নিউইয়র্ক ০৪:১৭ অপরাহ্ন, সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ৭ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি জন উদ্দিনের ইন্তেকাল

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০৮:০০:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৫ জুন ২০২৩
  • / ১৪ বার পঠিত

হককথা রিপোর্ট : জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকার সাবেক সভাপতি জন উদ্দিন গত ৩ জুন শনিবার রাত ১টা ৩০ মিনিটে আলাবামায় হ্রদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। জানা গেছে, রাতে হঠাৎ তার বুকে শুরু হলে তার স্ত্রী সুফিয়া হান্নান এম্বুলেন্স ডেকে তাকে নিকটবর্তী হাসপাতাল নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। উল্লেখ্য, তার দেশের বাড়ী সিলেটের বিয়ানীবাজারে।

জানা গেছে, জন উদ্দিন গ্রীষ্মকালীন সময়ে আলাবামা রাজ্যের ডেমোপ্লাস শহরে একটি হোটেলে কাজ করতেন। কাজের জন্যই তারা এ শহরে থাকতেন। তাদের বসবাস ছিলো টেক্সাসে। সেখানে তাদের বাসা রয়েছে। এর আগে তিনি ফ্লোরিডা ও নিউইয়র্কে বসবাস করেন। তার ১২ বছরের একটি ছেলে রয়েছে।

এদিকে জন উদ্দিনের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে বড়ভাই জালাল উদ্দিন মিশিগান থেকে টেক্সাসে পৌছেন। সেখানে তার স্ত্রী সন্তানের সাথে কথা বলে লাশ কোথায় দাফন করা হবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানা গেছে।

জন উদ্দিনের মৃত্যুতে জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকার সভাপতি বদরুল হোসেন খান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রোকন হাকিম এক বিবৃতিতে গভীর শোক ও সমবেদন প্রকাশ করেছেন। এছাড়াও সংগঠনের কার্যকরী কমিটি কর্তৃক বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মইনুল ইসলামও এক বিবৃতিতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

জালালাবাদ এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি জন উদ্দিনের ইন্তেকাল

প্রকাশের সময় : ০৮:০০:২৫ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৫ জুন ২০২৩

হককথা রিপোর্ট : জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকার সাবেক সভাপতি জন উদ্দিন গত ৩ জুন শনিবার রাত ১টা ৩০ মিনিটে আলাবামায় হ্রদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। জানা গেছে, রাতে হঠাৎ তার বুকে শুরু হলে তার স্ত্রী সুফিয়া হান্নান এম্বুলেন্স ডেকে তাকে নিকটবর্তী হাসপাতাল নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। উল্লেখ্য, তার দেশের বাড়ী সিলেটের বিয়ানীবাজারে।

জানা গেছে, জন উদ্দিন গ্রীষ্মকালীন সময়ে আলাবামা রাজ্যের ডেমোপ্লাস শহরে একটি হোটেলে কাজ করতেন। কাজের জন্যই তারা এ শহরে থাকতেন। তাদের বসবাস ছিলো টেক্সাসে। সেখানে তাদের বাসা রয়েছে। এর আগে তিনি ফ্লোরিডা ও নিউইয়র্কে বসবাস করেন। তার ১২ বছরের একটি ছেলে রয়েছে।

এদিকে জন উদ্দিনের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে বড়ভাই জালাল উদ্দিন মিশিগান থেকে টেক্সাসে পৌছেন। সেখানে তার স্ত্রী সন্তানের সাথে কথা বলে লাশ কোথায় দাফন করা হবে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে বলে জানা গেছে।

জন উদ্দিনের মৃত্যুতে জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকার সভাপতি বদরুল হোসেন খান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রোকন হাকিম এক বিবৃতিতে গভীর শোক ও সমবেদন প্রকাশ করেছেন। এছাড়াও সংগঠনের কার্যকরী কমিটি কর্তৃক বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মইনুল ইসলামও এক বিবৃতিতে গভীর শোক ও সমবেদনা প্রকাশ করেছেন।