নিউইয়র্ক ০৯:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

নাসাউ নাকি বাংলাদেশ!

ইশতিয়াক পারভেজ, নিউ ইয়র্ক
  • প্রকাশের সময় : ০৩:১৪:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪
  • / ৩৭ বার পঠিত

রাতে জ্যাকসন হাইটসে ঈদের আগের রাতের অবস্থা। নিউ ইয়র্কের বাঙালি পাড়ায় রাত বাড়ার সঙ্গে বাড়ছে উৎসব। হচ্ছে সার্জি বিনিময়, হ্যাঁ, সকালেই নাসাউ কাউন্টি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ দল মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকার। তাকে ঘিরেই যেন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে নিউ ইয়র্কের টাইগার ভক্তরা। দেশ ও বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা অতিথিদের নিয়ে মাঠে যাওয়ার জন্য যেন ব্যাকুল সবাই। ম্যাচ শুরু স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায়। কিন্তু যানজটের কথা ভেবে ভোর থেকে স্টেডিয়ামের পথ ধরে সবাই। ম্যাচ শুরু হতে নাসাউ যেন হয়ে ওঠে এক টুকরো বাংলাদেশ। যা অবাক করে দিয়েছে মাঠের নিরাপত্তাকর্মীদের। বাংলাদেশ বাংলাদেশ স্লোগানে গোটা গ্যালারি।

প্রোটিয়াদের একেকটি উইকেটের পতন ঘটছে আর টাইগার ভক্তদের চিৎকারে চিৎকারে কাঁপছে গ্যালারি। মাঠে প্রবেশ করতে গিয়ে দেখা যায় অনেকেই এসেছেন দেশের ঐতিহ্য লুঙ্গি পরে। যেভাবে হোক ধারণ করেছে লাল সবুজ। নিউ ইয়র্কে থাকা ভক্ত মিনহাজ জানান, ‘আমি এর আগে এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ গিয়েছি বাংলাদেশের খেলা দেখতে। এবার আমেরিকাতে খেলা তাও আমি যেখানে থাকি সেই শহরে। কীভাবে ঘরে বাসে থাকি। ডালাস গিয়েছি তখন তো ভাবিনি যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতবে। এবারো জানি না দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জিতবে কিনা। কিন্তু আমার দেশ হারুক-জিতুক পাশে থাকবো।’

যুক্তরাষ্ট্রে নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। নিউ ইয়র্ক শহর থেকে ২৫ মাইল পূর্বে লং আইল্যান্ডে অবস্থিত। এবার বিশ্বকাপের জন্য ৫ মাসেরও কম সময়ের পরিশ্রমে এটি তৈরি করা হয়েছে। অস্থায়ী এই স্থাপনা আশপাশের পরিবেশ এবং স্টেডিয়ামের সৌন্দর্য মুগ্ধ করেছে। কিন্তু খেলতে নামার পর এই মাঠের উইকেট যেন ব্যাটারদের বধ্যভূমি হিসেবে ইতিমধ্যেই রাতের ঘুম হারাম করে দিয়েছে সবার। ম্যাচের আগের রাতে দুশ্চিন্তা ভর করেছে বাংলাদেশের টাইগারদের। আরেক ভক্ত নাইম জানান, ‘ভয় একটাই নাসাউয়ের উইকেট নিয়ে। তবে আমরা দলকে সমর্থন জানাতে মাঠে যাবো। যাই হোক বিশ্বাস রাখবো।’ সম্প্রতি ব্যাটারদের যে দুর্গতি আর দুর্দশা বাংলাদেশ দলের জন্য আরও বড় পরীক্ষা নিঃসন্দেহে অপেক্ষা করছে। কঠিন এই উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রামে থাকা ব্যাটারদের নিয়েই বড় দুশ্চিন্তা। প্রতিপক্ষ যে এর বাইরে নয়। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে হারিয়েছে ২৩ রানে ৪ উইকেট।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে জোর চেষ্টা চলছে ক্রিকেটকে এই দেশে পরিচিত করতে। প্রতিটি ম্যাচেই আনা হচ্ছে স্কুলের বাচ্চাদের। যেন তারা মাঠে এসে ক্রিকেট দেখে এই খেলার সঙ্গে পরিচিত হয়। সূত্র: মানবজমিন।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

নাসাউ নাকি বাংলাদেশ!

