NY Press Note

 
 

নিউইয়র্কের প্রেসনোট : সাংবাদিকদের প্রতি পরামর্শ এবং কিছু প্রশ্ন

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ গত সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনের পূর্বে সংঘটিত অপ্রীতিকর ঘটনার প্রেক্ষিতে সাংবাদিক সম্মেলনের শুরুতেই যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নিজাম চৌধুরী অপ্রীতিকর ঘটনার সংবাদটি যাতে কোন মিডিয়ায় প্রকাশ না পায় তার জন্য উপস্থিত সাংবাদিকদের প্রতি অনুরোধ করেন। তিনি আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদেরও অনুরোধ করেন স্যোসাল মিডিয়ায় ঐ ঘটনার কোন ছবি পোষ্ট না করতে। সাংবাদিক সম্মেলন সে করার পূর্বে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান অপ্রীতিকর ঘটনার জন্য দু:খ প্রকাশ করে বলেন, সাংবাদিক বন্ধুরা কিভাবে খবরটি প্রকাশ করবেন তা তারাই বিবেচনা করবেন।বিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : হলুদ সাংবাদিকতার শিকার গাফফার চৌধুরী

কাফেরদের নামকরণে আরবী শব্দের ব্যবহার নিয়ে নিউইয়র্কে অমর একুশের গানের রচয়িতা, প্রখ্যাত সাংবাদিক ও কলামিস্ট আব্দুল গাফফার চৌধুরী প্রদত্ত বক্তব্যকে নিউইয়র্ক ভিক্তিক একটি অপেশাদার নিউজ এজেন্সীর পাঠানো ‘টুইস্ট করা’ খবরে দেশে-প্রবাসে তোলপাড় চলছে। গত ৩ জুলাই শুক্রবার জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশনে গাফফার চৌধুরীর পুরো বক্তব্য এবং উপস্থিত সাংবাদিক ও সুধীজনের প্রশ্নোত্তর পর্বটি পুরোটাই নিউইয়র্ক ভিত্তিক টাইম টেলিভিশন সরাসরি সম্প্রচার করে। নিউইয়র্কে কর্মরত ঢাকার একাধিক জাতীয় দৈনিকের নিজস্ব প্রতিনিধিদের রিপোর্ট সংশ্লিষ্ট মিডিয়াগুলোতে কিছুক্ষণের মধ্যেই অনলাইন সংস্করনে খবর হয়ে প্রকাশিত হয়। এর কয়েক ঘন্টা পর নিউইয়র্ক থেকে এনা নামক নিউজ এজেন্সীর খবর উস্মকানীমূলকবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : সম্পাদক ও সাংবাদিকদের মর্যাদার ব্যাপারে কমিউনিটি উদাসীন কেন?

সাম্প্রতিককালে জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশন ও বাংলাদেশ কনস্যুলেটসহ কমিউনিটির বিভিন্ন অনুষ্ঠানে স্থানীয় বাংলা মিডিয়ার সম্পাদক/সাংবাদিকদের প্রতি অনুষ্ঠানের আয়োজকদের চরম অবহেলা ও অবজ্ঞা অতিরিক্ত মাত্রায় চোখে পড়ছে। উত্তর আমেরিকায় বাংলাদেশী কমিউনিটি বিণির্মানে বাংলা মিডিয়াগুলোর অবদান বিশেষ করে গত ১৫ থেকে ২৫ বছর ধরে প্রকাশিত সাপ্তাহিকীগুলোর অবদান অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। বিভিন্ন অনুষ্ঠানে আয়োজকদের কেউ কেউ মিডিয়াকে সমাজের দর্পণ ও জাতির বিবেক হিসেবে বলাবলি করলেও কার্যত তা বলার জন্যই হয়তো বলেন। কেননা, যারা সমাজ বা জাতির বিবেক বা সমাজের দর্পন তারা যখন সমাজের দর্পণ হিসেবে কমিউনিটির প্রকৃত চেহারা তুলে ধরেন অথবা ‘জাতিরবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার নিয়ে নানা কথা

নিউইয়র্ক তথা উত্তর আমেরিকার বাংলাদেশী কমিউনিটির অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের মিডিয়া পার্টনার হিসেবে অন্তর্ভূক্ত হওয়ার বিষয়ে কমিউনটিতে নানা কথা হচ্ছে। কেন মিডিয়া পার্টনার- এ নিয়ে যেমন কমিউনিটির সচেতন মহলে নানা প্রশ্ন রয়েছে। মিডিয়া পার্টনার হওয়ার ‘যোগ্যতা’ কি তা নিয়েও কথা হচ্ছে। কমিউনিটির অনুষ্ঠানাদি বিশেষ করে পথমেলা থেকে শুরু করে পিঠা উৎসব, বাংলা বর্ষবরণ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানাদিতে মিডিয়া পার্টনার দেখা যাচ্ছে। সেই সাথে তথাকথিত ‘ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড’ নামক অপসংস্কৃতির প্রচার ও প্রসারেও মিডিয়া পার্টনার দেখা যাচ্ছে। অথচ এই ‘ঢালিউড অ্যাওয়ার্ড’ নামক অনুষ্ঠানের মূল আয়োজক ব্যক্তি একজন ‘সাজাপ্রাপ্ত অপরাধী’। কয়েক বছর আগে নিউইয়র্কেরবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটের আচরণে মিাডিয়াকর্মীদের ক্ষোভ

