নিউইয়র্ক ০৬:২৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

ধূমপান ছাড়ার উপায়

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:৪৫:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ অক্টোবর ২০১৪
  • / ২৫৭৮ বার পঠিত

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর- এমন কথা ধূমপায়ী-অধূমপায়ী উভয়ই জানে। এর ফলে কী কী ক্ষতি হতে পারে তাও কমবেশি সবারই জানা। ফুসফুসের ক্যান্সার, হার্টের রক্তনালী সরু হয়ে হার্ট অ্যাটাকের ঝুকি বৃদ্ধি, মস্তিস্কে রক্ত চলাচলে বাধা, যৌন ক্ষমতা হ্রাসসহ আরও অসংখ্য ক্ষতিকর দিক রয়েছে ধূমপানের। তবে দুঃখের বিষয় হলো যারা ধূমপান করেন তারা সব জেনে বুঝে এ বিষপান করে থাকেন। অনেকে আবার বিভিন্ন সময় ধূমপান ছাড়ার নানা চেষ্টাও করে দেখেছেন। তবে স্বল্পকালীন বিরতির পর আবার ফিরে এসেছেন ওই আসক্তির চক্রে। তাই নানা কারণে ওই মন্দ-অভ্যাসটি আর পুরোপুরি ছাড়া হয়ে ওঠে না তাদের।

ধূমপান ছাড়ার জন্য বিচ্ছিন্ন কিছু উদ্যোগ গ্রহণ না করে বরং পরিকল্পিত ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে এগুলে তা হবে টেকশই ও চিরস্থায়ী। এক্ষেত্রে মানসিক শক্তি থাকাটা বিশেষ জরুরি। স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞগণ ধূমপানের আসক্তি থেকে নিজেকে মুক্ত করার কিছু উপায় বলে দিয়েছেন। এসব অনুসরণ করলে অবশ্যই ধূমপান ছাড়া সম্ভব হবে বলে আশা করা যায়।
উপায় হচ্ছে-
০ প্রথমে সিদ্ধান্ত নিন কেন ধূমপান ছাড়া আপনার জন্য জরুরি। অর্থাৎ কি কারণে ধূমপান ছাড়তে চান। যেমন ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুকি কামাতে বা অন্য কোনো রোগবালাইয়ের হাত থেকে বাঁচতে।
০ কোনো ধরনের থেরাপি বা মেডিকেশন ছাড়া ধূমপান ত্যাগ ঠিক নয়। কারণ সিগারেটের নিকোটিনের ওপর মস্তিষ্ক অনেক ক্ষেত্রে নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। ছেড়ে দিলেই দেখা দেয় নানা উপসর্গ। তাই সিগারেটের বিকল্প থেরাপির কথা চিন্তা করতে হবে।
০ নিকোটিনের বিকল্প হিসেবে তৈরি গাম, লজেন্স ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে।
০ নিকোটিনের বিকল্প ওষুধ সেবন করা যেতে পারে।
০ একা একা ধূমপান না ছেড়ে পরিবারের অন্যান্য সদস্য (যদি ধূমপায়ী থাকেন), বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের উৎসাহিত করে একসঙ্গে ধূমপান ত্যাগের ঘোষণা দিন।
০ মানসিক চাপ কমাতে চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে হালকা ম্যাসাজ নিন।
০ অ্যালকোহল পরিহার করুন।
০ মনোযোগ অন্যদিকে নিতে ঘর পরিষ্কার করতে চেষ্টা করুন।
০ ধূমপান ত্যাগের জন্য বার বার চেষ্টা করুন। একবার ছেড়ে দিলে দ্বিতীয় বার আর ধূমপান করবেন না।
০ নিয়মিত ব্যায়াম করুন।
০ প্রচুর পরিমাণ সবুজ শাক-সবজি ও রঙিন ফলমূল খান।
০ ধূমপান বন্ধ করে যে আর্থিক সাশ্রয় আপনার হবে তার একটা অংশ হালকা বিনোদনে ব্যয় করুন।
০ বন্ধু-বান্ধব বা প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য ধূমপান ছাড়া নয়, বরং আপনার সুস্বাস্থ্যের জন্যই এটা করেছেন- এমন জোরালো অবস্থান নিন।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

ধূমপান ছাড়ার উপায়

প্রকাশের সময় : ০৮:৪৫:০৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২১ অক্টোবর ২০১৪

ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর- এমন কথা ধূমপায়ী-অধূমপায়ী উভয়ই জানে। এর ফলে কী কী ক্ষতি হতে পারে তাও কমবেশি সবারই জানা। ফুসফুসের ক্যান্সার, হার্টের রক্তনালী সরু হয়ে হার্ট অ্যাটাকের ঝুকি বৃদ্ধি, মস্তিস্কে রক্ত চলাচলে বাধা, যৌন ক্ষমতা হ্রাসসহ আরও অসংখ্য ক্ষতিকর দিক রয়েছে ধূমপানের। তবে দুঃখের বিষয় হলো যারা ধূমপান করেন তারা সব জেনে বুঝে এ বিষপান করে থাকেন। অনেকে আবার বিভিন্ন সময় ধূমপান ছাড়ার নানা চেষ্টাও করে দেখেছেন। তবে স্বল্পকালীন বিরতির পর আবার ফিরে এসেছেন ওই আসক্তির চক্রে। তাই নানা কারণে ওই মন্দ-অভ্যাসটি আর পুরোপুরি ছাড়া হয়ে ওঠে না তাদের।

ধূমপান ছাড়ার জন্য বিচ্ছিন্ন কিছু উদ্যোগ গ্রহণ না করে বরং পরিকল্পিত ও বিজ্ঞানসম্মত উপায়ে এগুলে তা হবে টেকশই ও চিরস্থায়ী। এক্ষেত্রে মানসিক শক্তি থাকাটা বিশেষ জরুরি। স্বাস্থ্য-বিশেষজ্ঞগণ ধূমপানের আসক্তি থেকে নিজেকে মুক্ত করার কিছু উপায় বলে দিয়েছেন। এসব অনুসরণ করলে অবশ্যই ধূমপান ছাড়া সম্ভব হবে বলে আশা করা যায়।
উপায় হচ্ছে-
০ প্রথমে সিদ্ধান্ত নিন কেন ধূমপান ছাড়া আপনার জন্য জরুরি। অর্থাৎ কি কারণে ধূমপান ছাড়তে চান। যেমন ক্যান্সার ও হার্ট অ্যাটাকের ঝুকি কামাতে বা অন্য কোনো রোগবালাইয়ের হাত থেকে বাঁচতে।
০ কোনো ধরনের থেরাপি বা মেডিকেশন ছাড়া ধূমপান ত্যাগ ঠিক নয়। কারণ সিগারেটের নিকোটিনের ওপর মস্তিষ্ক অনেক ক্ষেত্রে নির্ভরশীল হয়ে পড়ে। ছেড়ে দিলেই দেখা দেয় নানা উপসর্গ। তাই সিগারেটের বিকল্প থেরাপির কথা চিন্তা করতে হবে।
০ নিকোটিনের বিকল্প হিসেবে তৈরি গাম, লজেন্স ইত্যাদি খাওয়া যেতে পারে।
০ নিকোটিনের বিকল্প ওষুধ সেবন করা যেতে পারে।
০ একা একা ধূমপান না ছেড়ে পরিবারের অন্যান্য সদস্য (যদি ধূমপায়ী থাকেন), বন্ধু-বান্ধব ও সহকর্মীদের উৎসাহিত করে একসঙ্গে ধূমপান ত্যাগের ঘোষণা দিন।
০ মানসিক চাপ কমাতে চেষ্টা করুন। প্রয়োজনে হালকা ম্যাসাজ নিন।
০ অ্যালকোহল পরিহার করুন।
০ মনোযোগ অন্যদিকে নিতে ঘর পরিষ্কার করতে চেষ্টা করুন।
০ ধূমপান ত্যাগের জন্য বার বার চেষ্টা করুন। একবার ছেড়ে দিলে দ্বিতীয় বার আর ধূমপান করবেন না।
০ নিয়মিত ব্যায়াম করুন।
০ প্রচুর পরিমাণ সবুজ শাক-সবজি ও রঙিন ফলমূল খান।
০ ধূমপান বন্ধ করে যে আর্থিক সাশ্রয় আপনার হবে তার একটা অংশ হালকা বিনোদনে ব্যয় করুন।
০ বন্ধু-বান্ধব বা প্রিয় মানুষটিকে খুশি করার জন্য ধূমপান ছাড়া নয়, বরং আপনার সুস্বাস্থ্যের জন্যই এটা করেছেন- এমন জোরালো অবস্থান নিন।