প্রকাশের সময় : ০৩:১৪:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুন ২০২৪

রাতে জ্যাকসন হাইটসে ঈদের আগের রাতের অবস্থা। নিউ ইয়র্কের বাঙালি পাড়ায় রাত বাড়ার সঙ্গে বাড়ছে উৎসব। হচ্ছে সার্জি বিনিময়, হ্যাঁ, সকালেই নাসাউ কাউন্টি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ দল মুখোমুখি হবে দক্ষিণ আফ্রিকার। তাকে ঘিরেই যেন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছে নিউ ইয়র্কের টাইগার ভক্তরা। দেশ ও বিভিন্ন জায়গা থেকে আসা অতিথিদের নিয়ে মাঠে যাওয়ার জন্য যেন ব্যাকুল সবাই। ম্যাচ শুরু স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১০টায়। কিন্তু যানজটের কথা ভেবে ভোর থেকে স্টেডিয়ামের পথ ধরে সবাই। ম্যাচ শুরু হতে নাসাউ যেন হয়ে ওঠে এক টুকরো বাংলাদেশ। যা অবাক করে দিয়েছে মাঠের নিরাপত্তাকর্মীদের। বাংলাদেশ বাংলাদেশ স্লোগানে গোটা গ্যালারি।

প্রোটিয়াদের একেকটি উইকেটের পতন ঘটছে আর টাইগার ভক্তদের চিৎকারে চিৎকারে কাঁপছে গ্যালারি। মাঠে প্রবেশ করতে গিয়ে দেখা যায় অনেকেই এসেছেন দেশের ঐতিহ্য লুঙ্গি পরে। যেভাবে হোক ধারণ করেছে লাল সবুজ। নিউ ইয়র্কে থাকা ভক্ত মিনহাজ জানান, ‘আমি এর আগে এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া, ইউরোপ গিয়েছি বাংলাদেশের খেলা দেখতে। এবার আমেরিকাতে খেলা তাও আমি যেখানে থাকি সেই শহরে। কীভাবে ঘরে বাসে থাকি। ডালাস গিয়েছি তখন তো ভাবিনি যে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জিতবে। এবারো জানি না দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে জিতবে কিনা। কিন্তু আমার দেশ হারুক-জিতুক পাশে থাকবো।’

যুক্তরাষ্ট্রে নাসাউ কাউন্টি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম। নিউ ইয়র্ক শহর থেকে ২৫ মাইল পূর্বে লং আইল্যান্ডে অবস্থিত। এবার বিশ্বকাপের জন্য ৫ মাসেরও কম সময়ের পরিশ্রমে এটি তৈরি করা হয়েছে। অস্থায়ী এই স্থাপনা আশপাশের পরিবেশ এবং স্টেডিয়ামের সৌন্দর্য মুগ্ধ করেছে। কিন্তু খেলতে নামার পর এই মাঠের উইকেট যেন ব্যাটারদের বধ্যভূমি হিসেবে ইতিমধ্যেই রাতের ঘুম হারাম করে দিয়েছে সবার। ম্যাচের আগের রাতে দুশ্চিন্তা ভর করেছে বাংলাদেশের টাইগারদের। আরেক ভক্ত নাইম জানান, ‘ভয় একটাই নাসাউয়ের উইকেট নিয়ে। তবে আমরা দলকে সমর্থন জানাতে মাঠে যাবো। যাই হোক বিশ্বাস রাখবো।’ সম্প্রতি ব্যাটারদের যে দুর্গতি আর দুর্দশা বাংলাদেশ দলের জন্য আরও বড় পরীক্ষা নিঃসন্দেহে অপেক্ষা করছে। কঠিন এই উইকেটে বাংলাদেশের সংগ্রামে থাকা ব্যাটারদের নিয়েই বড় দুশ্চিন্তা। প্রতিপক্ষ যে এর বাইরে নয়। টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে হারিয়েছে ২৩ রানে ৪ উইকেট।

অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে জোর চেষ্টা চলছে ক্রিকেটকে এই দেশে পরিচিত করতে। প্রতিটি ম্যাচেই আনা হচ্ছে স্কুলের বাচ্চাদের। যেন তারা মাঠে এসে ক্রিকেট দেখে এই খেলার সঙ্গে পরিচিত হয়। সূত্র: মানবজমিন।