নিউইয়র্ক ১০:৩১ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

‘এটি আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ’ রোনালদো

রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : ০১:৩৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০২২
  • / ২০ বার পঠিত

ক্রীড়া ডেস্ক : বিশ্বকাপ বাছাইয়ে প্লে-অফের ফাইনালে নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে রাতে বাঁচা-মরার লড়াইয় মাঠে নামবে রোনালদোর পর্তুগাল। কাতার বিশ্বকাপের টিকিট পেলে জিততেই হবে পর্তুগালকে। হারলেই বিদায়! তবে শক্তির বিচারে অনেক এগিয়ে থাকা পর্তুগালের রয়েছে রয়েছে একটি বাড়তি সুবিধাও। ম্যাচটি হবে তাদের ঘরের মাটিতে। তাই সমর্থকদের সামনে খেলার সুবিধা পুরোপুরি কাজে লাগাতে চান ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো।
বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ভক্তদের প্রতি পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলারের আহ্বান, প্রতিপক্ষের জন্য যেন তারা মাঠের আবহ কঠিন করে তোলেন। পর্তুগাল ও নর্থ মেসিডোনিয়ার ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার রাত পৌনে একটায় পোর্তোয় মাঠে। ‘সি’গ্রুপের প্লে-অফের সেমি-ফাইনালে গত বৃহস্পতিবার তুরস্ককে ঘরের মাঠে ৩-১ গোলে হারায় ইউরো ২০১৬ চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল।
অন্যদিকে ইতালিকে তাদের মাঠেই হারিয়ে বড় চমক দেখায় নর্থ মেসিডোনিয়া। পর্তুগালের জন্য দুর্ভাবনার কারণ, বাছাইয়ে নিজেদের সবশেষ পাঁচ অ্যাওয়ে ম্যাচের চারটিতে জিতেছে তাদের প্রতিপক্ষ দল। নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে রোনালদোর কণ্ঠে শোনা গেল আত্মবিশ্বাসের সুর। অ্যাওয়ে ম্যাচে প্রতিপক্ষের সাম্প্রতিক ফর্ম ভালো হলেও রোনালদোর বিশ্বাস, স্বাগতিক দর্শকদের প্রাণবন্ত উপস্থিতি ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিতে পারে।
রোনালদো তাদের ভক্তদের প্রতি আহ্বান, দ্রাগাওয়ে তারা (প্রতিপক্ষকে) যেন অতিষ্ট করে তোলে। তিনি বলেন,‘আমি গত রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় ভাবছিলাম (ম্যাচের আগে) আমাদের জাতীয় সঙ্গীত (স্পিকারে) না বাজিয়ে তা দর্শকদের দিয়ে গাওয়ানো হোক, যার মধ্য দিয়ে আমাদের আবেগ, আমাদের শক্তি এবং বিশ্বকাপে পৌঁছানোর লক্ষ্য প্রতিফলিত হবে। আমাদের ভক্তরা যদি তাদের স্বরুপে হাজির হয়, তাহলে মঙ্গলবার আমরাই জিতব।’
কাতার বিশ্বকাপের টিকেট পাওয়ার বাঁচা-মরার ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়াকে কোনোভাবেই হালকাভাবে নিতে চান না রোনালদো। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ফরোয়ার্ড মনে করেন, নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাবে তার দল। ‘এটি আমাদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হতে যাচ্ছে। চাপ দুই দলের জন্যই সমান। দল প্রস্তুত, আমরা কার বিপক্ষে খেলব তাতে আমার কিছু আসে যায় না। পর্তুগাল যদি নিজেদের সর্বোচ্চ মানে খেলে, আমরা বিশ্বের যেকোনো প্রতিপক্ষকে হারাতে পারি। তাই আমি ভক্তদের প্রতি জোর আহ্বান জানাচ্ছি: মঙ্গলবার আপনাদের পূর্ণ সমর্থন আমাদের দরকার। আপনারা যদি আমাদের সঙ্গে থাকেন, তাহলে আমরা ম্যাচটি জিতব।’
অনেকেই মনে করেন, কাতার বিশ্বকাপই হতে পারে বৈশ্বিক আসরে রোনালদোর সবশেষ উপস্থিতি। কেননা পরবর্তী বিশ্বকাপ আসতে আসতে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ তারকার বয়স হবে ৪১। সংবাদ সম্মেলনে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মেজাজ হারান রোনালদো। বললেন, অবসর নিয়ে না ভেবে যতদিন ইচ্ছা খেলা চালিয়ে যাবেন তিনি। ,‘আমি এই প্রশ্নগুলো শুনতে শুনতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি। আমিই আমার ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করব। আমি যদি খেলা চালিয়ে যেতে চাই, আমি তা করব। আমি যদি অবসর নিতে চাই, আমিই সেই সিদ্ধান্ত নিব। এসব সিদ্ধান্ত পুরোটাই আমার ব্যক্তিগত।’
হককথা/এমউএ

