নিউইয়র্ক ০৭:৫৪ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

শ্রীকান্তের একক গানের অনুষ্ঠানে মুগ্ধ দর্শক-শ্রোতা

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ১২:১২:০৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৬ নভেম্বর ২০১৫
  • / ১৭৯২ বার পঠিত

নিউইয়র্ক: ‘আমার সারাটা দিন মেঘলা আকাশ বৃষ্টি তোমাকে দিলাম………’,‘আমি খোলা জানালা তুমি ঐ দখিনা বাতাস…..‘,‘কেনো দূরে থাকো…….’, ‘এই পথ যদি না শেষ হয়…………’প্রভৃতি জনপ্রিয় গান গেয়ে নিউইয়র্কের শত শত দর্শক-শ্রোতাকে মুগ্ধ করলেন কলকাতার জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য। নিউইয়র্কের সাংস্কৃতিক সংগঠন আনন্দধ্বনী ১ নভেম্বর রোববার সন্ধ্যায় সিটির ফ্লাশিংস্থ দ্য হিন্দু টেম্পল কমিউনিটি সেন্টার মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
রবীন্দ্র সঙ্গীত আর পুরনো দিনের গানের আয়োজন নিয়ে ‘অনেক দিনের গান’ শীর্ষক শ্রীকান্ত আচার্যের একক সঙ্গীতানুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আয়োজক গোলাম সারোয়ার হারুন। উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবশেন করেন আনন্দধ্বনীর শিল্পীরা। এরপর সঙ্গীত পরিবেশন করেন আনন্দধ্বনীর শিল্পী মাহবুব জামান বাচ্চু। তারপর মঞ্চে আসেন শ্রীকান্ত। শিল্পী তার ভরাট কন্ঠে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করেন গান। গানের ফাঁকে ফাঁকে ছোটবেলার স্মৃতি আর বিভিন্ন গানের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে গেয়ে যান জনপ্রিয় গানগুলি। নিজের গান ছাড়াও রবীন্দ্র সঙ্গীত আর আধুনিক গানও ছিলো তার গানের তালিকায়। খবর ইউএনএ’।
Srikanto-3অনুষ্ঠানের মাঝে একটু বিরতীতে শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য আয়োজকদের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকদের হাতে প্ল্যাক তুলে দেন। প্ল্যাক প্রাপ্তরা হলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী এম হাসান, পিপলস এন্ড টেক-এর সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ, এটর্নী পেরী ডি সিলভার, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ট্রাভেলসের প্রেসিডেন্ট নাজমুল হুদা (অনুপস্থিত) ও উৎসব ডট কম। কাজী এম হাসান, ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ ও বিশিষ্ট রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর আনোয়ার হোসেন সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। এসময় অনুষ্ঠানের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক আলী মুরাদ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। এই পর্ব পরিচালনা করেন গোলাম সারোয়ার হারুন।
Srikanto-4প্ল্যাক প্রদান শেষে শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য আবার শুরু করেন তার গান। প্রিয় গানের অনুরোধের পাশাপাশি কখনো হাততালি আবার কখনো পিনপতন নিরবতায় দর্শক-শ্রোতারা শিল্পীর গানগুলো উপভোগ করেন। অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতাদের নানান কথার সাথে একটু-আধটু মজাও করেন শিল্পী। সব মিলিয়ে উপভোগ্য ছিল সমগ্র অনুষ্ঠান। দর্শক-শ্রোতায় পরিপূর্ণ ছিলো মিলনায়তন।
কলকাতার বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান ‘দক্ষিনী’ থেকে রবীন্দ্র সঙ্গীতে স্নাতক শ্রীকান্ত আচার্য সেই ছোটবেলায় তবলার প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ওস্তাদ আলী আহমেদ খাঁর কাছে। কিন্তু অন্যান্য গানের শিক্ষা মূলত: কানে শুনে, সেই অর্থে শ্রীকান্ত একজন স্ব-শিক্ষিত শিল্পী। বিগত দিনের কিছু বাংলা গান নতুন করে গেয়েছিলেন ‘মনের জানালা’ অ্যালবামে। ১৯৯৬ সালে প্রকাশিত ‘মনের জানালা’ শিল্পীর প্রথম একক গানের অ্যালবাম। একই বছর প্রকাশিত হয় শিল্পীর ‘হে বন্ধু হে প্রিয়’ শীর্ষক প্রথম রবীন্দ্র সঙ্গীতের অ্যালবাম। এরপর ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত হয় শিল্পীর ‘এক ঝাঁক পাখি’ শীর্ষক আরেকটি অ্যালবাম। পরবর্তীতে প্রকাশিত হয় ‘স্বপ্ন দেখাও তুমি’, ‘বৃষ্টি তোমাকে দিলাম’,‘নদীর ছবি আঁকি’,‘ঘুড়ি’,‘বেলুন’ প্রভৃতি গানের অ্যালবাম। এছাড়াও ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত ‘তিতলি’ ছবির গান গেয়ে শ্রীকান্ত লাভ করেন বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্টস এসোসিয়েশন পুরষ্কার। ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘খেলা’ আর ‘নৌকাডুবি’ ছবিতেও গান গেয়েছেন শ্রীকান্ত আচার্য। শিল্পী অতি সম্প্রতি গান গেয়েছেন সৃজিৎ মুখোপাধ্যায়ের ‘জাতিস্মর‘ ও ‘চতুষ্কোণ’ ছবিতে। ড. অর্ণা শীল, ড. রাজীব আর মোস্তফা তৌহিদ-এর সাথে শিল্পী শ্রীকান্ত ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেছেন সঙ্গীতের অনলাইন প্লাটফর্ম ‘মৌশিয়ানা’। এ থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা সঙ্গীত শিল্পী বা সঙ্গীতের সাথে যুক্ত থাকা মানুষরা শিক্ষাদান, নানান ভাবনার আদান-প্রদান আর সঙ্গীত পরিবেশন করবেন।
সমগ্র অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন গার্গী মুখার্জী। যন্ত্রশিল্পে ছিলেন শুভেন্দু দাস (কী-বোর্ড), দীপাঞ্জন রায় (লীড গীটার), তন্ময় শ্রী (বেস গীটার), সৌমেন দাস (অক্টাপ্যাড), নরেন দে (তবলা/পার্কাশন)। শিল্পী নির্দেশনায় ছিলেন মহিতোশ তালুকদার। সাউন্ড সিস্টেমে ছিলেন নিবীড় (বিডি সাউন্ড)। অনুষ্ঠান পরিকল্পনায় ছিলেন গোলাম সারোয়ার হারুন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

