নিউইয়র্ক ১১:১৪ অপরাহ্ন, সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

বিশ্বকাপ ক্রিকেট : প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে মাহমুদুল্লাহর সেঞ্চুরি

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৪:৫০:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ মার্চ ২০১৫
  • / ৬৬৭ বার পঠিত

হককথা ডেস্ক: বিশ্ব ক্রিকেট রাজ্যে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ইতিহাস গড়লেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। পরিণত হলেন নায়কে। ৯ মার্চ এডিলেডে অনুষ্ঠিত চলতি বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পঞ্চম খেলায় শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের হয়ে শতরান করলেন। তিনি ১৩৮ বলে ১০৩ রান সংগ্রহ করেন। আর তাই ঢাকার প্রথম আলোর ভাষায় বাংলা ক্রিকেট ইতিহানের আরেক বরপুত্র, দৈনিক ইনকিলাব-এর ভাষায় মাহমুদুল্লাহর ইতিহাসময় সেঞ্চুরি।
স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে আগের ম্যাচে তামিমের ৯৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। ২০০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করা আশরাফুলের ৮৭ রানকে টপকে সবার ওপরে উঠেছিলেন এই ওপেনার। তবে আজ (৯ মার্চ) এডিলেড-এ তাকে ছাপিয়ে সবার ওপরে উঠে গেলেন মাহমুদুল্লাহ। শুধু তাই নয়, ওয়ানডে ইতিহাসে নিজের প্রথম শতক দিয়েই রেকর্ড বইয়ে নাম লেখালেন এই মিডলঅর্ডার। বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরির ইতিহাসও যে গড়লেন মাহমুদুল্লাহ! ৪৩ তম ওভারে ব্রডের দ্বিতীয় বলে ফিল্ডারদের ব্যর্থতার সুযোগে এক রান নিয়েই এই কীর্তি গড়েন রিয়াদ। তবে তারপর খুব একটা বেশিদূর এগুতে পারেননি তিনি। ১৩৮ বলে তার ৭টি চার আর ২ ছক্কার ইনিংসটি থেমেছে ১০৩-এ। বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহ এনে দিতে সাহায্য করেছে মুশফিকের ধৈর্যশীল ব্যাটিং। মাত্র ৭৭ বলে ৮ চার আর এক ছক্কায় মুশফিক যখন থেমেছে তখন তার নামের পাশে লেখা হয়ে গেছে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের তৃতীয় ৮৯ রান। এই জুটি থেকেই বাংলাদেশ পেয়েছে ১৪১ রান। যা বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জুটি।
চলতি বিশ্বকাপেই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে মাহমুদুল্লাহ-তামিমের করা ১৩৯ রানের জুটিই ছিলো সর্বোচ্চ। পরে সাব্বির, মাশরাফিদের বদৌলতে ৭ উইকেটে বাংলাদেশ থেমেছে ২৭৫ এ। যা দলটির বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহও। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এর আগে ২০১০ সালে ঢাকায় ৬ উইকেটে ২৬০ রান তুলেছিলো বাংলাদেশ। জয়ের জন্য আজ ইংল্যান্ডকে ২৭৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। জেমস এন্ডারসনের করা প্রথম ওভারেই ফিরে যান ইমরুল কায়েস। মুখোমুখি হওয়া দ্বিতীয় বলেই ফিরে যান এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তৃতীয় স্লিপে ক্রিস জর্ডানের হাতে ধরা পড়েন তিনি। পরের ওভারে তামিম ইকবালকেও ফেরান এন্ডারসন। প্রথম স্লিপে জো রুটের ক্যাচে পরিণত হন তামিম। এন্ডারসনের গতির কাছে মাত্র ৮ রানে দুই ওপেনার ইমরুল-তামিমকে হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছিলেন সৌম্য। ২১তম ওভারে দলীয় ৯৪ রানে ফিরে যান সৌম্য সরকারও (৪০)। ক্রিস জর্ডানের বলে জস বাটলারের গ্ল্যাভসবন্দি হন তিনি। তার বিদায়ে ভাঙে ৮৬ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি। মইন আলির করা পরের ওভারে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সাকিব আল হাসান।
এদিকে এই বিশ্বকাপে ধারাবাহিক রান পাওয়া সাকিবও আজ মুখ থুবড়ে পড়েছেন মাত্র ২ রানে। মইন আলির করা পরের ওভারে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের স্কোর বোর্ডে তখন একশ’ রানও ওঠেনি (৯৯/৪)। অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড ওভালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশের টপ অর্ডারদের চিত্রটা আজ ছিলো এমনই। সেই সঙ্কট কাটাতে হঠাৎই দৈব শক্তি নিয়ে হাজির হন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বর্তমান দুই ভায়রা মাহমুদুল্লাহ-মুশফিক। এই দু’জনের দৃঢ়তায় কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করার ম্যাচে বড় সংগ্রহ গড়ে বাংলাদেশ। দুটি পরিবর্তান নিয়ে মাঠে নেমেছিলো বাংলাদেশ দল। চোটের কারণে বিশ্বকাপ শেষ হয়ে যাওয়া এনামুল হকের জায়গায় দলে এসেছেন ইমরুল কায়েস। নাসির হোসেনের জায়গায় দলে এসে বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি। আগের চার ম্যাচে বাংলাদেশের জয় দুটি। আফগানিস্তানকে হারিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করা দলটি হারায় স্কটল্যান্ডকেও। শ্রীলঙ্কার কাছে হারে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাদের অন্য ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে যায়। দুটি পরিবর্তন এসেছে ইংল্যান্ড দলেও। দলে ফিরেছেন আলেক্স হেলস ও ক্রিস জর্ডান। বাদ পড়েছেন গ্যারি ব্যালান্স ও স্টিভেন ফিন। ইংল্যান্ড আগের চার ম্যাচে জিতে একটিতে। স্কটল্যান্ডকে হারায় তারা। অস্ট্রেলিয়া, নিউ জিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার কাছে হারে ইংল্যান্ড।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য লিখুন

