নিউজার্সীতে ভাইয়ের নামে বিচারপতি সিনহার বাড়ি

নিউইয়র্ক: সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার বিরুদ্ধে নিউজার্সীতে তার আপন ছোট ভাইয়ের নামে বাড়ি কেনার অভিযোগ উঠেছে। এ বছর জুনে তার ছোট ভাই অনন্ত কুমার সিনহা দুই লাখ ৮০ হাজার ডলার দিয়ে নগদে এ বাড়িটি কেনেন। এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নথিপত্রে প্রমাণ পাওয়া গেছে। প্রবাসী বিশিষ্টজনেরা বলেছেন, এই অর্থের উৎসের সন্ধান করা জরুরি। তবে গণমাধ্যমের কাছে অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা।
যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সীর প্যাটারসনে ১৭৯ জেসপার স্ট্রিট এলাকার চার হাজার স্কয়ার ফিটের তিনতলা একটি বাড়িতে বসবাস করেন সাবেক প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ওরফে এস কে সিনহা। গুঞ্জন ছিল এই বাড়িটি নগদ দুই লাখ ৮০ হাজার ডলারে কিনেছেন সাবেক এই বিচারপতি।
নথিপত্র ঘেঁটে এই গুঞ্জনের ভিত্তি পাওয়া গেল। এস কে সিনহা যুক্তরাষ্ট্রে আসেন গত বছরের নভেম্বরে। এ বছর ৪ জুন তার আপন ছোট ভাই অনন্ত কুমার সিনহা বাড়িটি কিনেন। দলিলপত্রে দেখা গেছে, অনন্ত কুমার সিনহা দুই লাখ ৮০ হাজার ডলার দিয়ে নগদে বাড়িটি কিনেছেন।
নিউজার্সীর নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী জানান, বাড়িটি সম্ভবত নিলামে কেনা হয়েছে। এর প্রকৃত মূল প্রায় দ্বিগুন। তিনি জানান, নিউজার্সীর প্যাসাইক কাউন্টি রেজিস্ট্রি ডিভিশনের ডকুমেন্টে দেখা যায়, বাড়ি ক্রেতার যে ঠিকানা দেওয়া হয়েছে সেখানে দুই মাস আগে ভাড়া ছিলেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা।
সরেজমিন গিয়ে দেখা গেছে, ছোট ভাই অনন্ত কুমার সিনহার নামে কেনা বাড়িটির প্রথম তলায় বিচারপতি এস কে সিনহা সস্ত্রীক বসবাস করছেন। এ বিষয়ে বিচারপতি সিনহাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেন। সিনহা বলেন, ‘এই বাড়ি আমার নামে না। এটা বললেই হবে না। সরকার প্রমাণ করুক। এরপর দেখা যাবে।’
বাড়িটি আপনার ভাইয়ের নামে এমন প্রশ্ন করা হলেও তিনি সরাসরি বলেন, ‘আমি সরি, আমি এই প্রশ্নের উত্তর দেব না বলেছি।’
বাড়ি কেনার এই অর্থের উৎস কী তা খতিয়ে দেখার দাবি উঠেছে। বিজ্ঞানী ড. নুরুন নবী মনে করেন, একজন প্রধান বিচারপতির দুর্নীতি জাতির জন্য কলঙ্কের। তিনি বলেন, নগদ অর্থ দিয়ে সাধারণত এই দেশে বাড়ি কেনা হয় না। তিনি আরো বলেন, বিচারপতি সিনহার ভাই যদি এতই ধনাঢ্য হতেন তাহলে তাকে যুক্তরাষ্ট্রে এসে বেইজমেন্টে ভাড়া থাকতে হলো কেন?
বিচারপতির অপসারণ সংক্রান্ত সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিল ঘোষণা করে বিতর্কিত রায় দেয় সুপ্রীম কোর্টের আপিল বিভাগ। মূল রায়টি লিখেন বিচারপতি এস কে সিনহা। নানা আলোচনা ও সমালোচনার মধ্যে গত বছরের অক্টোবরে ছুটিতে বিদেশে চলে যান এসকে সিনহা। এরপর নৈতিক স্খলনসহ নানা অভিযোগ এনে অন্য বিচারপতিরা তার সঙ্গে একই বেঞ্চে বসতে অস্বীকৃতি জানালে বিদেশে থাকা অবস্থায়ই ১০ নভেম্বর পদত্যাগ করেন। এরপর থেকে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নিউজার্সীর পেটারসনে বসবাস করছেন। (সাপ্তাহিক আজকাল)






একই ধরনের খবর

  • বাংলাদেশে সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেসের হস্তক্ষেপ কামনা
  • অবিলম্বে খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবী
  • নিউজার্সীর পেটারসনে ‘বাংলাদেশ বুলেবার্ড’ নামে সড়ক হচ্ছে
  • ব্রাজিলে জাতীয়তাবাদী যুবদল-এর ৪০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত
  • এনএবিসি-২০১৯ সম্মেলন কমিটি গঠিত
  • বাক-এর নির্বাচনে হেলাল পুনরায় সভাপতি নির্বাচিত
  • প্রবাসীদের স্বার্থে তাঁরা যেতে চান সংসদে
  • সংঘাত নয় চাই শান্তির রাজনীতি
  • Shares