যুক্তরাষ্ট্র কেন শীর্ষ করোনাক্রান্ত দেশ?

ডা. ওয়াজেদ খান: মহাপরাক্রমশালী দেশ যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্বব্যাপী জল-স্থল অন্তরীক্ষে যার অবাধ কর্তৃত্ব। ছোট-বড় রাষ্ট্রগুলো আমেরিকান মোড়লীপনা ও খবরদারিতে তটস্থ। উভয় গোলার্ধে শত্রæ প্রতিটি লক্ষ্যবস্তুতে তাক করা আছে ব্যালেস্টিক মিসাইল। শুধু নিজ ভূখন্ড নয়। অনেক মিত্র দেশকে নিশ্চিদ্র নিরাপত্তার চাঁদরে ঢেকে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। অথচ আজ নিজ দেশ অরক্ষিত। সুরক্ষা নেই জনগণের। অভ্যন্তরে চলছে মহামারি। করোনাভাইরাসে বেশুমার মরছে মানুষ। কারো জীবনের কোন নিরাপত্তা নেই। ভয়াবহ ঝুঁকিতে গোটা জাতির জীবন। অর্থনৈতিক ও সামরিক শক্তির শীর্ষে অবস্থানকারী যুক্তরাষ্ট্র আজ ধরাশায়ী। করোনাভাইরাসের সাথে যুদ্ধে পর্যুদস্ত। করোনাক্রান্ত রোগীতে সয়লাব বিশ্বের তৃতীয় জনবহুল এ দেশটি। করোনাভাইরাসের আঁতুর ঘর চীনকেও ছাড়িয়ে গেছে। বিশ্বে মহামারিতে যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান এখন শীর্ষে। সবচেয়ে বেশি মানুষ এ রোগে আক্রান্ত এখানে। মার্চের শেষ দিন পর্যন্ত এ সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৭৫ হাজারে। আর প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় ৪ হাজার মানুষ।
শুধুমাত্র নিউইয়র্ক সিটিতেই করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা সহ¯্রাধিক। সংখ্যাগরিষ্ঠ বাংলাদেশী-আমেরিকানদের বসবাস এ নগরীতেই। কয়েকদিনে করোনায় মারা গেছেন প্রায় ৩৫ জন বাংলাদেশী। অনেক পরিবারের সদস্য আক্রান্ত এ মহামারিতে। চারিদিকে চরম আতঙ্ক। আগামী দু’সপ্তাহে অদৃশ্য এ দানব ভয়ঙ্কর মূর্তি ধারণ করবে। এমন আশঙ্কা নিউইয়র্ক রাজ্যের গভর্ণর ও অভিজ্ঞমহলের। এ রোগে যুক্তরাষ্ট্রে এক থেকে দুই লাখ মানুষ প্রাণ হারাতে পরে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব এলার্জি এন্ড ইনফেকশাস ডিজিজেস এর প্রধান এবং হোয়াইট হাউজের করোনাভাইরাস টাস্কফোর্সের সদস্য ডা. এন্থনি ফাউসির এমন আশঙ্কায় ঘুম হারাম হয়ে গেছে মানুষের। কে মরবে কে বাঁচবে। কোথায় পাবে নিরাপদ আশ্রয়। কে দিবে চিকিৎসার গ্যারান্টি। এসবের কোন উত্তর মিলছেনা। নির্বিঘ্ন ও উন্নত জীবন-জীবিকার অন্বেষায় পৃথিবীর প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা মানুষগুলো আজ বড় বেশি অসহায়। সব আশা আকাংখা স্বপ্ন চুরমার হয়ে গেছে। ৩৩ কোটি আমেরিকানসহ দুনিয়ার মানুষের একটি প্রশ্ন যুক্তরাষ্ট্র কেন শীর্ষ করোনা আক্রান্ত দেশ হলো। বিলিয়ন ডলারের এমন প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে সবার মনে।
সবচেয়ে ব্যয় বহুল হলেও সর্বাধুনিক চিকিৎসা ব্যবস্থার দেশ যুক্তরাষ্ট্র। কানাডা বা ব্রিটেনের মতো কল্যাণ রাষ্ট্র নয়। তবু বিনা চিকিৎসায় এদেশে মারা যায় না কেউ। দেশব্যাপী হাসপাতাল আছে ৬ হাজারের অধিক। শুধুমাত্র ক্যালিফোর্নিয়াতে ৩৪২টি হাসপাতাল। চিকিৎসকের সংখ্যা প্রায় ১২ লাখ। স্বাস্থ্যসেবায় সবচেয়ে বেশি মানুষ কর্মরত। নাগরিক স্বাস্থ্যসেবায় সরকারের বার্ষিক ব্যয় সাড়ে ৩ ট্রিলিয়ন ডলার। মাথাপিছু এ পরিমাণ ১০ হাজার ৫’শ ডলার। যা মোট জিডিপির ১৮ শতাংশ। স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানগুলোর সিংহভাগই ব্যক্তি মালিকানাধীন এবং তাদের দ্বারা পরিচালিত। এসবের ৫৮ শতাংশ অলাভজনক। ২১ শতাংশ লাভজনক এবং মাত্র ২১ শতাংশ সরকারি। তারপরও চিকিৎসা ব্যয়ের ৬৫ শতাংশ বহন করে থাকে সরকার। প্রাইভেট হেলথ ইন্সুরেন্স। মেডিকেইড, মেডিকেয়ার। চিল্ড্রেন হেলথ ইন্স্যুরেন্স প্রোগ্রাম ও ভেটারনস হেলথ এডমিনিস্ট্রেশনের মাধ্যমে চিকিৎসা সেবা নিয়ন্ত্রণ করে সরকার। এছাড়া সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশাস (সিডিসি) ফেডারেল সরকারের একটি শক্তিশালী প্রতিষ্ঠান। সংক্রামক ব্যাধি ইবোলা, জিকাসহ সিডিসি বিভিন্ন ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ভূমিকা পালন করেছে সম্প্রতি।