About Author Information

বিশ্বকাপ ক্রিকেট : প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে মাহমুদুল্লাহর সেঞ্চুরি

প্রকাশের সময় : ০৪:৫০:১০ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ মার্চ ২০১৫

হককথা ডেস্ক: বিশ্ব ক্রিকেট রাজ্যে প্রথম বাংলাদেশী হিসেবে ইতিহাস গড়লেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। পরিণত হলেন নায়কে। ৯ মার্চ এডিলেডে অনুষ্ঠিত চলতি বিশ্বকাপ ক্রিকেটের পঞ্চম খেলায় শক্তিশালী ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের হয়ে শতরান করলেন। তিনি ১৩৮ বলে ১০৩ রান সংগ্রহ করেন। আর তাই ঢাকার প্রথম আলোর ভাষায় বাংলা ক্রিকেট ইতিহানের আরেক বরপুত্র, দৈনিক ইনকিলাব-এর ভাষায় মাহমুদুল্লাহর ইতিহাসময় সেঞ্চুরি।
স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে আগের ম্যাচে তামিমের ৯৫ বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত ইনিংস। ২০০৭ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে করা আশরাফুলের ৮৭ রানকে টপকে সবার ওপরে উঠেছিলেন এই ওপেনার। তবে আজ (৯ মার্চ) এডিলেড-এ তাকে ছাপিয়ে সবার ওপরে উঠে গেলেন মাহমুদুল্লাহ। শুধু তাই নয়, ওয়ানডে ইতিহাসে নিজের প্রথম শতক দিয়েই রেকর্ড বইয়ে নাম লেখালেন এই মিডলঅর্ডার। বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপে প্রথম সেঞ্চুরির ইতিহাসও যে গড়লেন মাহমুদুল্লাহ! ৪৩ তম ওভারে ব্রডের দ্বিতীয় বলে ফিল্ডারদের ব্যর্থতার সুযোগে এক রান নিয়েই এই কীর্তি গড়েন রিয়াদ। তবে তারপর খুব একটা বেশিদূর এগুতে পারেননি তিনি। ১৩৮ বলে তার ৭টি চার আর ২ ছক্কার ইনিংসটি থেমেছে ১০৩-এ। বাংলাদেশকে বড় সংগ্রহ এনে দিতে সাহায্য করেছে মুশফিকের ধৈর্যশীল ব্যাটিং। মাত্র ৭৭ বলে ৮ চার আর এক ছক্কায় মুশফিক যখন থেমেছে তখন তার নামের পাশে লেখা হয়ে গেছে বিশ্বকাপে বাংলাদেশের তৃতীয় ৮৯ রান। এই জুটি থেকেই বাংলাদেশ পেয়েছে ১৪১ রান। যা বিশ্বকাপে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ রানের জুটি।
চলতি বিশ্বকাপেই স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে মাহমুদুল্লাহ-তামিমের করা ১৩৯ রানের জুটিই ছিলো সর্বোচ্চ। পরে সাব্বির, মাশরাফিদের বদৌলতে ৭ উইকেটে বাংলাদেশ থেমেছে ২৭৫ এ। যা দলটির বিপক্ষে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ সংগ্রহও। