সেই রাতে জ্যাকসন হাইটসের রেস্টুরেন্টে যা ঘটেছিল!

বিশেষ প্রতিনিধি: শুক্রবার রাত ১২ টা। জ্যাকসন হাইটসের ব্যস্ততম এলাকার একটি রেস্টুরেন্টে খাওয়া-দাওয়া চলছে। দেশি-বিদেশি কাস্টমারদের ভীড়। খাওয়ার টেবিলে ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশী কয়েকজন প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ী ও কবি। ১২ টা ২০ মিনিটের দিকে হঠাৎ রেস্টুরেন্টটির এক নারী ‘ওয়েটার’ এর চিৎকার। কয়েকজন দৌড়ে গিয়ে দেখেন ২১ বছর বয়সী ওই তরুণীকে পেছন থেকে একজন জড়িয়ে ধরে আছেন। তাকে সহযোগিতা করছেন আরো দুই জন। তরুণীর চিৎকার শুনে দৌড়ে গেলেন অনেকেই। এসময় তরুণী হাত পা ছুড়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করছেন। কাস্টমারদের কয়েকজন তরুণীকে উদ্ধার করতে এগিয়ে গেলে বাধার মুখে পড়েন। এতগুলো মানুষের সামনে কেন এ ধরনের আচরণ জানতে চাওয়ার পর ওই তিন ব্যক্তি প্রতিবাদকারীদের দিকে তেড়ে আসেন। এক পর্যায়ে অবস্থা বেগতিক দেখে তরুণীকে ছেড়ে দেয় জড়িয়ে ধরা যুবকটি। এবার প্রতিবাদকারীদের উপর চড়াও হওয়ার চেষ্টা করেন তিনি। জ্যাকসন হাইটসের একজন ব্যবসায়ী নেতা ৯১১ কল করলে সঙ্গে সঙ্গে পুলিশ চলে আসে। এর মধ্যেই দ্রুত পালিয়ে যায় তিনজনই।
পুলিশ তরুণীর জবানবন্দি রেকর্ড ও সিসিটিভির ফুটেজ নিয়ে যায়। ঘন্টাখানেক পর ওই তিনজন আবারও ঢুকে পড়ে রেস্টুরেন্টটিতে। তারা খুঁজতে থাকে ওই তরুণীকে। এ যেন ‘ফিল্মি কায়দা’। ঘটনার খবর পেয়ে ছুটে আসেন তরুণীর ভাই। আবারও পুলিশে ফোন। আবারও পুলিশের আগমন। নাম-পরিচয় প্রকাশ না করার শর্তে রেস্টুরেন্টের ওই তরুণী কর্মচারী জানান, এ ঘটনায় তিনি কিংকর্তব্যবিমুঢ়। এতগুলো মানুষের সামনে এ ধরনের বদ আচরণ তিনি মেনে নিতে পারছেন না। ওই তিনজনের পরিচয় জানতে চাইলে তরুণী বলেন, ‘ওরা আমাদের সিলেটেরই লোক’।
প্রত্যক্ষদর্শী একজন বলেন, মনে হয়েছে ওই তিন ব্যক্তির মধ্যে দুইজন মদ্যপ ছিলেন। তরুণীটি রেজিস্টারে কাজ করছিলেন। কিন্তু কাস্টমারদের সঙ্গে কথা বলতে আসলে তাকে এক যুবক অতর্কিত পেছন থেকে জড়িয়ে ধরে। (সাপ্তাহিক আজকাল, ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮)






একই ধরনের খবর

  • বাংলাদেশী নাজমা খানম হত্যা মামলার রায়ে ঘাতক মার্টিনের ৪০ বছরের কারাদন্ড
  • প্রথমবারের মতো ভারপ্রাপ্ত সা. সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান
  • নিউইয়র্কে বিস্তারিত কর্মসূচী গ্রহণ
  • আলহাজ মির্জা ফরহাদের ইন্তেকাল
  • দেলোয়ার সভাপতি ইয়াকুব সম্পাদক
  • ড. মোমেন ও শাহীনের সমর্থন সভা : ড. মিলনের সমর্থকরা হতাশ
  • নাসাউ কলিসিয়ামে অনুষ্ঠিতব্য ফোবানাই আসল ফোবানা
  • ফোবানা’র ‘ট্রেড মার্ক’ কারো ব্যক্তিগত সম্পত্তি নয়
  • Shares