প্রবাসে প্রায় ৩০ বছর ধরে বাংলাদেশী কমিউনিটি বিনির্মাণে যাদের ভূমিকা মূখ্য সেই বাংলা মিডিয়াগুলোর সম্পাদক-সাংবাদিকদের প্রতি বিভিন্ন সংগঠন, জাতিসংঘের বাংলাদেশ মিশন, বাংলাদেশ কনস্যুলেটের কর্মকর্তাদের আচরণ বেশ কিছু প্রশ্নের সূত্রপাত করেছে। গত সপ্তাহে বাংলা বর্ষবরণ উপলক্ষে নিউইয়র্কস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলেটে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সম্পাদক-সাংবাদিকদের প্রতি তাচ্ছিল্যমূলক আচরণকে কেন্দ্র করে নিউইয়র্কের প্রায় সকল মিডিয়া কর্মীদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। ঐদিন কনস্যুলেটের অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্য সাংবাদিকদের ফোন করে দাওয়াত দেয়া হলেও তাদের বসার জন্য কোন স্থান নির্ধারিত ছিলো না। শুধু তাই নয়, কমিউনিটির অনেক সিনিয়র সম্পাদক ও সাংবাদিকদের অবেহেলা সূচক আচরণ করেই কনস্যুলেট কর্মকর্তারা ক্ষান্তবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : বিনানুমতিতে বিজ্ঞাপন প্রকাশে বিজ্ঞাপনদাতাদের ক্ষোভ

নিউইয়র্কের কয়েকটি বাংলা পত্র-পত্রিকায় বিজ্ঞাপনদাতাদের বিনানুমতিতে বিজ্ঞাপন ছাপানোর হিড়িক বেড়ে যাওয়ায় বিজ্ঞাপনদাতাদের ক্ষোভ বাড়ছে। খবরের পর এখন বিজ্ঞাপন ‘কাট এন্ড পেষ্ট’ শুরু হওয়ায় অনেক বিজ্ঞাপনদাতাই আতংকে ভুগছেন। দু’একটি পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দেয়ার আগ্রহ থাকলেও বিজ্ঞাপন কালেক্টরদের টেলিফোন হামলার ভয়ে তারা এখন কোন পত্রিকাতেই বিজ্ঞাপন দিতে চান না। গত সোমবার জ্যাকসন হাইটসের গরমেট রেষ্টুরেন্টে একটি রাজনৈতিক দলের সাবাদিক সম্মেলনের পর একটি বিজ্ঞাপন সর্বস্ব পত্রিকার বিজ্ঞাপন কালেক্টর যুক্তরাষ্ট্র ছাত্রদলের এক নেতার কাছে বিজ্ঞাপন প্রকাশ বাবদ অর্থ দাবী করলে ছাত্রদল নেতা তাকে পাল্টা প্রশ্ন করেন যে আপনাকে বিজ্ঞাপন ছাপানোর অনুমতি কে দিলো? বিজ্ঞাপন কালেক্টরবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : দু’টি সাংবাদিক সম্মেলন ও নিউইয়র্কে বাংলা সংবাদ মাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে কমিউনিটিতে নানা প্রশ্ন

নিউইয়র্কে প্রবাসী বাংলাদেশীদের প্রাণকেন্দ্র হিসেবে পরিচিত জ্যাকসন হাইটসের ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেলস কর্তৃক যাত্রীদের সাথে প্রতারণার অভিযোগকে কেন্দ্র করে সাপ্তাহিক পরিচয়-এর রিপোর্ট প্রকাশের পর এই ট্রাভেলস প্রতিষ্ঠান থেকে প্রতারিত হওয়া দুই ভুক্তভোগীর সাংবাদিক সম্মেলনের পর ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেলস-এর আতœপক্ষ সমর্থনে পরবর্তী সাংবাদিক সম্মেলন কমিউনিটিতে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি করেছে। টিকেট নিয়ে ভুক্তভোগীদের সাংবাদিক সম্মেলনের সচিত্র খবরটি এটিএন, এনটিভি, সিনে বাংলা, সাপ্তাহিক পরিচয়-এ প্রচারিত হলেও ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেলস-এর আতœপক্ষ সমর্থনে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনের খবরটি সাপ্তাহিক পরিচয় ছাড়া অন্য কোন মিডিয়ায় প্রকাশিত হয়নি। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সাংবাদিক সম্মেলনের পর ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেলস কর্তৃপক্ষেরবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : প্রবাসের বাংলা সংবাদপত্রের ‘সম্পাদক’-এর যোগ্যতা নিয়ে নানা প্রশ্ন

