নিউইয়র্ক ০৮:০১ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪, ২৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
বিজ্ঞাপন :
মঙ্গলবারের পত্রিকা সাপ্তাহিক হককথা ও হককথা.কম এ আপনার প্রতিষ্ঠানের বিজ্ঞাপন দিতে যোগাযোগ করুন +1 (347) 848-3834

সাগরপথে ইউরোপ যাওয়ার পথে ৭ অভিবাসীর মৃত্যু

হককথা ডেস্ক
  • প্রকাশের সময় : ০২:০০:১৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪
  • / ২৩ বার পঠিত

উন্নত জীবনের আশায় ঝুঁকি নিয়ে সাগরপথে ইউরোপে পাড়ি জমান অনেকেই। তেমনই এক ভেলায় করে পাচারকারীদের সহায়তায় তুরস্ক থেকে গ্রিসের উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন অভিবাসী। পথে মধ্যে তুরস্ক উপকূলে পাথরে আঘাত হেনে ডুবে যায় তাদের ভেলা। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যম ডয়চে ভেলে।

তুরস্কের এজিয়ান সাগরে অভিবাসীদের বহনকারী একটি লাইফ ভেলা মঙ্গলবার তুরস্কের উপকূলের শহর সেসমের কাছে পাথরের আঘাতে বিধ্বস্ত হয়। এ বিষয়ে তুর্কি উপকূলরক্ষীরা জানিয়েছে, এ পর্যন্ত ভেলায় থাকা অন্তত সাতজন মারা গেছেন। আর শিশুসহ ১৯ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। যদিও নিহত বা উদ্ধার হওয়া অভিবাসীরা কোন দেশের নাগরিক সেটা জানায়নি তারা।

এ ঘটনায় তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলি ইয়ারলিকায়া সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ বলেছেন, উদ্ধার অভিযানে তাদের একটি হেলিকপ্টার, চারটি কোস্টগার্ড জাহাজ এবং একটি ডুবুরি দল অনুসন্ধান চালিয়েছে।

তুরস্কে অবশ্য এমন ঘটনা অনেকটা নিয়মিতই। বিশেষ করে গ্রীষ্মের মাসগুলিতে চোরাকারবারীরা প্রতিদিনই তুরস্কের এজিয়ান উপকূলরেখা বরাবর, অভিবাসীদের তুরস্ক থেকে গ্রিসে পাঠানোর চেষ্টা করেন। যেখানে প্রায়শই মৃত্যু ও হতাহতের ঘটনা ঘটে। সূত্র: যুগান্তর।

Tag :

সোশ্যাল মিডিয়ায় খবরটি শেয়ার করুন

সাগরপথে ইউরোপ যাওয়ার পথে ৭ অভিবাসীর মৃত্যু

প্রকাশের সময় : ০২:০০:১৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১০ জুলাই ২০২৪

উন্নত জীবনের আশায় ঝুঁকি নিয়ে সাগরপথে ইউরোপে পাড়ি জমান অনেকেই। তেমনই এক ভেলায় করে পাচারকারীদের সহায়তায় তুরস্ক থেকে গ্রিসের উদ্দেশে রওনা হয়েছিলেন বেশ কয়েকজন অভিবাসী। পথে মধ্যে তুরস্ক উপকূলে পাথরে আঘাত হেনে ডুবে যায় তাদের ভেলা। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন সংবাদ মাধ্যম ডয়চে ভেলে।

তুরস্কের এজিয়ান সাগরে অভিবাসীদের বহনকারী একটি লাইফ ভেলা মঙ্গলবার তুরস্কের উপকূলের শহর সেসমের কাছে পাথরের আঘাতে বিধ্বস্ত হয়। এ বিষয়ে তুর্কি উপকূলরক্ষীরা জানিয়েছে, এ পর্যন্ত ভেলায় থাকা অন্তত সাতজন মারা গেছেন। আর শিশুসহ ১৯ জনকে উদ্ধার করা হয়েছে। যদিও নিহত বা উদ্ধার হওয়া অভিবাসীরা কোন দেশের নাগরিক সেটা জানায়নি তারা।

এ ঘটনায় তুরস্কের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আলি ইয়ারলিকায়া সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম এক্স-এ বলেছেন, উদ্ধার অভিযানে তাদের একটি হেলিকপ্টার, চারটি কোস্টগার্ড জাহাজ এবং একটি ডুবুরি দল অনুসন্ধান চালিয়েছে।

তুরস্কে অবশ্য এমন ঘটনা অনেকটা নিয়মিতই। বিশেষ করে গ্রীষ্মের মাসগুলিতে চোরাকারবারীরা প্রতিদিনই তুরস্কের এজিয়ান উপকূলরেখা বরাবর, অভিবাসীদের তুরস্ক থেকে গ্রিসে পাঠানোর চেষ্টা করেন। যেখানে প্রায়শই মৃত্যু ও হতাহতের ঘটনা ঘটে। সূত্র: যুগান্তর।