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এর আগে ২০১০ সালে ঢাকায় ৬ উইকেটে ২৬০ রান তুলেছিলো বাংলাদেশ। জয়ের জন্য আজ ইংল্যান্ডকে ২৭৬ রানের লক্ষ্য দিয়েছে বাংলাদেশ। জেমস এন্ডারসনের করা প্রথম ওভারেই ফিরে যান ইমরুল কায়েস। মুখোমুখি হওয়া দ্বিতীয় বলেই ফিরে যান এই বাঁহাতি ব্যাটসম্যান। তৃতীয় স্লিপে ক্রিস জর্ডানের হাতে ধরা পড়েন তিনি। পরের ওভারে তামিম ইকবালকেও ফেরান এন্ডারসন। প্রথম স্লিপে জো রুটের ক্যাচে পরিণত হন তামিম। এন্ডারসনের গতির কাছে মাত্র ৮ রানে দুই ওপেনার ইমরুল-তামিমকে হারানো বাংলাদেশকে পথ দেখাচ্ছিলেন সৌম্য। ২১তম ওভারে দলীয় ৯৪ রানে ফিরে যান সৌম্য সরকারও (৪০)। ক্রিস জর্ডানের বলে জস বাটলারের গ্ল্যাভসবন্দি হন তিনি। তার বিদায়ে ভাঙে ৮৬ রানের তৃতীয় উইকেট জুটি। মইন আলির করা পরের ওভারে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সাকিব আল হাসান।
এদিকে এই বিশ্বকাপে ধারাবাহিক রান পাওয়া সাকিবও আজ মুখ থুবড়ে পড়েছেন মাত্র ২ রানে। মইন আলির করা পরের ওভারে স্লিপে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশের স্কোর বোর্ডে তখন একশ’ রানও ওঠেনি (৯৯/৪)। অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডিলেড ওভালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টস হেরে ব্যাট করতে নামা বাংলাদেশের টপ অর্ডারদের চিত্রটা আজ ছিলো এমনই। সেই সঙ্কট কাটাতে হঠাৎই দৈব শক্তি নিয়ে হাজির হন বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের বর্তমান দুই ভায়রা মাহমুদুল্লাহ-মুশফিক। এই দু’জনের দৃঢ়তায় কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করার ম্যাচে বড় সংগ্রহ গড়ে বাংলাদেশ। দুটি পরিবর্তান নিয়ে মাঠে নেমেছিলো বাংলাদেশ দল। চোটের কারণে বিশ্বকাপ শেষ হয়ে যাওয়া এনামুল হকের জায়গায় দলে এসেছেন ইমরুল কায়েস। নাসির হোসেনের জায়গায় দলে এসে বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি। আগের চার ম্যাচে বাংলাদেশের জয় দুটি। আফগানিস্তানকে হারিয়ে বিশ্বকাপ অভিযান শুরু করা দলটি হারায় স্কটল্যান্ডকেও। শ্রীলঙ্কার কাছে হারে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তাদের অন্য ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়ে যায়। দুটি পরিবর্তন এসেছে ইংল্যান্ড দলেও। দলে ফিরেছেন আলেক্স হেলস ও ক্রিস জর্ডান। বাদ পড়েছেন গ্যারি ব্যালান্স ও স্টিভেন ফিন। ইংল্যান্ড আগের চার ম্যাচে জিতে একটিতে। স্কটল্যান্ডকে হারায় তারা। অস্ট্রেলিয়া, নিউ জিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার কাছে হারে ইংল্যান্ড।