শ্রীকান্তের একক গানের অনুষ্ঠানে মুগ্ধ দর্শক-শ্রোতা

প্রকাশের সময় : ১২:১২:০৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৬ নভেম্বর ২০১৫

নিউইয়র্ক: ‘আমার সারাটা দিন মেঘলা আকাশ বৃষ্টি তোমাকে দিলাম………’,‘আমি খোলা জানালা তুমি ঐ দখিনা বাতাস…..‘,‘কেনো দূরে থাকো…….’, ‘এই পথ যদি না শেষ হয়…………’প্রভৃতি জনপ্রিয় গান গেয়ে নিউইয়র্কের শত শত দর্শক-শ্রোতাকে মুগ্ধ করলেন কলকাতার জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য। নিউইয়র্কের সাংস্কৃতিক সংগঠন আনন্দধ্বনী ১ নভেম্বর রোববার সন্ধ্যায় সিটির ফ্লাশিংস্থ দ্য হিন্দু টেম্পল কমিউনিটি সেন্টার মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
রবীন্দ্র সঙ্গীত আর পুরনো দিনের গানের আয়োজন নিয়ে ‘অনেক দিনের গান’ শীর্ষক শ্রীকান্ত আচার্যের একক সঙ্গীতানুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন আয়োজক গোলাম সারোয়ার হারুন। উদ্বোধনী সঙ্গীত পরিবশেন করেন আনন্দধ্বনীর শিল্পীরা। এরপর সঙ্গীত পরিবেশন করেন আনন্দধ্বনীর শিল্পী মাহবুব জামান বাচ্চু। তারপর মঞ্চে আসেন শ্রীকান্ত। শিল্পী তার ভরাট কন্ঠে উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের শুভেচ্ছা জানিয়ে শুরু করেন গান। গানের ফাঁকে ফাঁকে ছোটবেলার স্মৃতি আর বিভিন্ন গানের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে গেয়ে যান জনপ্রিয় গানগুলি। নিজের গান ছাড়াও রবীন্দ্র সঙ্গীত আর আধুনিক গানও ছিলো তার গানের তালিকায়। খবর ইউএনএ’।
Srikanto-3অনুষ্ঠানের মাঝে একটু বিরতীতে শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য আয়োজকদের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানের পৃষ্ঠপোষকদের হাতে প্ল্যাক তুলে দেন। প্ল্যাক প্রাপ্তরা হলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী এম হাসান, পিপলস এন্ড টেক-এর সিইও ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ, এটর্নী পেরী ডি সিলভার, ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ট্রাভেলসের প্রেসিডেন্ট নাজমুল হুদা (অনুপস্থিত) ও উৎসব ডট কম। কাজী এম হাসান, ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ ও বিশিষ্ট রিয়েল এস্টেট ইনভেস্টর আনোয়ার হোসেন সংক্ষিপ্ত শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। এসময় অনুষ্ঠানের অন্যতম পৃষ্ঠপোষক আলী মুরাদ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন। এই পর্ব পরিচালনা করেন গোলাম সারোয়ার হারুন।
