নিউইয়র্ক ১১:১৫ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুন ২০২৪, ২ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

শবে মিরাজ সম্পর্কে প্রচলিত ভুল ধারণা

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৫:১৩:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
  • / ৬৪ বার পঠিত

হককথা ডেস্ক :  মিরাজ মহানবী (সা.)-এর জীবনের অন্যতম সেরা অলৌকিক ঘটনা। এ বিষয়ে কোরআন-হাদিসে বর্ণিত বিষয়গুলোর প্রতি বিশ্বাস রাখা মুমিনের ইমানের দাবি। তবে একে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের ভিত্তিহীন আমল ও বেশ কিছু বানোয়াট কথা সমাজে প্রচলিত রয়েছে। যেমন বলা হয়, নবী (সা.) এত দ্রুত সময়ে মিরাজ থেকে ফিরে আসেন যে, বিছানার চাদর তখনো উষ্ণ ছিল, উপুড় করে রেখে যাওয়া পাত্র থেকে ফোঁটা ফোঁটা পানি ঝরছিল, দরজার শিকল কাঁপছিল ইত্যাদি।

গবেষণায় দেখা গেছে, মিরাজের ঘটনাটি খুব কম সময়ে ঘটলেও নির্দিষ্টভাবে এসব কথার কোনো ভিত্তি নেই। মিরাজসম্পর্কিত হাদিসগুলোতে এসব কথার উল্লেখ নেই। এ ক্ষেত্রে চাদর বলতে আরবি ‘মুলাআ’ শব্দটি বলা হয়েছে, যেটি একটি নতুন সংযোজিত শব্দ; মহানবী (সা.)-এর যুগে এর প্রচলন ছিল না। (লিসানুল আরব: ১/১৬০; আল-নিহায়া: ৪/৩৫২)

শাইখ শুকাইরি (রহ.) বলেন, ‘মহানবী (সা.)-এর রাতের বেলায় মিরাজে যাওয়া এবং ফিরে এসে বিছানা উষ্ণ পাওয়ার বিষয়টি সাব্যস্ত নয়।’ (আস-সুনান ওয়াল মুবতাদিআত: পৃ. ১৪৩)

একইভাবে মহানবী (সা.)-এর ঘরের দরজা বন্ধ রাখার জন্য শিকল ছিল—বিষয়টি প্রমাণিত নয়। বরং ইসলামের প্রথম যুগে ঘরের দরজাই থাকত না। আবদুর রহমান ইবনে যাইদ বলেন, ‘এটি ছিল ইসলামের প্রথম যুগে। তখন তাঁদের ঘরের দরজা থাকত না; পর্দা টানিয়ে রাখা হতো।’ (তাফসিরে তাবারি: ১৯/২২১)

এ ছাড়া হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিস থেকে এ কথাও প্রমাণিত হয় যে, মহানবী (সা.)-কে ছাদ খুলেই মিরাজে নেওয়া হয়। দরজা দিয়ে নয়। (বুখারি: ৩৩৪২; মুসলিম: ১৬৩) বোঝা গেল, জিবরাইল (আ.) সরাসরি ছাদের ছিদ্রপথ দিয়ে নবী (সা.)-কে নিয়ে মিরাজের ভ্রমণে বেরিয়েছেন; দরজা দিয়ে নয়। সুতরাং এই হাদিস থেকেও প্রমাণিত হয়, দরজার শিকল নড়ার কথা বানোয়াট। সূত্র : আজকের পত্রিকা

হককথা/নাছরিন

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

শবে মিরাজ সম্পর্কে প্রচলিত ভুল ধারণা

প্রকাশের সময় : ০৫:১৩:৪৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

হককথা ডেস্ক :  মিরাজ মহানবী (সা.)-এর জীবনের অন্যতম সেরা অলৌকিক ঘটনা। এ বিষয়ে কোরআন-হাদিসে বর্ণিত বিষয়গুলোর প্রতি বিশ্বাস রাখা মুমিনের ইমানের দাবি। তবে একে ঘিরে বিভিন্ন ধরনের ভিত্তিহীন আমল ও বেশ কিছু বানোয়াট কথা সমাজে প্রচলিত রয়েছে। যেমন বলা হয়, নবী (সা.) এত দ্রুত সময়ে মিরাজ থেকে ফিরে আসেন যে, বিছানার চাদর তখনো উষ্ণ ছিল, উপুড় করে রেখে যাওয়া পাত্র থেকে ফোঁটা ফোঁটা পানি ঝরছিল, দরজার শিকল কাঁপছিল ইত্যাদি।

গবেষণায় দেখা গেছে, মিরাজের ঘটনাটি খুব কম সময়ে ঘটলেও নির্দিষ্টভাবে এসব কথার কোনো ভিত্তি নেই। মিরাজসম্পর্কিত হাদিসগুলোতে এসব কথার উল্লেখ নেই। এ ক্ষেত্রে চাদর বলতে আরবি ‘মুলাআ’ শব্দটি বলা হয়েছে, যেটি একটি নতুন সংযোজিত শব্দ; মহানবী (সা.)-এর যুগে এর প্রচলন ছিল না। (লিসানুল আরব: ১/১৬০; আল-নিহায়া: ৪/৩৫২)

শাইখ শুকাইরি (রহ.) বলেন, ‘মহানবী (সা.)-এর রাতের বেলায় মিরাজে যাওয়া এবং ফিরে এসে বিছানা উষ্ণ পাওয়ার বিষয়টি সাব্যস্ত নয়।’ (আস-সুনান ওয়াল মুবতাদিআত: পৃ. ১৪৩)

একইভাবে মহানবী (সা.)-এর ঘরের দরজা বন্ধ রাখার জন্য শিকল ছিল—বিষয়টি প্রমাণিত নয়। বরং ইসলামের প্রথম যুগে ঘরের দরজাই থাকত না। আবদুর রহমান ইবনে যাইদ বলেন, ‘এটি ছিল ইসলামের প্রথম যুগে। তখন তাঁদের ঘরের দরজা থাকত না; পর্দা টানিয়ে রাখা হতো।’ (তাফসিরে তাবারি: ১৯/২২১)

এ ছাড়া হজরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিস থেকে এ কথাও প্রমাণিত হয় যে, মহানবী (সা.)-কে ছাদ খুলেই মিরাজে নেওয়া হয়। দরজা দিয়ে নয়। (বুখারি: ৩৩৪২; মুসলিম: ১৬৩) বোঝা গেল, জিবরাইল (আ.) সরাসরি ছাদের ছিদ্রপথ দিয়ে নবী (সা.)-কে নিয়ে মিরাজের ভ্রমণে বেরিয়েছেন; দরজা দিয়ে নয়। সুতরাং এই হাদিস থেকেও প্রমাণিত হয়, দরজার শিকল নড়ার কথা বানোয়াট। সূত্র : আজকের পত্রিকা

হককথা/নাছরিন