প্রবীণ সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর আর নেই

হককথা ডেস্ক: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর জ্যেষ্ঠ সম্পাদক, প্রবীণ সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর (৭২) বাংলাদেশ সময় বুধবার (১৬ জানুয়ারী) প্রথম প্রহর অর্থাৎ রাত ১টার দিকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি … রাজিউন)। আমানুল্লাহ কবীরের মৃত্যুর খবর তার ছেলে শাতিল কবীর গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।
আমানুল্লাহ কবীর ডায়াবেটিস ও লিভারের নানা জটিলতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। বছরের শুরুতে অসুস্থতার কারণে আমানুল্লাহ কবীর শ্যামলীর ঢাকা সেন্ট্রাল ইন্টারন্যাশনাল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সেখান থেকে তাকে ধানমন্ডির ইবনে সিনা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে ইবনে সিনা থেকে তাকে বিএসএমএমইউতে নেওয়া হয়।
প্রবীণ সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর ১৯৪৭ সালের ২৪ জানুয়ারী জামালপুরে জন্মগ্রহণ করেন। সাংবাদিকতা জগতে রয়েছে তার সাড়ে চার দশকের অবদান। তিনি ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে দেশের প্রথম অনলাইন সংবাদমাধ্যম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের জ্যেষ্ঠ সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন। বিভিন্ন বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেলের টকশো অনুষ্ঠানগুলোতে আমানুল্লাহ কবীর ছিলেন নিয়মিত আলোচক।
এছাড়াও আমানুল্লাহ কবীর বাংলা দৈনিক আমার দেশ ও ইংরেজি দৈনিক দ্য টেলিগ্রাফের (বর্তমানে বিলুপ্ত) প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক ও ইংরেজি দৈনিক ইন্ডিপেনডেন্টের প্রতিষ্ঠাকালীন নির্বাহী সম্পাদ ছিলেন। বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থায় (বাসস) ব্যবস্থাপনা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন তিনি।
এস এম আলীর সম্পাদনায় প্রকাশিত ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারের শুরুর দিকের বার্তা সম্পাদক ছিলেন তিনি। বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে)-এর সভাপতি হিসেবে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে নেতৃত্বের কাতারে ছিলেন প্রবীণ এই সাংবাদিক।(সূত্র: যুগান্তর)






একই ধরনের খবর

  • যা চাচ্ছি তা লিখতে পারছি না
  • জিয়াউর রহমানের শাহাদৎ বার্ষিকী ৩০ মে
  • ভূমধ্যসাগরে ১৪ বাংলাদেশীসহ ২৯০ অভিবাসী উদ্ধার
  • সঙ্গীতশিল্পী খালিদ হোসেনের ইন্তেকাল
  • প্রতীক্ষা শেষে স্বপ্নের শিরোপা জয় : ইতিহাস সৃষ্টি করলো বাংলাদেশ
  • গঙ্গার অববাহিকা ভিত্তিক ব্যবস্থাপনার উদ্যোগ নিন
  • ইউরোপ অভিবাসন প্রত্যাশীদের করুণ পরিণতি : ভূমধ্যসাগরে ৩৭ বাংলাদেশীর মৃত্যু
  • ‘ঋণের বোঝা আরও বেড়ে গেল’
  • Shares