচ্ছে এটা হতে পারে না। সবার জন্য সমান সুযোগ থাকা উচিত।
আ.লীগ সমর্থক ও নেতাদের মনোনয়ন জমা: আসন্ন ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত দুই প্রার্থী আনিসুল হক এবং সাঈদ খোকন। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য আনিসুল হক এবং দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র পদে নির্বাচনের জন্য সাঈদ খোকন এ মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে সাঈদ খোকন এবং বেলা ৩টার কিছু সময় পরে আনিসুল হক মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ সময় তাদের সাথে আওয়ামী লীগের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। এদিকে অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী ঢাকা উত্তরের মেয়র পদের জন্য মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।
সাঈদ খোকন মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার সময় তার সাথে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী ড. আবদুর রাজ্জাক, ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস এমপি, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজসহ শতাধিক কর্মী-সমর্থক উপস্থিত ছিলেন। মনোনয়ন জমা দেয়ার সময় কর্মী-সমর্থকরা বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকে। এসময় সাঈদ খোকন সাংবাদিকদের বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জয়ের ব্যপারে তিনি শতভাগ আশাবাদী। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘মিছিলকারীরা নিজের থেকেই এখানে এসেছেন’।
নির্বাচন করতে পারছেন না মান্না: ইচ্ছা থাকলেও ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন না নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। তাকে নির্বাচনে অংশ নিতে নির্বাচন কমিশন, কারা কর্তৃপক্ষ ও আইন-শৃঙ্খলা রাক্ষাকারী বাহিনীসহ সরকার সহযোগিতা করেনি এমন অভিযোগে দিয়ে মান্নার পক্ষে নির্বাচনে অংশ নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে নাগরিক ঐক্যে জানিয়েছে। রোববার গণমাধ্যমে এ সংক্রান্ত একটি প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে মান্নার প্রার্থী না হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে নাগরিক ঐক্য।
বিবৃতিতে বলা হয়, নির্ধারিত সময়ে মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার ক্ষেত্রে কারাবন্দি মান্নার স্বাক্ষর সংগ্রহ ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র তৈরি করার প্রতিবন্ধকতা দূর করা পক্ষে সম্ভব হয়নি। এ ক্ষেত্রে প্রশাসনিক ও অন্যান্য সহযোগিতার অভাব এবং তার শারীরিক সমস্যা প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এ অবস্থায় মাহমুদুর রহমান মান্নার পক্ষে ডিসিসি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা সম্ভব হচ্ছে না। আমরা তার সু-চিকিৎসার জন্য জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ এবং অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তির দাবি জানাচ্ছি।
মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসে জরিমানা গুনলেন এক মেয়র প্রার্থী: মনোনয়নপত্র জমা দিতে এসে রোববার জরিমানা গুণলেন এক মেয়র প্রার্থী।ঘটনাটি ঘটেছে ঢাকাস্থ আগাঁরগাওয়ে জাতীয় স্থানীয় সরকার ইনস্টিটিউটের ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অস্থায়ী রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে।
জানা গেছে, ঘোড়ার গাড়িতে রোববার দুপুরে নিজের ছবিযুক্ত ব্যানার নিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দিতে আসেন মেয়র প্রার্থী মোহাম্মদ নাঈম হাসান। এসময় রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে কর্তব্যরত মেজিস্ট্রেট তাকে নির্বাচনী আচরণ বিধি ভঙ্গের অভিযোগে জরিমানা করেন। ভ্রাম্যমাণ আদালত ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে সম্ভাব্য মেয়র প্রার্থী নাঈম হাসানকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদন্ড দেন। আগাম প্রচারণার অভিযোগে তাকে এ জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আলম এ সাজা দেন।
সারোয়ার আলম জানান, নাঈম হাসান মনোনয়নপত্র জমা দিতে তার ছবি সম্বলিত ব্যানারসহ ঘোড়ার গাড়ি নিয়ে আসেন। এটা একজন প্রার্থীর জন্য সুস্পষ্ট আচরণবিধি লঙ্ঘন। এ জন্য তাকে ২০ হাজার টাকা অনাদায়ে এক মাসের কারাদন্ড দেওয়া হয়েছে।
পরে জরিমানার টাকাসহ মনোনয়নপত্র জমা দেন এ প্রার্থী।
