বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর খবর

নিউইয়র্ক মহানগর আ. লীগের বিবৃতি ‘ওদের দায় আওয়ামী লীগ নেবে কেন?’

হককথা ডেস্ক: দলের নাম ভাঙ্গিয়ে ঢাকায় অবস্থানরত নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমদাদ চৌধুরীর বিরুদ্ধে চাকরি, বদলি ও ব্যবসার নামে চাঁদাবাজী করার অভিযোগ উঠেছে। ‘গণভবনের দুয়েকজন কর্মচারীর সাথে সেলফি প্রদর্শনের মাধ্যমে প্রত্যন্ত এলাকার মানুষদের কাছে এহেন চাঁদাবাজীর জন্য কখনোই দলগতভাবে আওয়ামী লীগকে দায়ী করা যাবে না কিংবা সে দায় নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগ নেবে না’ বলে সংগঠনের প্রচার সম্পাদক মোহাম্মদ হাসানের বিলি করা এক বিবৃতিতে গণমাধ্যমকে অবহিত করা হয়েছে।
চলতি সপ্তাহে ঐ বিবৃতিতে বলা হয়, ‘যিনি সারা বছর বাংলাদেশে অবস্থান করে দলের পদ-পদবী জাহির করে তদবির বাণিজ্য করেন, তিনি মহানগর আওয়ামী লীগের সক্রিয় কোন কোন কর্মকর্তা সম্পর্কে উল্টো মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়েছেন। যার নিন্দা জানানোর ভাষা আমাদের নেই। কারণ ইমদাদ চৌধুরীর মত হাইব্রীডদের পক্ষেই এমন নোংরামী সম্ভব।’
বিবৃতিতে অভিযোগ করা হয়, ‘যে ব্যক্তি বিশেষ মতলবে ছাত্রদল নেতা সাইফুল ইসলামকে মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও বহুল আলোচিত নিউইয়র্কে যুদ্ধাপরাধীদের একটি মিডিয়ার কর্মকর্তাকে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক নিয়োগ করতে পারেন তার পক্ষে সবকিছু সম্ভব। এসব কার্যকলাপের জন্য এমদাদ চৌধুরী মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটি কর্তৃক প্রত্যাখ্যাত।’
‘শেখ হাসিনার অনুমোদন পাবার পর নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগের দুই কর্মকর্তা মোহাম্মদ রফিকুর রহমান ও আইয়ুব আলী আজ অবধি কার্যকরী কমিটির কোন মিটিংয়ে উপস্থিত হননি। স্বাভাবিক নিয়মেই এরা সংগঠনের পদ-পদবি হারিয়েছেন। অথচ এ দু’জনকে নিয়ে এমদাদ চৌধুরী মহানগর আওয়ামী লীগ করছেন রাজধানী ঢাকায় অবস্থান করে। এছাড়া সাবেক যুগ্ম সম্পাদক আইয়ুব আলী মহানগর আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে ইমদাদ চৌধুরী সাথে এক হয়ে ঢাকায় বিভিন্ন তদবির বাণিজ্য করে নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগকে প্রশ্নবিদ্ব করছেন’-বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে।
বিবৃতিতে বিশেষভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘নিউইয়র্ক মহানগর আওয়ামী লীগকে ধ্বংসের অপচেষ্টা চালাচ্ছেন ঢাকায় বসে। এমদাদ চৌধুরী গণভবন, পুলিশ বিভাগ ও বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের চাকরী দেওয়া ও পাওয়ার প্লান্টের শেয়ার দেওয়া নাম করে প্রবাসীদের কাছ থেকে নানা সুযোগ-সুবিধা নিচ্ছেন। পরবর্তী কার্যকরী কমিটির মিটিং-এ আলোচনা সাপেক্ষে এ ব্যাপারে এমদাদ চৌধুরী বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে এই বিবৃতিতে।
অতি সম্প্রতি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নিউইয়র্কে এসেছিলেন। তার সঙ্গী ছিলেন এই ‘এমদাদ-আইয়ুব’রা। পুলিশের আইজিপি নিউইয়র্ক সফরকালেই এ দু’জন সাথে এসেছিলেন বলে মহানগর আওয়ামী লীগের নেতারা উল্লেখ করেন। ‘অর্থাৎ পদস্থ কর্মকর্তাদের আশপাশে ঘুরঘুর করে তারা চাঁদাবাজি এবং তদবির বাণিজ্যের পথ সুগম রাখেন’-অভিযোগ মহানগর আওয়ামী লীগের। এমনকি শেখ হাসিনার অনুমোদিত যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কার্যকরী কমিটির মিটিংয়ের পাল্টা কর্মসূচিতেও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিয়ে হাজির হয়েছিলেন এই এমদাদ চৌধুরী।
এমদাদের মত সুযোগ-সন্ধানীরা আওয়ামী লীগকে ঢাল হিসেবে ব্যবহার করে আখের গুছিয়ে নিচ্ছেন এবং এসব লোকের কারণেই। নাম গোপন রাখার স্বার্থে তারা এ সংবাদদাতাকে বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব রয়েছে এমন দুয়েক কর্মকর্তা সভানেত্রীর সুনজরে থেকে বাংলাদেশে অবস্থান করে কাজের সুযোগ পেয়েছেন। এরাও আস্কারা দিচ্ছেন এমদাদ চৌধুরীর মত লোকজনকে। এ ব্যাপারে এখনই সতর্ক না হলে পুরো দায় প্রকারান্তরে আওয়ামী লীগকে বহন করতে হবে’।
এসব অভিযোগ সম্পর্কে এমদাদ চৌধুরীর বক্তব্য জানার চেষ্টা করা হয়। কিন্তু ঢাকায় তাকে মোবাইল ফোনে পাওয়া যায়নি এ সংবাদ লেখা পর্যন্ত। (সূত্র: এনআরবি নিউজ)






একই ধরনের খবর

  • নিউইয়র্ক বাংলাদেশী আমেরিকান লায়ন্স ক্লাবের নতুন কমিটি অভিষিক্ত
  • নিউইয়র্ক সিটিতে বাড়ী ক্রয়ে ২০ হাজার ডলার সাহায্য গ্রহণের সুযোগ
  • জ্যামাইকায় বারী হোম কেয়ারের দ্বিতীয় শাখা উদ্বোধন
  • জাঁকজমকপূর্ণ সিলেট সদর সমিতির বনভোজন প্রবাসীদের মিলন মেলায় পরিনত
  • মুনাফা নয়, প্রবাসীদের সেবা দেয়াই স্ট্যান্ডার্ড এক্সপ্রেস’র লক্ষ্য ॥ দেশপ্রেম ছাড়া দূর্নীতি বন্ধ করা যাবে না
  • ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী
  • ক্যাবীর আতœহত্যা বাড়ছেই : বিলুপ্তির পথে ইয়েলো ক্যাব ইন্ড্রাষ্ট্রি!
  • Shares