নিউইয়র্ক ০৫:৫৫ অপরাহ্ন, বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪, ২ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের জানাজা অনুষ্ঠিত

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৪:২২:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০
  • / ১৬২ বার পঠিত

নিউইয়র্ক (ইউএনএ): নিউইয়র্ক প্রবাসী একাত্তুরের রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান আর নেই। তিনি গত মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) নিউইয়র্ক সময় সকাল ৭টায় লং আইল্যান্ড জুইস হসাপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন)। তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ১মেয়েসহ বহু আত্বীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব রেখে গেছেন। উল্লেখ্য, তিনি এই হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। মরহুম মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান তিনি বাংলাদেশ সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ ও কুইন্স কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার মোহাম্মদ আলী’র বড় ভাই।
মরহুমের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান হার্টের সমস্যায় গত ৪ ডিসেম্বর তিনি লং আইল্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ২ ফেব্রুয়ারী রোববার তার হার্টের এলবার্ট অপারেশন হলেও তা সফল হয়নি। ইতিপূর্বে ১৭/১৮ বছর আগে তার প্রথম ওপেন হার্ট সার্জারী হয়। খবর ইউএনএ’র।
মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান যুদ্ধকালীন সময়ে ২ নম্বর সেক্টরের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি নারায়নগঞ্জের কদম রসুল খাদেম পরিবারের সন্তান। গত ৮ বছর ধরে তিনি স্ত্রী সন্তানদের সাথে নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় বসবাস করছিলেন।
এদিকে মুক্তিযোদ্ধা আক্তারুজ্জামানের মৃত্যুতে নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কমিউনিটির মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। অপরদিকে বড় ভাইয়ের বিদেহী আতœার মাগফেরাতের জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করেছেন মোহাম্মদ আলী।
জানাজা: মরহুম মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের নামাজে জানাজা মঙ্গলবার বাদ আসর জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার পূর্বে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের ভাইস কনসাল শামীম আহমেদ, মরহুমের বড় ছেলে খালেদ আক্তার ও ছোট ভাই মোহাম্মদ আলী সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন এবং মরহুমের বিদেহী শান্তির জন্য সবার দোয়া কামনা করেন। জানাজা শেষে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।
বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফখরুল আলম, এটর্নী মঈন চৌধুরী এবং বাংলাদেশ সোসাইটি ও নারায়নগঞ্জ জেলা সমিতির নেতৃবৃন্দ সহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী জানাজায় অংশ নেন।
পরবর্তীতে জানাজা শেষে পারিবারিক সিদ্ধান্তে মঙ্গলবার রাতেই তার মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হয়। মরদেহের সাথে তার পরিবারের সবাই মঙ্গলবার রাতেই ঢাকার উদ্দেশ্যে নিউইয়র্ক ত্যাগ করেন। তার মরদেহ নারায়নগঞ্জের নবীগঞ্জ কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে ছোট ভাই মোহাম্মদ আলী জানান।
শোক প্রকাশ: বাংলাদেশ সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী’র বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন সিটি কাউন্সিলম্যান এবং কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কস্টা কন্সটান্টিডিস।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

About Author Information

মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের জানাজা অনুষ্ঠিত

প্রকাশের সময় : ০৪:২২:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২০

নিউইয়র্ক (ইউএনএ): নিউইয়র্ক প্রবাসী একাত্তুরের রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান আর নেই। তিনি গত মঙ্গলবার (২৫ ফেব্রুয়ারী) নিউইয়র্ক সময় সকাল ৭টায় লং আইল্যান্ড জুইস হসাপাতালে ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজেউন)। তার বয়স হয়েছিল ৭০ বছর। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২ ছেলে ১মেয়েসহ বহু আত্বীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব রেখে গেছেন। উল্লেখ্য, তিনি এই হাসপাতালেই চিকিৎসাধীন ছিলেন। মরহুম মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান তিনি বাংলাদেশ সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ ও কুইন্স কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার মোহাম্মদ আলী’র বড় ভাই।
মরহুমের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান হার্টের সমস্যায় গত ৪ ডিসেম্বর তিনি লং আইল্যান্ড হাসপাতালে ভর্তি হন। গত ২ ফেব্রুয়ারী রোববার তার হার্টের এলবার্ট অপারেশন হলেও তা সফল হয়নি। ইতিপূর্বে ১৭/১৮ বছর আগে তার প্রথম ওপেন হার্ট সার্জারী হয়। খবর ইউএনএ’র।
মোহাম্মদ আকতারুজ্জামান যুদ্ধকালীন সময়ে ২ নম্বর সেক্টরের কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি নারায়নগঞ্জের কদম রসুল খাদেম পরিবারের সন্তান। গত ৮ বছর ধরে তিনি স্ত্রী সন্তানদের সাথে নিউইয়র্কের জ্যামাইকায় বসবাস করছিলেন।
এদিকে মুক্তিযোদ্ধা আক্তারুজ্জামানের মৃত্যুতে নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কমিউনিটির মধ্যে শোকের ছায়া নেমে আসে। অপরদিকে বড় ভাইয়ের বিদেহী আতœার মাগফেরাতের জন্য সকলের নিকট দোয়া কামনা করেছেন মোহাম্মদ আলী।
জানাজা: মরহুম মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের নামাজে জানাজা মঙ্গলবার বাদ আসর জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে অনুষ্ঠিত হয়। জানাজার পূর্বে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের ভাইস কনসাল শামীম আহমেদ, মরহুমের বড় ছেলে খালেদ আক্তার ও ছোট ভাই মোহাম্মদ আলী সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন এবং মরহুমের বিদেহী শান্তির জন্য সবার দোয়া কামনা করেন। জানাজা শেষে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মুকিত চৌধুরীর নেতৃত্বে প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে তাকে গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।
বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ফখরুল আলম, এটর্নী মঈন চৌধুরী এবং বাংলাদেশ সোসাইটি ও নারায়নগঞ্জ জেলা সমিতির নেতৃবৃন্দ সহ বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশী জানাজায় অংশ নেন।
পরবর্তীতে জানাজা শেষে পারিবারিক সিদ্ধান্তে মঙ্গলবার রাতেই তার মরদেহ বাংলাদেশে পাঠানো হয়। মরদেহের সাথে তার পরিবারের সবাই মঙ্গলবার রাতেই ঢাকার উদ্দেশ্যে নিউইয়র্ক ত্যাগ করেন। তার মরদেহ নারায়নগঞ্জের নবীগঞ্জ কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে ছোট ভাই মোহাম্মদ আলী জানান।
শোক প্রকাশ: বাংলাদেশ সোসাইটির কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ আলী’র বড় ভাই মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক রুহুল আমিন সিদ্দিকী সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।
এছাড়াও মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ আকতারুজ্জামানের ইন্তেকালে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন সিটি কাউন্সিলম্যান এবং কুইন্স বরো প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী কস্টা কন্সটান্টিডিস।