পর্যালোচনা : যেকারণে হিলারির পরাজয়

কলাম্বিয়া (মিজৌরি): ভোটের রাজনীতিতে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের জন্য ডেমোক্রাট ও রিপাবলিকানদের ব্যাটলগ্রাউন্ড হিসেবে খ্যাত পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, উইসকনসিন, ওহায়ো এবং ফ্লোরিডা। কোন দল থেকে পরবর্তী প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন তা মূলত এ পাঁচটি স্টেটের ভোটই নির্ধারণ করে দেয়। কারণ, মোট ৫৩৮টি ইলেক্টরাল ভোটের মধ্যে এ পাঁচ স্টেটে ভোটের সংখ্যা ৯৩ (পেনসিলভানিয়া ২০, মিশিগান১৬, উইসকনসিন১০, ওহাইয়ো ১৮ এবং ফ্লোরিডা ২৯)। যেখানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার জন্য ২৭০ ইলেক্টরাল ভোটের দরকার। হিলারি ক্লিন্টন এ পাঁচ স্টেটের সবকটিতেই হেরেছেন। এর মধ্যে পেনসিলভানিয়া, মিশিগান এবং ফ্লোরিডাতে ১% ভোটের ব্যবধানে হেরেছেন।
২০১২ সালের নির্বাচনে ডেমোক্রাট প্রার্থী বারাক ওবামা ব্যাটলগ্রাউন্ড সব স্টেটগুলোতেই জিতেছেন। মানে ৫টি স্টেটেরর ৯৩টি ইক্টোরাল ভোট পেয়েছেন তিনি। ফলে তাকে আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। কিন্তু, এবারের নির্বাচনে হিলারি ক্লিনটন এ পাঁচ স্টেটের একটিতেও জিতে পারেননি। এই স্টেটগুলোর ভোট ভাগিয়ে নিতে না পারার দরুনই তিনি বিশাল ব্যবধানে (ইলেক্টরাল ভোট হিলারি ২৩২ এবং ট্রাম্প ৩০৬) হেরেছেন।
পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, উইসকনসিনে ১৯৯২ থেকে ২০১২ পযর্ন্ত গত ৭ টি প্রেসিডেন্টসিয়াল নির্বাচনের কোনটিতে হারেনি ডেমোক্রাটরা। কোন ডেমোক্রাট সমর্থকই বিশ্বাস করেনি এ তিনটি ব্লু স্টেটে ডেমোক্রাটরা হারতে পারে। পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, উইসকনসিনে মোট ইলেক্ট্ররাল ভোট ৪৬টি। এ তিনটাতে জিতলে হিলারির ইলেক্ট্ররাল ভোটের সংখ্যা হতো ২৩২+ ৪৬= ২৭৮টি। অর্থাৎ হিলারি প্রয়োজনের চেয়ে ৮ ভোট বেশি পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হতেন। ট্রাম্প এ তিনটি স্টেটে হারলে তার ইলেক্ট্ররাল ভোটের সংখ্যা কমে হতো ৩০৬-৪৬= ২৬০। এর অর্থ হচ্ছে পেনসিলভানিয়া, মিশিগান, উইসকনসিনই তাকে জিতিয়ে দিয়েছে। ফ্লোরিডা এবং ওহায়ো সব সময় ওঠা-নামা করে। কিন্তু বাকি তিনটা ব্লু স্টেট বলেই বিবেচনা করা হয়।
অপরদিকে, ইস্ট ও ওয়েস্ট কোস্টের প্রায় সব স্টেটেই ডেমোক্রাটরা জিতবে এমনটা ধরেই নেয়া হয়। আর এ সব স্টেটকে বলা হয় ব্লু স্টেট। এর মধ্যে শুধু ক্যালিফোর্নিয়াতে ইলেক্ট্ররাল ভোটের সংখা ৫৫টি এবং নিইউয়র্কের ২৯টি। এ জন্য ডেমোক্রাটদের জেতার জন্য খুব বেশি স্টেটে জয়ী হওয়া প্রয়োজন পরে না। অপরদিকে, মিড-ওয়েস্ট এবং সাউদার্ন স্টেটগুলো যুগ যুগ ধরে রিপাবলিকানদের দখলে। এসব স্টেটকে বলা হয় রেড স্টেট। এর মধ্যে টেক্সাস এ ৩৮টি, জর্জিয়ায় ১৬ টি, ইন্ডিয়ানা, অ্যারিজোনা, ও টেনেসিতে ১১টি করে এবং মিজৌরিতে ১০ ইলেক্ট্ররাল ভোট। যা সব সময় রিপাবলিকানরা পেয়ে থাকে। তবে, রিপাবলিকানদের প্রেসিডেন্ট রেসে জিততে হলে শুধু রেড স্টেটের দিকে চেয়ে থাকলে হয়না। ব্যাটলগ্রাউন্ড স্টেটে তাদের জিততে হয়। এবার সেটি তারা করতে পেরেছে। সবগুলো ব্যাটগ্রাউন্ডে তারা জিতেছে। যার ফলও তারা পেয়েছে।
কলাম্বিয়া, মিজৌরি






একই ধরনের খবর

  • পরাজয়ের কারণ কোমি : হিলারি
  • আপনি জানেন কি? ডেমোক্রেটদের দুর্গ নিউইয়র্কে আপনার প্রতিবেশী কার পক্ষে ভোট দিয়েছেন!
  • হোয়াইট হাউসে ওবামা-ট্রাম্প প্রথম বৈঠক
  • এটা কষ্টের, এ বেদনা দীর্ঘ সময় থাকবে: নির্বাচনোত্তর ভাষণে হিলারি
  • যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প : হিলারী শিবিরে কান্নার রোল
  • যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আজ ৮ ডিসেম্বর মঙ্গলবার : লড়ছেন হিলারি-ট্রামসহ চার প্রার্থী : লড়াই হবে হাড্ডাহাড্ডি
  • ইতিহাসে এই প্রথম
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked as *

    *

    Shares