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

‘এটি আমার জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ’ রোনালদো

প্রকাশের সময় : ০১:৩৩:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০২২

ক্রীড়া ডেস্ক : বিশ্বকাপ বাছাইয়ে প্লে-অফের ফাইনালে নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে রাতে বাঁচা-মরার লড়াইয় মাঠে নামবে রোনালদোর পর্তুগাল। কাতার বিশ্বকাপের টিকিট পেলে জিততেই হবে পর্তুগালকে। হারলেই বিদায়! তবে শক্তির বিচারে অনেক এগিয়ে থাকা পর্তুগালের রয়েছে রয়েছে একটি বাড়তি সুবিধাও। ম্যাচটি হবে তাদের ঘরের মাটিতে। তাই সমর্থকদের সামনে খেলার সুবিধা পুরোপুরি কাজে লাগাতে চান ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো।
বাঁচা-মরার লড়াইয়ে ভক্তদের প্রতি পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলারের আহ্বান, প্রতিপক্ষের জন্য যেন তারা মাঠের আবহ কঠিন করে তোলেন। পর্তুগাল ও নর্থ মেসিডোনিয়ার ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার রাত পৌনে একটায় পোর্তোয় মাঠে। ‘সি’গ্রুপের প্লে-অফের সেমি-ফাইনালে গত বৃহস্পতিবার তুরস্ককে ঘরের মাঠে ৩-১ গোলে হারায় ইউরো ২০১৬ চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল।
অন্যদিকে ইতালিকে তাদের মাঠেই হারিয়ে বড় চমক দেখায় নর্থ মেসিডোনিয়া। পর্তুগালের জন্য দুর্ভাবনার কারণ, বাছাইয়ে নিজেদের সবশেষ পাঁচ অ্যাওয়ে ম্যাচের চারটিতে জিতেছে তাদের প্রতিপক্ষ দল। নর্থ মেসিডোনিয়ার বিপক্ষে ম্যাচকে সামনে রেখে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে রোনালদোর কণ্ঠে শোনা গেল আত্মবিশ্বাসের সুর। অ্যাওয়ে ম্যাচে প্রতিপক্ষের সাম্প্রতিক ফর্ম ভালো হলেও রোনালদোর বিশ্বাস, স্বাগতিক দর্শকদের প্রাণবন্ত উপস্থিতি ম্যাচে পার্থক্য গড়ে দিতে পারে।
রোনালদো তাদের ভক্তদের প্রতি আহ্বান, দ্রাগাওয়ে তারা (প্রতিপক্ষকে) যেন অতিষ্ট করে তোলে। তিনি বলেন,‘আমি গত রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময় ভাবছিলাম (ম্যাচের আগে) আমাদের জাতীয় সঙ্গীত (স্পিকারে) না বাজিয়ে তা দর্শকদের দিয়ে গাওয়ানো হোক, যার মধ্য দিয়ে আমাদের আবেগ, আমাদের শক্তি এবং বিশ্বকাপে পৌঁছানোর লক্ষ্য প্রতিফলিত হবে। আমাদের ভক্তরা যদি তাদের স্বরুপে হাজির হয়, তাহলে মঙ্গলবার আমরাই জিতব।’
কাতার বিশ্বকাপের টিকেট পাওয়ার বাঁচা-মরার ম্যাচে নর্থ মেসিডোনিয়াকে কোনোভাবেই হালকাভাবে নিতে চান না রোনালদো। ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ফরোয়ার্ড মনে করেন, নিজেদের সেরাটা দিতে পারলে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল পাবে তার দল। ‘এটি আমাদের জীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ হতে যাচ্ছে। চাপ দুই দলের জন্যই সমান। দল প্রস্তুত, আমরা কার বিপক্ষে খেলব তাতে আমার কিছু আসে যায় না। পর্তুগাল যদি নিজেদের সর্বোচ্চ মানে খেলে, আমরা বিশ্বের যেকোনো প্রতিপক্ষকে হারাতে পারি। তাই আমি ভক্তদের প্রতি জোর আহ্বান জানাচ্ছি: মঙ্গলবার আপনাদের পূর্ণ সমর্থন আমাদের দরকার। আপনারা যদি আমাদের সঙ্গে থাকেন, তাহলে আমরা ম্যাচটি জিতব।’
অনেকেই মনে করেন, কাতার বিশ্বকাপই হতে পারে বৈশ্বিক আসরে রোনালদোর সবশেষ উপস্থিতি। কেননা পরবর্তী বিশ্বকাপ আসতে আসতে সাবেক রিয়াল মাদ্রিদ তারকার বয়স হবে ৪১। সংবাদ সম্মেলনে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে মেজাজ হারান রোনালদো। বললেন, অবসর নিয়ে না ভেবে যতদিন ইচ্ছা খেলা চালিয়ে যাবেন তিনি। ,‘আমি এই প্রশ্নগুলো শুনতে শুনতে ক্লান্ত হয়ে পড়েছি। আমিই আমার ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করব। আমি যদি খেলা চালিয়ে যেতে চাই, আমি তা করব। আমি যদি অবসর নিতে চাই, আমিই সেই সিদ্ধান্ত নিব। এসব সিদ্ধান্ত পুরোটাই আমার ব্যক্তিগত।’
হককথা/এমউএ