প্রবাসে বাংলা সংবাদপত্রের ‘সম্পাদক’-এর যোগ্যতা নিয়ে কমিউনিটিতে নানা প্রশ্ন উঠেছে। দীর্ঘ দিন ধরে এই প্রশ্ন কমিউনিটির সচেতন মহলে আড়ালে-আবডালে আলোচিত হলেও এবার প্রকাশ্যেই আলোচিত হচ্ছে। বিশেষ করে কয়েক মাস আগে স্থানীয় বিভিন্ন বাংলা সংবাদপত্রে একাধিক বিজ্ঞাপন ম্যানেজার/কালেক্টর ফ্রি পত্রিকা প্রকাশ করে সম্পাদক বনে যাওয়ার ফলে সম্পাদকদের যোগ্যতার প্রশ্ন এখন প্রকাশ্যেই আলোচিত হচ্ছে। গত সপ্তাহে সাপ্তাহিক পরিচয়-এর ‘ডিজিটাল ওয়ান ট্রাভেল’ নামক একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যাত্রীদের অভিযোগের খবর প্রকাশের পর সেই প্রতিষ্ঠানের অন্যতম কর্ণধার হিসেবে জাকারিয়া মাসুদ জিকুর সাংবাদিক সম্মেলনে আতœপক্ষ সমর্থন এবং ভুক্তভোগী যাত্রীদের বিরুদ্ধে মামলার হুমকীর প্রেক্ষিতে মিডিয়ার সম্পাদকদের যোগ্যতাবিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট : বাংলা পত্র-পত্রিকার শিরোনাম ও বাস্তবতা

নিউইয়র্কে বাংলা মিডিয়ার সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সাথে সচেতন পাঠকের সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে। বিশেষ করে পত্রিকাগুলো ফ্রি হওয়ার পর থেকেই কোন কোন মিডিয়ার সম্পাদনায় দূর্বলতা অনেকেরই দৃষ্টি কেড়েছে। কোন কোন মিডিয়ার দায়সারাভাবের সম্পাদনার ফলে নানা ভূলত্রুটি থাকা, ঢাকার পত্রিকার নিউজ/প্রতিবেদন/প্রবন্ধ/নিবন্ধ/ফিচার ‘কাট এন্ড পেস্ট’ই বেশী। আবার কোন কোন মিডিয়ায় এসবের চেয়ে বিজ্ঞাপনের সংখ্যাই বেশী। যেনো কেবল বিজ্ঞাপনের জন্যই মিডিয়ার আতœপ্রকাশ। অপরদিকে কোন কোন মিডিয়ার হেডলাইন নিয়ে নানা কথা কমিউনিটির সচেতন পাঠক মহলে। বিশেষ করে ঢাকার পত্রিকার হেডলাইন ছাড়াও কোন কোন মিডিয়ার ‘নিজস্ব হেডলাইন’-এর বিষয়বস্তুর সাথে বাস্তবতার কোন মিলই খুজে পাওয়া যায়বিস্তারিত পড়ুন


নিউইয়র্কের প্রেসনোট

নিউইয়র্কে বাংলা প্রিন্ট মিডিয়ার পর এবার লাগামহীন প্রতিযোগিতার মুখে বাংলা টিভি মিডিয়া

নিউইয়র্কের বাংলা প্রিন্ট মিডিয়ার পর এবার বাংলা টিভি মিডিয়া সম্প্রচারে ব্যাপক উদ্যোগ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আর এই উদ্যোগের ফলে প্রিন্ট মিডিয়াগুলোর মতো শুরুতেই নানা বিপাকে পড়তে যাচ্ছে টিভি মিডিয়াগুলো। এমনই আশঙ্কা ব্যক্ত করেছেন মিডিয়া সংশ্লিষ্ট অনেকেই। সবমিলিয়ে অশনি সংকেত দেখা দিচ্ছে নিউইয়র্কের বাংলা মিডিয়া জগতে। নিউইয়র্ক থেকে নিয়মিত/অনিয়মিত মিলে প্রায় দু’ডজন বাংলা পত্র-পত্রিকা প্রকাশিত হচ্ছে। পাশাপাশি স্থানীয় একাধিক টিভিসহ ঢাকার টিভিগুলোর সহ অবস্থান নিউইয়র্কের মিডিয়া জগতে ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতা বৃদ্ধি করছে। ফলে মহান সাংবাদিকতার নীতি-নৈতিকতা, আদর্শের চেয়ে মিডিয়াগুলো (হাতেগোনা কয়েকটি ছাড়া) বিজ্ঞাপন সংগ্রহ তথা বাণিজ্য নির্ভর হয়ে পড়ছে। বিশেষ করে নিউইয়র্কেরবিস্তারিত পড়ুন