নিউইয়র্ক ০৯:৪৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

রমজানের শেষ দশকে রাসূলের ৬টি কাজ মনে করিয়ে দিলেন শায়খ আহমাদুল্লাহ

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৪:৩৫:৫৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪
  • / ১০১ বার পঠিত

রমজানের শেষ দশক শুরু হয়ে গেছে। রহমত, মাগফিরাতের পর নাজাতের দশক চলছে। রমজানের শেষ দশ দিনে রাসূল (সা.) ছয়টি কাজ বেশি বেশি করতেন। সেগুলো মনে করিয়ে দিয়ে সবাইকে তা অনুস্মরণের আহ্বান জানিয়েছেন আসসুন্নাহ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন শায়খ আহমাদুল্লাহ।

রাসুল যা করতেন-
এক. ইতিকাফ করতেন।
দুই. জীবনের অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি ইবাদত সাধনায় রত থাকতেন।
তিন. রাত্রি জাগরণ করতেন।
চার. পরিবারকে ঘুম থেকে ডেকে তুলতেন।
পাঁচ. কোমর বেঁধে ইবাদতে মগ্ন হতেন।
ছয়. লাইলাতুল কদর খোঁজার আশায় শেষ দশ রাতে (বিশেষত বেজোড় রাতগুলোতে) ইবাদত করতেন।

শায়খ আহমাদুল্লাহ বলেন, রমজানের শেষ দশক মহাসৌভাগ্যের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়। এই সৌভাগ্য লাভ করতে হলে আমাদেরকে ইবাদত ও রাত্রি জাগরণের পেছনে সর্বশক্তি ব্যয় করতে হবে। ঈদের কেনাকাটা এবং গ্রামের বাড়ি যাওয়ার প্রস্তুতি যেন আমাদের শেষ দশকের ইবাদতে বাধা সৃষ্টি না করে। আল্লাহ তাওফীক দান করুন, আমীন। সূত্র : যুগান্তর

হককথা/নাছরিন

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

রমজানের শেষ দশকে রাসূলের ৬টি কাজ মনে করিয়ে দিলেন শায়খ আহমাদুল্লাহ

প্রকাশের সময় : ০৪:৩৫:৫৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১ এপ্রিল ২০২৪

রমজানের শেষ দশক শুরু হয়ে গেছে। রহমত, মাগফিরাতের পর নাজাতের দশক চলছে। রমজানের শেষ দশ দিনে রাসূল (সা.) ছয়টি কাজ বেশি বেশি করতেন। সেগুলো মনে করিয়ে দিয়ে সবাইকে তা অনুস্মরণের আহ্বান জানিয়েছেন আসসুন্নাহ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন শায়খ আহমাদুল্লাহ।

রাসুল যা করতেন-
এক. ইতিকাফ করতেন।
দুই. জীবনের অন্য যে কোনো সময়ের চেয়ে বেশি ইবাদত সাধনায় রত থাকতেন।
তিন. রাত্রি জাগরণ করতেন।
চার. পরিবারকে ঘুম থেকে ডেকে তুলতেন।
পাঁচ. কোমর বেঁধে ইবাদতে মগ্ন হতেন।
ছয়. লাইলাতুল কদর খোঁজার আশায় শেষ দশ রাতে (বিশেষত বেজোড় রাতগুলোতে) ইবাদত করতেন।

শায়খ আহমাদুল্লাহ বলেন, রমজানের শেষ দশক মহাসৌভাগ্যের বার্তা নিয়ে আমাদের মাঝে উপস্থিত হয়। এই সৌভাগ্য লাভ করতে হলে আমাদেরকে ইবাদত ও রাত্রি জাগরণের পেছনে সর্বশক্তি ব্যয় করতে হবে। ঈদের কেনাকাটা এবং গ্রামের বাড়ি যাওয়ার প্রস্তুতি যেন আমাদের শেষ দশকের ইবাদতে বাধা সৃষ্টি না করে। আল্লাহ তাওফীক দান করুন, আমীন। সূত্র : যুগান্তর

হককথা/নাছরিন