নিউইয়র্ক ০১:২১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

আফগানিস্তানে বিবিসির সম্প্রচার বন্ধ

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০২:২৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ মার্চ ২০২২
  • / ৭ বার পঠিত

হককথা ডেস্ক : আফগানিস্তানে তালেবান সরকার তিনটি ভাষায় বুলেটিন বন্ধ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। একই অভিযোগ ভয়েস অব আমেরিকারও।
বিবিসি জানিয়েছে, তাদের উজবেক, পারসি ও পাস্তো ভাষার বুলেটিন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তালেবান সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
গতকাল রবিবার (২৭ মার্চ) এই ঘোষণা দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, আফগানিস্তানের মানুষ যখন অনিশ্চয়তা ও সংকটের মধ্যে আছেন, তখন এই সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগজনক।
বিবিসি বলছে, আফগানদের স্বাধীন সাংবাদিকতা থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়। বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের তারিক কাফালা জানিয়েছেন, ৬০ লাখেরও বেশি আফগান বিবিসির স্বাধীন ও পক্ষপাতহীন সাংবাদিকতার গুণগ্রাহী ছিলেন। তারা এখন সেই সাংবাদিকতা থেকে বঞ্চিত হবেন।
বিবিসির অ্যাংকর ও সাংবাদিক ইয়ালডা হাকিম কাফালার একটি বিবৃতি টুইট করেছেন। সেখানে বলা হয়েছে, ‘আমরা তালেবানকে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য বলছি। তারা যেন অবিলম্বে আমাদের টিভি পার্টনারদের বিবিসির নিউজ বুলেটিন দেখানোর সুযোগ করে দেয়।’
জার্মান সংবাদসংস্থা ডিপিএ আফগান মিডিয়া কোম্পানি মবি গ্রুপকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, তালেবান গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট পাওয়ার পর ভয়েস অব আমেরিকার সম্প্রচারও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল হামিদ হাম্মাদও তা স্বীকার করেছেন।
২০২১ সালের আগস্টে তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর বহু সাংবাদিক দেশ ছেড়ে চলে যান। কিন্তু তারপরেও সম্প্রচার বন্ধ করা হয়নি। সম্প্রতি তালেবান মেয়েদের জন্য সেকেন্ডারি স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে যায়। তারপরই এই সম্প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। -ডয়চে ভেলে
হককথা/এমউএ

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আফগানিস্তানে বিবিসির সম্প্রচার বন্ধ

প্রকাশের সময় : ০২:২৭:৫৩ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ২৮ মার্চ ২০২২

হককথা ডেস্ক : আফগানিস্তানে তালেবান সরকার তিনটি ভাষায় বুলেটিন বন্ধ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ব্রিটিশ সংবাদ মাধ্যম বিবিসি। একই অভিযোগ ভয়েস অব আমেরিকারও।
বিবিসি জানিয়েছে, তাদের উজবেক, পারসি ও পাস্তো ভাষার বুলেটিন বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তালেবান সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে।
গতকাল রবিবার (২৭ মার্চ) এই ঘোষণা দিয়ে বিবিসি জানিয়েছে, আফগানিস্তানের মানুষ যখন অনিশ্চয়তা ও সংকটের মধ্যে আছেন, তখন এই সিদ্ধান্ত খুবই উদ্বেগজনক।
বিবিসি বলছে, আফগানদের স্বাধীন সাংবাদিকতা থেকে বঞ্চিত করা উচিত নয়। বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের তারিক কাফালা জানিয়েছেন, ৬০ লাখেরও বেশি আফগান বিবিসির স্বাধীন ও পক্ষপাতহীন সাংবাদিকতার গুণগ্রাহী ছিলেন। তারা এখন সেই সাংবাদিকতা থেকে বঞ্চিত হবেন।
বিবিসির অ্যাংকর ও সাংবাদিক ইয়ালডা হাকিম কাফালার একটি বিবৃতি টুইট করেছেন। সেখানে বলা হয়েছে, ‘আমরা তালেবানকে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য বলছি। তারা যেন অবিলম্বে আমাদের টিভি পার্টনারদের বিবিসির নিউজ বুলেটিন দেখানোর সুযোগ করে দেয়।’
জার্মান সংবাদসংস্থা ডিপিএ আফগান মিডিয়া কোম্পানি মবি গ্রুপকে উদ্ধৃত করে জানিয়েছে, তালেবান গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট পাওয়ার পর ভয়েস অব আমেরিকার সম্প্রচারও বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র আব্দুল হামিদ হাম্মাদও তা স্বীকার করেছেন।
২০২১ সালের আগস্টে তালেবান আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার পর বহু সাংবাদিক দেশ ছেড়ে চলে যান। কিন্তু তারপরেও সম্প্রচার বন্ধ করা হয়নি। সম্প্রতি তালেবান মেয়েদের জন্য সেকেন্ডারি স্কুল খোলার সিদ্ধান্ত থেকে পিছিয়ে যায়। তারপরই এই সম্প্রচার বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। -ডয়চে ভেলে
হককথা/এমউএ