Srikanto-4প্ল্যাক প্রদান শেষে শিল্পী শ্রীকান্ত আচার্য আবার শুরু করেন তার গান। প্রিয় গানের অনুরোধের পাশাপাশি কখনো হাততালি আবার কখনো পিনপতন নিরবতায় দর্শক-শ্রোতারা শিল্পীর গানগুলো উপভোগ করেন। অনুষ্ঠানে দর্শক-শ্রোতাদের নানান কথার সাথে একটু-আধটু মজাও করেন শিল্পী। সব মিলিয়ে উপভোগ্য ছিল সমগ্র অনুষ্ঠান। দর্শক-শ্রোতায় পরিপূর্ণ ছিলো মিলনায়তন।
কলকাতার বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান ‘দক্ষিনী’ থেকে রবীন্দ্র সঙ্গীতে স্নাতক শ্রীকান্ত আচার্য সেই ছোটবেলায় তবলার প্রশিক্ষণ নিয়েছেন ওস্তাদ আলী আহমেদ খাঁর কাছে। কিন্তু অন্যান্য গানের শিক্ষা মূলত: কানে শুনে, সেই অর্থে শ্রীকান্ত একজন স্ব-শিক্ষিত শিল্পী। বিগত দিনের কিছু বাংলা গান নতুন করে গেয়েছিলেন ‘মনের জানালা’ অ্যালবামে। ১৯৯৬ সালে প্রকাশিত ‘মনের জানালা’ শিল্পীর প্রথম একক গানের অ্যালবাম। একই বছর প্রকাশিত হয় শিল্পীর ‘হে বন্ধু হে প্রিয়’ শীর্ষক প্রথম রবীন্দ্র সঙ্গীতের অ্যালবাম। এরপর ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত হয় শিল্পীর ‘এক ঝাঁক পাখি’ শীর্ষক আরেকটি অ্যালবাম। পরবর্তীতে প্রকাশিত হয় ‘স্বপ্ন দেখাও তুমি’, ‘বৃষ্টি তোমাকে দিলাম’,‘নদীর ছবি আঁকি’,‘ঘুড়ি’,‘বেলুন’ প্রভৃতি গানের অ্যালবাম। এছাড়াও ঋতুপর্ণ ঘোষ পরিচালিত ‘তিতলি’ ছবির গান গেয়ে শ্রীকান্ত লাভ করেন বেঙ্গল ফিল্ম জার্নালিস্টস এসোসিয়েশন পুরষ্কার। ঋতুপর্ণ ঘোষের ‘খেলা’ আর ‘নৌকাডুবি’ ছবিতেও গান গেয়েছেন শ্রীকান্ত আচার্য। শিল্পী অতি সম্প্রতি গান গেয়েছেন সৃজিৎ মুখোপাধ্যায়ের ‘জাতিস্মর‘ ও ‘চতুষ্কোণ’ ছবিতে। ড. অর্ণা শীল, ড. রাজীব আর মোস্তফা তৌহিদ-এর সাথে শিল্পী শ্রীকান্ত ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেছেন সঙ্গীতের অনলাইন প্লাটফর্ম ‘মৌশিয়ানা’। এ থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তে ছড়িয়ে থাকা সঙ্গীত শিল্পী বা সঙ্গীতের সাথে যুক্ত থাকা মানুষরা শিক্ষাদান, নানান ভাবনার আদান-প্রদান আর সঙ্গীত পরিবেশন করবেন।
সমগ্র অনুষ্ঠান উপস্থাপনায় ছিলেন গার্গী মুখার্জী। যন্ত্রশিল্পে ছিলেন শুভেন্দু দাস (কী-বোর্ড), দীপাঞ্জন রায় (লীড গীটার), তন্ময় শ্রী (বেস গীটার), সৌমেন দাস (অক্টাপ্যাড), নরেন দে (তবলা/পার্কাশন)। শিল্পী নির্দেশনায় ছিলেন মহিতোশ তালুকদার। সাউন্ড সিস্টেমে ছিলেন নিবীড় (বিডি সাউন্ড)। অনুষ্ঠান পরিকল্পনায় ছিলেন গোলাম সারোয়ার হারুন।