টরন্টোতে বাসা থেকে দম্পতিসহ ৪ বাংলাদেশীর লাশ উদ্ধার

হককথা ডেস্ক: কানাডার টরন্টোর শহরতলির প্রায় ৩০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত মারখামের একটি বাসা থেকে দম্পতিসহ চারজনের মৃতদেহ পুলিশ উদ্ধার করেছে। এ ঘটনায় ইয়র্ক রিজিওনাল পুলিশ ২০ বছর বয়সী এক যুবককে আটক করে। আটক যুবক নিহত দম্পতির ছেলে। রোববার (২৮ জুলাই) রাতে এই নির্মম ঘটনা ঘটেছে বলে পুলিশ জানায়। তবে পুলিশ এখনও নিহতদের নাম, পরিচয় প্রকাশ করেনি।

সিবিএনের এক রিপোর্ট থেকে জানা গেছে, নিহত সবাই বাংলাদেশী এবং টাঙ্গাইল জেলার অধিবাসী। তারা হলেন, মোহাম্মদ মনির ও মুক্তা জামান এবং তাদের মেয়ে, এবং কানাডায় বেড়াতে আসা মুক্তা জামানের মা অর্থাৎ মনিরের শাশুড়ি।
সিবিএন আরো জানায়, নিহত দম্পতির গ্রেফতার ছেলে সম্ভবত মানসিকভাবে বিকারগ্রস্থ ছিল, এমনকি সে মাদকাসক্তও ছিল। তাদের ধারণা, খাবারে কিছু মিশিয়ে অজ্ঞান করার পর ছুরিকাঘাতে তাদের হত্যা করে সে। এরপর সে গেম খেলতে থাকে। পরিবারের সদস্যদের খুন করার বিষয়টি এই ছেলেই মন্ট্রিয়লে থাকা তার এক বন্ধুকে ফোন করে জানায়।
কাসলমোর এভিনিউ এবং এবং মিংয়ে অ্যাভিনিউস্থ একটি বাড়িতে সংগঠিত এই হত্যাকান্ডকে গোয়েন্দা সংস্থা গণহত্যা বলে অভিহিত করে। পুলিশ প্রতিবেশিদের কাছে খোঁজ-খবর নিচ্ছে এবং তারা জানায়, এ ব্যাপারে আরো তদন্ত চলছে। এজন্য জনসাধারণের সাহায্য-সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন।
পুলিশের কাছে প্রতিবেশি পাসকোয়াল ডি’সৌজা জানায়, এ বাড়িতে পরিবারটি ২০০২ সাল থেকে বসবাস করে আসছে। (দৈনিক ইত্তেফাক)






একই ধরনের খবর

  • টরন্টোতে বাংলাদেশী একই পরিবারের চারজনের লাশ উদ্ধার
  • ‘সন্তান নাস্তিক’ এই লজ্জা থেকে বাবা মাকে মুক্তি দিতে হত্যা!
  • টরন্টোতে বাবা-মাসহ পরিবারের ৪ সদস্যকে খুন করল বাংলাদেশী যুবক
  • যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় না পেয়ে কানাডায় রাজনৈতিক আশ্রয় চেয়েছেন সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহা
  • টরন্টো স্টারে বিচারপতি সিনহার আশ্রয় প্রার্থনা উন্মোচিত
  • হোয়াইট হাউসের সামনে মেট্রো ওয়াশিংটন আ. লীগের প্রতিবাদ : স্মারকলিপি প্রদান
  • আমেরিকা প্রবাসী মজিদ আলী ইতিহাসের কিংবদন্তী
  • Shares