মালালা

 
 

মালালার কাছে নাবিলার হার

২০১২ সালের ২৪ অক্টোবর। পাকিস্তানের উত্তর ওয়াজিরিস্তানের এক ছোট্টো গ্রামে নিজের বাড়ির উঠোনে খেলছে আট বছর বয়সী নাবিলা রেহমান। পাশেই তার দাদী মোমেনা বিবি তাকে আর তার ছোটো ভাইকে দেখাচ্ছিলেন কিভাবে গাছ থেকে ঢেঁড়শ তুলতে হবে। উঠোনে খেলতে খেলতেই নাবিলার কানে আসে বিমানের ভারি শব্দ। বিমান দেখার জন্য আকাশের দিকে তাকাতেই নাবিলা দেখতে পায় একটা আগুনের গোলা ছুটে আসছে তাদের দিকে। প্রচণ্ড শব্দ। তারপর সব অন্ধকার। ধ্বংসস্তুপের মাঝে শুয়ে আছে নাবিলা ও তার ভাই, আর একটু দূরেই ছিন্নভিন্ন লাশ হয়ে আছে তাদের দাদী। এই ঘটনার অনেকদিন পর ২০১৩ সালে নাবিলাবিস্তারিত পড়ুন


মালালাকে অভিনন্দন ও নোবেল পিস প্রাইজ অব ম্যানিপুলেশন

শিক্ষা ও শান্তি ১. আমেরিকান ড্রোন হামলায় পাকিস্তানে মোট নিহত শিশুর সংখ্যা মাত্র ১৬৮ থেকে ২০০ জন , যার সমালোচনা করেছে বিশ্বব্যাপি মানবাধিকারের জন্য বিখ্যাত সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ও হিউম্যান রাইটস ওয়াচ। ২.এই ড্রোন হামলার ৬০% হয়েছে মানুষের বসতবাড়িতে, ফলে মারা গেছে প্রায় ১০০০ এর বেশি নারী ও শিশু। ৩. জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী গাজাতে ইসরায়েলি হামলায় ধ্বংস হয়েছে ১৩৮টি স্কুল, যার ৪৯টি সরকারী আর ৮৯টি জাতিসংঘের টাকায় পরিচালিত। বেসরকারী হিসেবে ২৮০ টি কিন্ডারগার্টেন ধ্বংস হয়েছে। স্কুলগুলিকে আশ্রয়কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহারের ফলে এখনও শিক্ষাদান শুরু হতে পারে নাই। ৪. ইরাক যুদ্ধের আগেবিস্তারিত পড়ুন