এত সবকিছুর পরও করোনা মহামারি রুখতে পারেনি যুক্তরাষ্ট্র। এ ব্যর্থতার দায়ভার এড়াতে পারবে না ট্রাম্প প্রশাসন। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প শুরুতেই আমলে নেননি করোনাভাইরাসের বিষয়টি। তিনি উদ্যোগ নেননি করোনাভাইরাস প্রতিরোধে। যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম করোনার রোগী সনাক্ত হয় গত ২০ জানুয়ারী ওয়াশিংটন রাজ্যের সিয়াটলের শহরতলীতে। সিডিসি ল্যাব টেস্টের মাধ্যমে নিশ্চিত করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তি। ১৫ জানুয়ারী যিনি চীনের উহান থেকে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন। আর এই উহানের হুনান শহরের একটি সি ফুড মার্কেট থেকে করোনা ভাইরাসের উৎপত্তি। চীনে প্রথম রোগী সনাক্ত হয় ২০১৯ এর নভেম্বরের মাঝামাঝি। জানুয়ারি মাসের মধ্যেই বিশ্বের ২১টি দেশে করোনায় আক্রান্ত হয় সহ¯্রাধিক মানুষ। এসময়ে বার কয়েক সংবাদ সম্মেলনে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে আছে দাবি করেন। অথচ এই সময়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে আস্তে আস্তে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। আক্রান্ত প্রথম ৫৪ বছরের এক রোগী ১ মার্চ মারা যান সিয়াটলে। এরপরই টনক নড়ে হোয়াইট হাউস প্রশাসনের। নড়েচড়ে বসেন সবাই। সিডিসিকে ৩ মার্চ অনুমতি দেয়া হয় করোনা টেস্টের। এ সময়ে বিভিন্ন দেশে আক্রান্ত হয় ৮৭ হাজার মানুষ। নিউইয়র্কে ইরান ফেরত ৩৯ বছর বয়সী এক মহিলা করোনায় মারা যান ম্যানহাটানের একটি হাসপাতালে গত ১৩ মার্চ।
এরপরই যুক্তরাষ্ট্রে জরুরী অবস্থা ঘোষণা করেন ট্রাম্প। এখনতো মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘায়িত হচ্ছে জ্যামিতিক হারে। অভিজ্ঞজন আগেই করোনাভাইরাসের ভয়াবহতা এবং তা প্রতিরোধে সময়োচিত উদ্যোগ নেয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন সরকারকে। কিন্তু ট্রাম্প প্রশাসন তা গ্রাহ্য করেনি। সময়মতো করোনা টেস্টের অনুমতি প্রদান, হাসপাতাল, চিকিৎসক, নার্সসহ জনগণকে সতর্ক ও সচেতন করলে পরিণতি এমন ভয়াবহ হতো না। যা করেছে সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, তাইওয়ানসহ অনেক দেশ। করোনা ভাইরাস টাস্কফোর্সে চিকিৎসা বিশেষজ্ঞদের চেয়ে অগ্রাধিকার পেয়েছে রাজনীতিবিদরা। তাছাড়া সবাই সেসময় ব্যস্ত ছিলেন ট্রাম্পের ইম্পিচমেন্ট, হার্ভে উইনস্টেন ও অস্কার নিয়ে। প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রকাশ্যে বাহাস করেছেন করোনা ভাইরাসকে ‘চায়না ভাইরাস’ বলে। সর্বশেষ তিনি মারাত্মক উক্তি করেছেন ‘করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ২ লাখে ঠেকিয়ে রাখতে পারলে তা হবে তার সরকারের সাফল্য।’ ট্রাম্প প্রশাসনের ব্যর্থতাই যুক্তরাষ্ট্রকে করোনা আক্রান্তদের শীর্ষে উন্নীত করেছে বলে অভিজ্ঞমহল মনে করছেন।
লেখক: সম্পাদক, সাপ্তাহিক বাংলাদেশ। নিউইয়র্ক।






Shares