চট্টগ্রাম সিসি নির্বাচনে মনজুর ও নাছিরের মনোনয়নপত্র জমা: বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সদ্য পদত্যাগী মেয়র এম মনজুর আলম, শাসকদল আওয়ামী লীগের সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন এবং শাসক জোটের শরীক জাতীয় পার্টির সমর্থিত মেয়র প্রার্থী সোলায়মান আলম শেঠসহ চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে প্রতিদ্বন্দি প্রার্থীরা রোববার ঘটা করেই মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। মনোয়নপত্র জমা দিতে গিয়ে শাসকদল আওয়ামী লীগের একজন বর্তমান মন্ত্রী ও সাবেক এক মন্ত্রীর বিরুদ্ধে আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করেছেন বিএনপির নেতারা।
চট্টগ্রাম বিএনপির দুই শীর্ষ নেতা আব্দুল¬াহ আল নোমান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরীকে সঙ্গে নিয়ে রোববার সকাল ৯টায় চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে মনোনয়নপত্র জমা দেন সদ্য সাবেক মেয়র মনজুর। এসময় বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কমিটির উপ-কোষাধ্যক্ষ সাবেক চাকসু ভিপি এস এম ফজলুল হক এবং বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য চাকসু এজিএস মাহবুবুর রহমান শামীমও সঙ্গে ছিলেন।
মনোনয়নপত্র জমা দেয়ার পর আব্দুল¬াহ আল নোমান সাংবাদিকদের বলেন, এর মাধ্যমে আমরা নির্বাচনী কাজ আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু করেছি। কাউকে কটূক্তি না করে আমরা চট্টগ্রামকে সন্ত্রাস ও জলাবদ্ধতামুক্ত নগরী গড়ে তুলতে কাজ করে যাব। উল্লেখ্য, গত নির্বাচনে বিপুল ভোটে জয়ী মনজুর আবারো চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধানের দায়িত্ব নেবেন বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি। এসময় বিএনপি নেতা আব্দুল¬াহ আল নোমান সাংবাদিকদের চট্টগ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা ও গণপূর্ত মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন এবং সাবেক বন ও পরিবেশ মন্ত্রী হাছান মাহমুদের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ করার কথা জানান। তিনি বলেন, আমরা আনুষ্ঠানিকভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছ অভিযোগ দিয়েছি। এখন দেখতে চাই তিনি কী পদপে নেন।
সিটি নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে আমীর খসরু মাহমুদ বলেন, আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছি। নির্বাচন করার জন্যই আমরা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছি। নির্বাচনে সব প্রার্থীর সমান সুযোগ নিশ্চিত করার দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে বলেছি, ফলাফল ঘোষণার আগ পর্যন্ত সব প্রার্থীকে যাতে সমান সুযোগ দেয়া হয়।
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে মনজুর আলম বলেন, নিয়ম অনুযায়ী শুক্রবার আমি পদত্যাগ করে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছি। তফসিল অনুযায়ী অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন চাই। আল্ল¬াহ যাকে নির্বাচিত করবেন তাকেই মেনে নেব।
সকাল ১১টার দিকে রিটার্নিং অফিসারের কার্যালয়ে হাজির হয়ে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দেন শাসকজোট তথা মহাজোটের অন্যতম শরীক জাতীয় পার্টির নেতা সোলায়মান আলম শেঠ। এসময় তিনি সাংবাদিকদের জানান এবারের নির্বাচনে চমক দেখানোর কথা।
এদিকে নগর আওয়ামী লীগ সভাপতি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীসহ দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে নিয়ে রোববার বেলা সোয়া ১২টার দিকে চট্টগ্রামের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন শাসকদল আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন।
এ সময় প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ইসহাক মিয়া, সাবেক মন্ত্রী আফসারুল আমীন এমপি, এম এ লতিফ এমপি, সাবেক এমপি নুরুল ইসলাম বিএসসি এবং সিডিএ চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম উপস্থিত ছিলেন।
মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে আ জ ম নাছির উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, জলাবদ্ধতা থেকে নগরবাসিকে স্থায়ীভাবে মুক্তি দেয়া তাঁর লক্ষ্য। নির্বাচিত হলে প্রথম কাজ হবে স্থায়ীভাবে জলাবদ্ধতা নিরসন। তিনি জনগণের সেবা করতে চান বলেও সাংবাদিকদের জানান।