আমার জীবনে প্রথম, সংবাদপত্রের কর্মীদের ১ মাসের বেতন দিতে পারলাম না

নাঈমুল ইসলাম খান: আগামী কিংবা তার পরের মাসেও বেতন দেয়া সম্ভব হবে বলে মনে হচ্ছে না। ১৯৮৮ সাল থেকে আজ ৩২ বছর হলো, সংবাদপত্র এবং সাংবাদিকতা বিষয়ক প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছি, সম্পূর্ণ আমার ব্যবস্থাপনায় ছিলো, এবং এক মাসের বেতন বকেয়া হয়েছে, এপ্রিল ২০২০ এর আগে এমনটি কখনও হয়নি। আমি লজ্জিত, আমি ভারাক্রান্ত , আমি বিক্ষুদ্ধ।
২৬ মার্চ থেকে সংবাদপত্রের ব্যবসা বলতে কিছু নেই, পত্রিকা বিক্রি ব্যবস্থা সম্পূর্ণ ভেঙে পড়েছে, সরকারের অধিকাংশ অফিস, আদালত, প্রতিষ্ঠান ছুটিতে। কোথাও কেউ নেই যে নগদ টাকা ধার দেবে, কোথাও কেউ নেই যে বছরের পর বছর বকেয়া পড়ে থাকা বিজ্ঞাপন বিল এই দুঃসময়ে পরিশোধ করবে।
বাংলাদেশ সরকার সংবাদপত্রের জন্য কী সাহায্য করবে, আদৌ করবে কি না এখন পর্যন্ত স্পষ্ট নয়। সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের যারা বছরের পর বছর বিজ্ঞাপনের বিল বকেয়া রেখেছেন, এসময় টেলিফোনও ধরছেন না।
আমরা লক্ষ্য করছি, দেশে বিদেশে অনেক বড় বড় মিডিয়া প্রতিষ্ঠান বিপর্যস্ত হয়ে পড়ছে, কর্মী ছাঁটাই করছে, কর্মীদের বেতন ভাতা কমাচ্ছে, কেবলই টিকে থাকার জন্য যা পারছে তাই করছে।
আমিও দুঃখ ভারাক্রান্ত মনে সকলকে জানাতে চাই, এ সময় শুধু করোনা মহামারী পরিস্থিতিটা ন্যূনতম অস্তিত্ব রক্ষা করে অতিবাহিত করতে পারাই আমাদের জন্য বিশাল চ্যালেঞ্জ।
এ সময়ে আমাদেরকেও কিছু অনভিপ্রেত সিদ্ধান্ত নিতে হচ্ছে, আরও এক বা দুই মাস বেতন পরিশোধ করা আমাদের পক্ষে সম্ভব নাও হতে পারে। এ সময় সকল কর্মী ভাইদের নিজ নিজ উদ্যোগে ব্যবস্থা করে প্রতিষ্ঠানকে টিকিয়ে রাখা এবং যে যেভাবে পারবেন নিজেদেরকেও টিকে থাকার জন্য কাজ করতে সনির্বন্ধ অনুরোধ জানাচ্ছি।
তবে যত আর্থিক অনটনেই থাকি না কেনো, আমাদের যে কারও সত্যিকারের অনন্যোপায় অবস্থায়, যে কোন চ্যালেঞ্জে আমরা সকলে নিজেদের সর্বোচ্চ সামর্থ নিয়ে একে অপরের পাশে থাকবো অবিচল, ইনশাআল্লাহ।
আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, ইনশাআল্লাহ এই মহামারী অনেক বেশী দিন থাকবে না এবং আমাদের দুঃসময়ও দীর্ঘদিন থাকবে না। আমরা আমাদের প্রতিষ্ঠানকে আবারও মার্চ ২০২০ এর অবস্থানেই কেবল ফিরিয়ে আনবো না বরং সে অবস্থানকেও ছাড়িয়ে যাবো।
অপ্রত্যাশিত, অস্বাভাবিক এবং আচমকা যে আঁধার আমাদের গ্রাস করেছে সেটা ভেদ করে অদূর ভবিষ্যতেই আলো আসবে। আমাদের প্রতিষ্ঠান হবে এদেশের অন্যতম সেরা এবং আমাদের গৌরবের ও আমাদের সকলের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধিরও।



« (পূর্ববর্তী খবর)



একই ধরনের খবর

  • সাংবাদিক হুমায়ুন কবির খোকন আর নেই
  • মৃত্যুঞ্জয়ী ফরিদ আলম বলছি…
  • খবরের কাগজ নিয়ে গবেষণায় উঠে আসা চমকপ্রদ তথ্য
  • করোনায় থাবায় বিপন্ন সংবাদপত্র
  • নিউইয়র্কের মিডিয়া কড়চা-৪
  • সংগ্রাম অফিস লকডাউন, দীপ্ত টিভির বার্তা বিভাগ বন্ধ
  • করোনা পরিস্থিতি : নিউইয়র্কে দু’টি বাদে সব বাংলা সংবাদপত্র বন্ধ ঘোষণা
  • Shares