ফোবানা কনভেনশন ইনক’র প্রতিবাদ

নিউইয়র্ক: ফোবানা সম্মেলন ২০১৯-এর কনভেনর এবং ফোবানা কনভেনশন ইনক’র প্রেসিডেন্ট শাহ নেওয়াজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, “ফোবানার নাম বেআইনিভাবে ব্যাবহার না করতে সতর্ক বার্তা” শিরোনামে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে সম্প্রতি যে বিবৃতি প্রকাশিত হয়েছে তা দেখে আমরা হতবাক হয়েছি। ফোবানা কনভেনশন ইনক-এর পক্ষ থেকে এই অনাকাংখিত এবং অনভিপ্রেত বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি । তিনি বলেন, আমাদের প্রশ্ন, সংবাদ মাধ্যমে যারা তথাকথিত “সতর্ক বার্তা” নামে বিবৃতি দিয়েছেন তারা কারা? ফোবানা কনভেনশন নিয়ে তথাকথিত সতর্ক বার্তায় যে অনাকাংখিত ভাষা ব্যবহৃতকরা হয়েছে, তা সম্পুর্ণ সিস্টাচার বহির্ভুত।
বিবৃতিতে ফোবানা কনভেনশনের নেতৃবৃন্দরা বলেন, ফোবানা কনভেনশন কারো ব্যক্তিগত সম্পদ নয়, এটা একটি সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন। ৩৩ বৎসর পুর্বে এই অঞ্চলের বাংলাদেশী জন মানুষদের সাথে ঐক্যের রাখিবন্দন গড়ে তোলার লক্ষ্যে এই ঐতিহাসিক সংগঠনটি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল।
বিবৃতিতে বলা হয়: আমাদের জাতীয় সংস্কৃতি, কৃষ্ঠি ও শিল্প সাহিত্যের অনুশীলন এবং পেছনে ফেলে আসা আমাদের প্রিয় বাংলাদেশের জন মানুষের সাথে মেইল বন্ধন গড়ে তোলাই ছিল ফোবানা কনভেনশনের মূল লক্ষ্য। বিভাজন, বিভক্তি আজকের নয়, যারা আজ তথাকথিত “সতর্ক বার্তা” জারি করছেন তাদের মনে থাকার কথা যে ২০১৪ সালের ফোবানা সম্মেলনে তাদের অনভিপ্রেত হুমকি ধমকির পরও আমরা ফোবানা সম্মেলন যৌক্তিক ভাবে সম্পন্ন করেছিলাম। কারা আসল ফোবানা এবং কারা নকল ফোবানা তা ভবিষ্যত ইতিহাস প্রমান করবে।
উল্লেখিত সতর্ক বার্তায় তারা বলেছেন “নিউইয়র্কের একটি সংঘবদ্ধ দুষ্টচক্র ফোবানার নাম ব্যবহার করছে”। যারা এই ধরনের অশোভন ও সংস্কৃতি বিবর্জিত ভাষা ব্যবহার করেছেন, তাদের শুদ্ধ হওয়া উচিত।
ফোবানা কনভেনশনের নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠানের নামে সম্পুর্ণ আইনগত ভাবে ৩৩তম ফোবানা কনভেনশন অনুষ্ঠিত করতে যাচ্ছি। যারা বলছেন ফোবানার ট্রেডমার্ক তাদের নামে তারা এক হীন স্বার্থে কিছু স্বার্থবাদী মহলকে দিয়ে কাউকে না জানিয়ে অনৈতিক ভাবে একটি ট্রেডমার্ক করেছেন যা সাধারণত ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহৃত হয়, কিন্তু ফোবানা কনভেনশন সম্পুর্ণ অলাভজনক সংগঠন যা শুধুমাত্র সামাজিক সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের জন্য ব্যবহৃত হয়।এই ট্রেডমার্কের বিষয়টি ছিল সম্পুর্ণ অনাদর্শিক এবং নেতৃত্বকে কুক্ষিগত করার এক হীন প্রয়াস। তাদের তাদের এই অনৈতিক কাজটি ফোবানার সকল স্তরের নেতা, কর্মী, সমর্থকদের প্রশ্নবিদ্ধ, বিভ্রান্ত ও বিক্ষুদ্ধ করেছে। তারপরও দীর্ঘদিন হতে প্রতি বৎসর দুটি ফোবানা সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। কোন অনৈতিক হুমকি ধমকি ফোবানার পথচলাকে গতিরোধ করতে পারেনি, আশাকরি ভবিষ্যতেও তার অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। যারা আজ নীতি বিবর্জিত, অনৈতিক ও অশালিন ভাষায় কথা বলছেন তাদের অনেক নেতা-নেত্রী এক সময় আমাদের সাথেই ছিলেন। বাকী যারা আছে ‘ঞযবু ধৎব নড়ু ড়ভ ুবংঃবৎফধু’ ফোবানা কি তা তাদের অনেকেই জানেন না। তাদের মুখে অনেক কথাই মানায়। নেতৃবৃন্দ বলেন, আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সকল আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখেই ফোবানা কনভেনশনের উদ্দ্যোগে ৩৩তম এই সম্মেলন নিউইয়র্কের লাগোয়ার্ডিয়া ম্যারিয়ট হোটেলে অনুষ্ঠিত করতে যাচ্ছি। যারা গনমাধ্যমে বিভ্রান্তিমুলক বিবৃতি প্রদান করছেন তাদেরকে সকল প্রকার মিথ্যাচার এবং অপপ্রচার থেকে বিরত থাকার জন্য ফোবানা কনভেনশন কমিটির পক্ষ থেকে আহবান জানাচ্ছি।






একই ধরনের খবর

  • নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের সভা : ১৩ মে ইফতার মাহফিল
  • যুক্তরাষ্ট্রের সতর্কবার্তা নিয়ে উদ্বেগের কারণ নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী
  • আমি আপনাদেরই থাকবো : প্রবাসীদের প্রত্যাশা পূরণে সবার প্রার্থনা কামনা
  • নিউইয়র্কে আইএফসি’র সভায় ফারাক্কা ইস্যুতে বাংলাদেশ সরকারকে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী
  • শাহ নেওয়াজ কমিউনিটি বোর্ড মেম্বার মনোনীত
  • আন্তর্জাতিক ফারাক্কা কমিটির সভা ৬ এপ্রিল শনিবার
  • বাংলাদেশের শহীদুল আলম ‘ইনফিনিটি অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন
  • শেরওয়ান আহমেদ চৌধুরী আর নেই
  • Shares