আজকাল ছাড়লেন মনজুর আহমদ ও সাকী

নিউইয়র্ক (ইউএনএ): নিউইয়র্কের অন্যতম পাঠকপ্রিয় সাপ্তাহিক আজকাল-এর সম্পাদক পদ ছেড়ে দিয়েছেন প্রবীণ সাংবাদিক মনজুর আহমদ। সেই সাথে পত্রিকাটির সহযোগী সম্পাদক হাসানুজ্জামান সাকীও তার পদ ছেড়ে দিয়েছেন। তবে তারা পদত্যাগ করেছেন নাকি পত্রিকা কর্তৃপক্ষ পদ থেকে তাদের সড়িয়ে দিয়েছেন তা জানা যায়নি। শুক্রবার (৯ আগষ্ট) আজকাল বাজারে প্রকাশের পর পরই খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। চলতি সংখ্যায় প্রিন্টার্স লাইনে তাদের নাম রয়েছে। হাসানুজ্জামান সাকী সময় টিভি’র যুক্তরাষ্ট্র প্রতিনিধি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করছেন। খবর ইউএনএ’র।

আজকাল ছাড়ার বিষয়ে মনজুর আহমেদ তার ফেসবুকে একটি স্ট্যাটাসও দেন। তিনি দীর্ঘ সাড়ে ৪ বছর ধরে আজকাল-এর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। উল্লেখ্য, বিগত ১১ বছর ধরে সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার আজকাল নিয়মিত প্রকাশিত হয়ে আসছে।
শুক্রবার (৯ আগষ্ট) মনজুর আহমদ তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন-
‘ইতি টেনে দিলাম আমার ‘আজকাল’ পর্বের। সাড়ে চারটি বছর, ২০১৬ সালের ডিসেম্বর থেকে এই জুলাইয়ের প্রথম দিনটি পর্যন্ত ‘আজকাল’ পত্রিকার সম্পাদকের দায়িত্বে বিরতীহীন ছুটিবিহীন এক নিরলস সময় কাটিয়ে এখন এখান থেকে একেবারেই ছুটি নিলাম। শেষ হয়ে গেল আমার ‘আজকাল’ পর্ব। আমার সম্পাদনা সময়ের মধ্যে পত্রিকা সমৃদ্ধ হয়েছে, কলেবরে স্ফীত হয়েছে, জনপ্রিয় হয়েছে, প্রশংসিত হয়েছে। পত্রিকাকে এই পর্যায়ে উন্নীত করতে যাদের উদ্যম আমার পাথেয় ছিল, যাদের শ্রম মেধা আর অধ্যাবসায়ের ফসল আজকের সুসমৃদ্ধ ‘আজকাল’, আমার সেই দুই সহকর্মী হাসানুজ্জামান সাকী আর শাহাব উদ্দিন সাগরের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতার শেষ নেই। আধুনিক সাংবাদিকতার এই দুই প্রতিনিধি তাদের নিত্য নতুন উদ্ভাবনী চিন্তা-চেতনায় ভরিয়ে দিয়েছেন পত্রিকাকে।
‘আজকাল’ পর্বের ইতি টানার সাথে সাথে সমাপ্তি ঘটল আমার জীবনের আর একটি পর্যায়ের। হয়ত এখানেই সমাপ্তি আমার বাঁধা-ধরা চাকুরি জীবনের। সেই কবে কত আগে শুরু হয়েছিল আমার সাংবাদিকতা জীবনের পথ চলা। ১৯৬১ সালে সাংবাদিকতা পেশায় ঢুকেছিলাম দৈনিক সংবাদ-এ সহ সম্পাদক হিসাবে। যার কাছে আমার পেশাদারি সাংবাদিকতার হাতেখডি আমার সেই অগ্রজপ্রতীম শ্রদ্ধেয় তোয়াব খান অশীতিপর বয়সে আজও সাংবাদিকতা পেশায় সক্রিয়। তিনি আজও আমার অনুপ্রেরণা।
সেই থেকে এই। দীর্ঘ এই ষাটটি বছর ধরে আমি এগিয়ে এসেছি একই পথ ধরে। কত চড়াই-উৎরাই, কত পর্যায়ের কত উত্থান, কত পতন। সব শেষে ‘আজকাল’ থেকে বিদায়।
এ বিদায় তো খুব একটা সহজিয়া বিষয় ছিল না। পত্রিকার জগত আমার এক স্বপ্নের জগত। সাড়ে চার বছর ধরে একটা স্বপ্নের মধ্যে ভাসছিলাম, সেই স্বপ্ন ভঙ্গ হলো। স্বপ্ন ভঙ্গের তো নিশ্চয় একটা বেদনা আছে।’
অপরদিকে মনজুর আহমদ-এর ফেসবুক স্ট্যাটাসের পর হাসানুজ্জামান সাকী লিখেছেন-
‘আজকাল এখন গতকাল। মনজুর ভাই দু’দিন আগে ছেড়েছেন আর আমি দু’দিন পর- পার্থক্য এই যা। কাল ছিল আজকাল-এ আমার শেষ দিন। মনজুর ভাইয়ের পথে আমিও পা বাড়ালাম।’
প্রবীন সাংবাদিক মনজুর আহমদ আজকাল ছাড়া বিষয়ে পত্রিকাটির প্রকাশক ও প্রধান সম্পাদক, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী জাকারিয়া মাসুদ জিকোর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি এই প্রতিনিধিকে বলেন, জনাব মনজুর আহমেদের সাথে ভুল বুঝাবুঝির কারণে হয়তো তিনি আজকাল ছাড়ার কথা বলেছেন। তবে আমার বিশ্বাস আমাদের মধ্যকার ভুল বুঝাবুঝির অবসান ঘটবে এবং তিনি সপদে ফিরে আসবেন। তার জন্য আজকাল-এর দরজা সবসময় খোলা।
এব্যাপারে মনজুর আহমদ-এর সাথে ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি কোন মন্তব্য করেননি। অপরদিকে হাসানুজ্জামান সাকী সপরিবারে টেক্সাস সফরে থাকায় তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।






একই ধরনের খবর

  • সাপ্তাহিক বাংলাদেশ উদযাপন করলো যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা দিবস
  • সাংবাদিক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীরের ইন্তেকাল
  • বিএসআরএফের নির্বাচিত সহ সভাপতি সাজু রহমান-কে অভিনন্দন
  • এসএম সোলায়মানের টাইম টেলিভিশনে যোগদান
  • বিয়ানীবাজার নিউজ২৪’র প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠান
  • টাইম টেলিভিশন-এর বিশেষ প্রতিনিধি মোহাম্মদ সোলায়মান
  • সাংবাদিক আব্দুর রহীম আজাদের ইন্তেকাল
  • Shares