নিউইয়র্ক ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

বিশ্বকাপ জয়ের ১০৫ ঘণ্টা পর দেশে ফিরলেন রোহিতরা, ছাদখোলা বাসে হবে প্যারেড

হককথা ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : ০৫:৩৮:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই ২০২৪
  • / ৩৬ বার পঠিত

টি–টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী ভারতীয় দল আজ বিকেলে মুম্বাইয়ে ট্রফি নিয়ে প্যারেড করবে প্রতীকী ছবি বিসিসিআই

উৎসবে একটু বোধ হয় দেরিই হয়ে গেল রোহিত শর্মা-বিরাট কোহলি-যশপ্রীত বুমরাদের। তাঁদের অবশ্য উপায়ও ছিল না। ক্যারিবীয় সাগরে সৃষ্টি ঘূর্ণিঝড় ‘বেরিলের’ কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের পর থেকেই যে বার্বাডোজে আটকে পড়েছিল ভারতীয় দল। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ থেকে সব ধরনের বিমান ওড়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। হোটেলে শুয়েবসেই দিন কেটেছে তাঁদের।

ভারতীয় ক্রিকেট দল নিজেদের কিছুটা দুর্ভাগা ভাবতেই পারে। ১৩ বছর পর ক্রিকেটে বিশ্বকাপ জিতল ভারত, সেই উৎসবেই কিনা দেরি! আজ খুব ভোরে অবশ্য ভাড়া করা বিমানে করে রাজধানী দিল্লি পৌঁছেছে ভারতীয় দল। শিরোপা জয়ের ১০৫ ঘণ্টা পর। বিমানবন্দরে পৌঁছেই সেখানে সমর্থকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসের দেখা পেয়েছেন রোহিত শর্মারা। বিমানবন্দরে একদফা উদ্‌যাপনও হয়েছে। কিন্তু এখনো উদ্‌যাপনের বাকি আছে অনেক কিছুই।

বিমানবন্দর থেকে সোজা ভারতীয় ক্রিকেট দলকে নিয়ে যাওয়া হয় দিল্লির একটি পাঁচ তারকা হোটেল। সেখানেও হয়েছে কিছু আনুষ্ঠানিকতা। বিশ্রাম-টিশ্রাম সেরে ভারতীয় দল সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে। বার্বাডোজ থেকে ভ্রমণ–জার্সিতে ভারতে পৌঁছালেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ‘চ্যাম্পিয়ন’ লেখা জার্সি পরেই দেখা করেছেন দলের সদস্যরা।

আজ দুপুরেই সবাই উড়াল দিয়েছেন মুম্বাইয়ে। সেখানে হবে বড় উৎসব। ছাদখোলা বাসে ট্রফি নিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে আনন্দ উদ্‌যাপনে মাতবেন ক্রিকেটার ও দল–সংশ্লিষ্ট সবাই। ছাদখোলা বাসে করে মুম্বাই শহর প্রদক্ষিণ করবেন রোহিত-কোহলিরা। মুম্বাইয়ে একটি নাগরিক সংবর্ধনারও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গত শনিবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৭ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। ২০১১ সালে নিজেদের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের শিরোপা জিতলেও এরপর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে ৮টি বিশ্বকাপ ভারতের হাতছাড়া হয়। এর সঙ্গে যোগ হয় টানা দুটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা না পাওয়ার হতাশা।

এবারও ফাইনালের একপর্যায়ে মনে হচ্ছিল, শিরোপাটা বুঝি রোহিত-কোহলিদের হাতে ধরা দিচ্ছে না। কিন্তু অসাধারণ বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে প্রোটিয়াদের হতাশ করে শেষ হাসিটা হাসে ভারত। সূত্র: প্রথম আলো।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

বিশ্বকাপ জয়ের ১০৫ ঘণ্টা পর দেশে ফিরলেন রোহিতরা, ছাদখোলা বাসে হবে প্যারেড

প্রকাশের সময় : ০৫:৩৮:৫৯ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৪ জুলাই ২০২৪

উৎসবে একটু বোধ হয় দেরিই হয়ে গেল রোহিত শর্মা-বিরাট কোহলি-যশপ্রীত বুমরাদের। তাঁদের অবশ্য উপায়ও ছিল না। ক্যারিবীয় সাগরে সৃষ্টি ঘূর্ণিঝড় ‘বেরিলের’ কারণে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ফাইনালের পর থেকেই যে বার্বাডোজে আটকে পড়েছিল ভারতীয় দল। ঘূর্ণিঝড়ের কারণে ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জ থেকে সব ধরনের বিমান ওড়া বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। হোটেলে শুয়েবসেই দিন কেটেছে তাঁদের।

ভারতীয় ক্রিকেট দল নিজেদের কিছুটা দুর্ভাগা ভাবতেই পারে। ১৩ বছর পর ক্রিকেটে বিশ্বকাপ জিতল ভারত, সেই উৎসবেই কিনা দেরি! আজ খুব ভোরে অবশ্য ভাড়া করা বিমানে করে রাজধানী দিল্লি পৌঁছেছে ভারতীয় দল। শিরোপা জয়ের ১০৫ ঘণ্টা পর। বিমানবন্দরে পৌঁছেই সেখানে সমর্থকদের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসের দেখা পেয়েছেন রোহিত শর্মারা। বিমানবন্দরে একদফা উদ্‌যাপনও হয়েছে। কিন্তু এখনো উদ্‌যাপনের বাকি আছে অনেক কিছুই।

বিমানবন্দর থেকে সোজা ভারতীয় ক্রিকেট দলকে নিয়ে যাওয়া হয় দিল্লির একটি পাঁচ তারকা হোটেল। সেখানেও হয়েছে কিছু আনুষ্ঠানিকতা। বিশ্রাম-টিশ্রাম সেরে ভারতীয় দল সাক্ষাৎ করতে গিয়েছিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে। বার্বাডোজ থেকে ভ্রমণ–জার্সিতে ভারতে পৌঁছালেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ‘চ্যাম্পিয়ন’ লেখা জার্সি পরেই দেখা করেছেন দলের সদস্যরা।

আজ দুপুরেই সবাই উড়াল দিয়েছেন মুম্বাইয়ে। সেখানে হবে বড় উৎসব। ছাদখোলা বাসে ট্রফি নিয়ে সাধারণ মানুষের সঙ্গে আনন্দ উদ্‌যাপনে মাতবেন ক্রিকেটার ও দল–সংশ্লিষ্ট সবাই। ছাদখোলা বাসে করে মুম্বাই শহর প্রদক্ষিণ করবেন রোহিত-কোহলিরা। মুম্বাইয়ে একটি নাগরিক সংবর্ধনারও ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গত শনিবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শ্বাসরুদ্ধকর ফাইনালে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৭ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় ভারত। ২০১১ সালে নিজেদের মাটিতে ওয়ানডে বিশ্বকাপের শিরোপা জিতলেও এরপর ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি মিলিয়ে ৮টি বিশ্বকাপ ভারতের হাতছাড়া হয়। এর সঙ্গে যোগ হয় টানা দুটি বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের শিরোপা না পাওয়ার হতাশা।

এবারও ফাইনালের একপর্যায়ে মনে হচ্ছিল, শিরোপাটা বুঝি রোহিত-কোহলিদের হাতে ধরা দিচ্ছে না। কিন্তু অসাধারণ বোলিং ও ফিল্ডিংয়ে প্রোটিয়াদের হতাশ করে শেষ হাসিটা হাসে ভারত। সূত্র: প্রথম আলো।